শুক্রবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ০৯:৪৭ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
চুনারুঘাটে র‌্যাবের অভিযানে ১২ কেজি গাঁজাসহ যুবক গ্রেপ্তার নবীগঞ্জে একরাতে তিন মন্দিরে চুরি খোয়া গেল মূর্তিসহ আসবাবপত্র বেগম খালেদা জিয়ার সু-স্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনায় জেলা বিএনপির মিলাদ মাহফিল হবিগঞ্জ জেলা এসোসিয়শন বাফেলোর থ্যাংকস গিভিং ডে ফ্যামিলি পার্টি ও সাধারন সভা অনুষ্টিত চুনারুঘাটে আকল মিয়া হত্যায় জড়িত মোশাহিদ মিয়া আটক নবীগঞ্জে বাল্য বিয়ে বন্ধ করলেন এসিল্যান্ড সদর উপজেলার গোপালপুরে ব্যবসায়ীকে হত্যার অভিযোগ পইলে ইউপি চেয়ারম্যান আরিফকে সংবধর্না প্রদান লন্ডনে বেঙ্গলী ওয়ার্কার্স এসোসিয়েশনের উদ্যোগে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি উদযাপন চুনারুঘাটে বিপুল পরিমাণ অনুমোদনহীন বিড়ি জব্দ

নবীগঞ্জ নৌকা প্রতীক পেতে প্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ ॥ মাঠে আছেন স্বতন্ত্র, লন্ডন প্রবাসীসহ শতাধিক প্রার্থী

  • আপডেট টাইম শনিবার, ২৩ অক্টোবর, ২০২১
  • ৮৯ বা পড়া হয়েছে

এটিএম সালাম, নবীগঞ্জ থেকে ॥ তৃতীয় ধাপে নবীগঞ্জ উপজেলার ১৩টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের আর মাত্র ৩৭ দিন বাকি। নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গেই ভোটারদের নজরকাড়ার চেষ্টায় বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে যোগ দিচ্ছেন চেয়ারম্যান পদের সম্ভাব্য প্রার্থীরা। ভোটারদের ঘরের দরজায় কড়া নাড়া থেকে শুরু সামাজিক মাধ্যমেও নিজেকে অন্যদের চেয়ে বেশি এগিয়ে রাখার চেষ্টা করে যাচ্ছেন কেউ কেউ। এমনই চিত্র দেখা যাচ্ছে নির্বাচন কমিশনের ৩য় ধাপের তফসিল তালিকায় থাকা নবীগঞ্জের ১৩টি ইউনিয়নের আগামী ২৮ নভেম্বর নির্বাচনে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান/মেম্বার ও সংরক্ষিত আসনের মেম্বার প্রার্থীদের মধ্যে। তবে ভোটারদের প্রধান আগ্রহ আসন্ন নির্বাচনে কে থাকছেন নৌকা প্রতীকে চেয়ারম্যান প্রার্থী। কে হচ্ছেন আগামীর চেয়ারম্যান ? এছাড়া বিএনপি উক্ত স্থানীয় নির্বাচনে অংশ নিবে না ঘোষনা দিলেও বিগত নির্বাচনে দলীয় প্রতীকে নির্বাচিত ও পরাজিত প্রার্থীরা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। বেশীর ভাগ ইউনিয়নে বিএনপির ঘরোয়া একাধিক প্রার্থী রয়েছেন। ইতিমধ্যে নবীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগ তাদের দলীয় বর্ধিত সভা আহ্বান করে প্রত্যেকটি ইউনিয়নে একক প্রার্থী দিতে উদ্যোগ নেয়। উক্ত বর্ধিত সভায় জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এডভোকেট আবু জাহির এমপি, সাধারণ সম্পাদক এড. আলমগীর চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন। ১৩টি ইউনিয়নে অনুষ্টিত বর্ধিত সভায় একাধিক প্রার্থী থাকায় ইউনিয়ন ও উপজেলা আওয়ামীলীগ জেলা আওয়ামীলীগের মাধ্যমে ১৩টি ইউনিয়নে ৬৯ জন চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের তালিকা কেন্দ্রে প্রেরন করা হয়েছে। প্রার্থীরা প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে চুড়ান্ত মনোনয়ন ফরম ক্রয় করে জমা প্রদান করেছেন। বুধবার (২০ অক্টোবর) জমা প্রদানের শেষদিনে আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে বিকেল ৪টা পর্যন্ত নবীগঞ্জ উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী প্রার্থীরা দলীয় নেতাকর্মী নিয়ে দলীয় চুড়ান্ত মনোনয়ন ফরম দাখিল করেন।
আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা হলেন-নবীগঞ্জ উপজেলার ১নং বড় ভাকৈর (পশ্চিম) ইউনিয়নের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান নবীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সমর চন্দ্র দাশ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ প্রচার সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধার সন্তান গৌতম কুমার দাশ, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ ইসলাম উদ্দিন, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সমীরণ দাশ, ছাত্রলীগ সিলেট মহানগর শাখার সাবেক সদস্য সমাজসেবক মরুক কান্তি চৌধুরী, আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ সিলেট মহানগর শাখার প্রচার সম্পাদক সমাজসেবক রাজেশ চন্দ্র দাশ রাজু ও ছাত্রলীগ সিলেট রায়নগর ইউনিটের সাবেক সাধারণ সম্পাদক রুপক চন্দ্র দাশ। স্থানীয়দের ধারনা সমর চন্দ্র দাশের বিকল্প প্রার্থী হলে নৌকার ভরাডুবি হতে পারে। ২নং ভাকৈর (পূর্ব) উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ৩ বারের নির্বাচিত সাবেক চেয়ারম্যান ২০১৬ সালে নৌকা প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে পরাজিত মেহের আলী মালদার, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি, উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ আক্তার মিয়া, ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি প্যানেল চেয়ারম্যান মোঃ খালেদ মোশারফ ও ৫নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সদস্য ২০১৬ সালের নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী মোঃ জাকারিয়া হোসেন বকুল। ৩নং ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নে ইনাতগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শহীদ মুক্তিযোদ্ধা আওয়ামী পরিবারের সন্তান মোঃ রাকিল হোসেন, আওয়ামী পরিবারের সন্তান মোঃ নোমান হোসেন, যুক্তরাজ্য প্রবাসী মোঃ আছাবুর রহমান জীবন, আওয়ামী লীগ নেতা ও গত নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী মোঃ ছায়েদুল হক, ইনাতগঞ্জ ইউনিয়ন যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আশাহীদ আলী আশা। এখানে নৌকার মাঝি হওয়ার শীর্ষে রয়েছেন মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান সাংবাদিক রাকিল হোসেন। ৪নং দীঘলবাক ইউনিয়নে দীঘলবাক ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ২ বারের নির্বাচিত চেয়ারম্যান মোঃ আবু সাঈদ, দীঘলবাক ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মোঃ গোলাম হুসাইন রব্বানী, দীঘলবাক ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক কুয়েত প্রবাসী আওয়ামী লীগ নেতা চৌধুরী রুহুল আমিন, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সমাজসেবক মোঃ আবু ছালেহ ও দীঘলবাক ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি দলীয় নেতা সাজ্জাদুর হক। ওই ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান আবু সাঈদ এওলা সকলের নিকট গ্রহন যোগ্যতা তৈরী করতে সক্ষম হয়েছেন। ৫নং আউশকান্দি ইউনিয়নে উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সাবেক দুইবারের নির্বাচিত চেয়ারম্যান ও ২০১৬ সালে নৌকা প্রতীক নিয়ে পরাজিত দিলাওর হোসেন, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সমাজসেবক আমিনুর রহমান নোমান, সিলেট সরকারি কলেজ হল ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আওয়ামী পরিবারের সন্তান শফিউল আলম হেলাল, ৬নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি সমাজসেবক মোঃ আশিকুর রহমান, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সমাজসেবক সৈয়দ এন আলী এহিয়া, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সম্পাদক সমাজসেবক মোতাচ্ছির হোসেন খাঁন, ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক আহবায়ক জেলা পরিষদ সদস্য মোঃ আব্দুল মতিন আছাব, আউশকান্দি ইউনিয়ন কৃষকলীগের সাবেক আহবায়ক উপজেলা বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা সন্তান মোঃ নিজামুল ইসলাম চৌধুরী।
৬নং কুর্শি ইউনিয়নে ৩ বারের নির্বাচিত চেয়ারম্যান নবীগঞ্জ উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি আলী আহমেদ, উপজেলা কৃষকলীগের সদস্য গত নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী মোঃ আব্দুল মুকিত, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সমাজসেবক কাজী মোঃ ওবায়দুল কাদের হেলাল, উপজেলা মহিলা লীগ সাধারণ সম্পাদক নারী নেত্রী শেখ ছইফা রহমান কাকলী, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগ করেছি শাখার সিনিয়র সহ-সভাপতি প্রবাসী কমিউনিটি লিডার মোহাম্মদ অনর উদ্দিন জাহিদ, নবীগঞ্জ ডিগ্রি কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি গত নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী মোঃ আঃ বাছিত চৌধুরী ও আওয়ামী লীগ ইংল্যান্ডের এসেক্স শাখার সদস্য প্রবাসী কমিউনিটি লিডার আবু তালিম চৌধুরী নিজাম। ৭নং করগাঁও ইউনিয়নে নরীগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্মল দাশ রানা, করগাঁও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি বজলুর রহমান ও করগাঁও ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি আব্দুল কুদ্দুছ সাগর। ৮নং নবীগঞ্জ সদর ইউনিয়নে আওয়ামী নেতা নবীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক বর্তমান চেয়ারম্যান সাজু আহমেদ চৌধুরী, যুবলীগ নেতা মোঃ হাবিবুর রহমান, আওয়ামী লীগ নেতা খসরু আহমেদ ও যুক্তরাজ্য প্রবাসী আওয়ামী লীগ নেতা মাকাচ্ছিন মিয়া মহসীন। ওই ইউনিয়নে তৃর্ণমুল আওয়ামীলীগসহ সাধারণ মানুষের দাবী বর্তমান চেয়ারম্যান সাজু চৌধুরীর বিকল্প প্রার্থী দেয়া সমিচিন হবে না। এখানে হেভিয়েট স্বতন্ত্র প্রার্থী (বিএনপি) মুক্তাদির চৌধুরীর সাথে প্রতিদ্বন্ধিতা করে নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত করতে হলে সাজু চৌধুরীর বিকল্প নাই।
৯নং বাউসা ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোঃ আবু সিদ্দিক ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতা জুনেদ হোসেন চৌধুরী। ১০নং দেবপাড়া ইউনিয়নে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুল মোহিত চৌধুরী, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান হাজী আ.খ.ম ফখরুল ইসলাম, দেবপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফজলুল করিম ও ইংল্যান্ড প্রবাসী যুবলীগ নেতা মোঃ নূরুল শরীফ (হুদা)।
১১নং গজনাইপুর ইউনিয়নে নবীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও করোনাকালে চাল আত্মসাতের দায়ে স্থায়ী বরখাস্তকৃত চেয়ারম্যান ইমদাদুর রহমান মুকুল, আওয়ামী লীগ নেতা সাবের আহমেদ চৌধুরী, ডাঃ আব্দুল কাইয়ূম সেলিম, সাবেক প্যানেল চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ জমশেদ আলী, ইউনিয়নের (ভারপ্রাপ্ত) চেয়ারম্যান সৈয়দ মাহবুব আলী, নবীগঞ্জ উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেয়া শেখ মাসুদুর রহমান, শাহ তোফায়েল আহমেদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আজমান আলী, বীর মুক্তিযোদ্ধা সাম আহমেদ। ১২নং কালিয়ারভাঙ্গা ইউনিয়নে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ইমদাদুল হক চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক ফরহাদ আহমদ ও জাতীয় শ্রমিক লীগ যুক্তরাজ্য সহ-সভাপতি শাহ শহীদ আলী। তাদের মধ্যে ইমদাদুল হক চৌধুরী ২০১৬ সালে নৌকা প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে পরাজিত হয়েছিলেন।
১৩নং পানিউমদা ইউনিয়নে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বর্তমান চেয়ারম্যান মোঃ ইজাজুর রহমান, শাহ তোফাজ্জল হোসেন। ওই ইউনিয়নে মনোনয়ন প্রত্যাশী হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আতাউর রহমান, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ শাহ দরাজ, মোঃ মনসুর আলম, মোঃ আবু তাহের উদ্দিন, পানিউমদা ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি মোঃ এখলাছুর রহমান খান ও যুবলীগ নেতা অনু আহমেদ বর্তমান চেয়ারম্যানকে সমর্থন জানিয়ে কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে ফরম ক্রয় করেননি। আসন্ন ইউনিয়ন নির্বাচনের আর মাত্র ৩৭ দিন বাকী। আওয়ামীলীগের মনোনয়ান প্রত্যাশীরা কেন্দ্রে অবস্থান করছেন। এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে মাঠে প্রচারনায় সরব রয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। যদিও বিএনপি আনুষ্টানিকভাবে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেনা, পক্ষান্তরে তাদের দলীয় লোকজন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্ধিতায় রয়েছেন। এছাড়া অনেক লন্ডন প্রবাসী নির্বাচনে প্রতিদন্ধিতা করার জন্য দেশে অবস্থান করছেন। তারাও ভোটারদের মন জয় করতে বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্টানে যোগ দিচ্ছেন। বিগত নির্বাচনে ১৩টি ইউনিয়নে ৭টিতে নৌকার প্রার্থী বিজয়ী হয়েছিল। বাকী ৬টির মাঝে বিএনপি ২টি ও ৪টিতে আওয়ামীলীগ বিদ্রোহী প্রার্থীরা জয়লাভ করেন। এসব কাটিয়ে উঠতে প্রার্থী নির্ধারণে কেন্দ্র নির্ভুল সিদ্ধান্ত দিলে সব কটিতে এবার নৌকার প্রার্থী বিজয় হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com