রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১১:৫৭ পূর্বাহ্ন

নবীগঞ্জে সরকারি জলমহালে মাছ শিকার করতে পারছেন না লিজ গ্রহীতা জেলা প্রশাসকের নিকট অভিযোগ

  • আপডেট টাইম রবিবার, ১৯ মার্চ, ২০২৩
  • ১৩৭ বা পড়া হয়েছে

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ নবীগঞ্জে সরকারি জলমহাল লিজ নিয়েও ঠিক মতো মাছ শিকার করতে পারছেন না লিজগ্রহীতা বিশ্বদেব সরকার। ওই উপজেলার বৈঠাখাল গ্রামের সেলি মিয়া ও মুছা মিয়া গংদের অত্যাচারে অতিষ্ট হয়ে জেলা প্রশাসকের নিকট লিখিত অভিযোগ করেছেন তিনি। জেলা প্রশাসকের নির্দেশে সরকারি সার্ভেয়ার ও গোবলা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ সামছুদ্দিন সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে সরেজমিনে গিয়ে বিলের সীমানা নির্ধারণ করে দিয়ে আসলেও তাদের নির্দেশনা অমান্য করছেন প্রভাবশালী সেলি মিয়া ও মুছা মিয়া গংরা। অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ১০নং দেবপাড়া ইউনিয়নের বৈঠাখাল গ্রামের পূর্বে অবস্থিত পারুবাদা জলমহালটি ৬ বছরের (১৪২৮-১৪৩৩ বাংলা সনের) জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয় হইতে লিজপ্রাপ্ত হয়ে সরেজমিনে গিয়ে দখল গ্রহন করতে গেলে দেখা যায়, উক্ত পারুবাদা বিলের সীমানের ভিতরে পুকুর খনন করে অবৈধভাবে মাছ শীকার করে আসছে বৈঠাখাল গ্রামের সেলু মিয়া ও মুছা মিয়া গংরা। এতে জলমহালের লিজ গ্রহনকারীরা আর্থিকভাবে মারাত্মক ক্ষতির শিকার হচ্ছেন। এ নিয়ে ৬ জুলাই ২০২২ইং তারিখে উক্ত জলমহালের লিজ গ্রহীতা বিশ^দেব সরকার হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে বিগত ৪ আগস্ট ২০২২ তারিখে সরেজমিনে গিয়ে তদন্ত সাপেক্ষ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে নির্দেশ দেন জেলা প্রশাসক।
পরবর্তীতে বিগত ১ মার্চ ২০২৩ ইং তারিখে সহকারী কমিশনার (ভূমি) নবীগঞ্জের নির্দেশে ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার হাবিবুর রহমান ও গোবলা পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই লোকেশ দাশ সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে সরেজমিনে গেলে তাদেরকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে তাদের সঙ্গে চরম দূর্ব্যবহার করে বৈঠাখাল গ্রামের মৃত আলম উল্লার পুত্র সেলি মিয়া, মৃত আব্দুল রউফের পুত্র মুছা মিয়া গংরা। পরবর্তিতে সার্ভেয়ার ও পুলিশ প্রশাসন তদন্ত সাপেক্ষ জলমহালের সীমানা নির্ধারণ করে লাল নিশান স্থাপন করে সীমানার ভিতরে জলমহাল লিজ গ্রহীতা ব্যতিত অন্য কেউ মাছ শীকার কিংবা জলমহালের ক্ষতি সাধন হয় এমন কোন কাজ না করার নির্দেশ দিয়ে আসেন। কিন্তু তাদের নির্দেশনা অমান্য করে বর্তমানে জলমহালের সীমানার ভিতরে এক্সেভেটর দিয়ে মাটি কেটে আরও পুকুর খনন করছে উল্লেখিত সেলি মিয়া ও মুছা মিয়া গংরা।
এর প্রেক্ষিতে সেলি মিয়া ও মুছা মিয়া গংদের দখল উচ্ছেদ করার জন্য হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক নিকট অভিযোগ করেছেন লিজ গ্রহীতা বিশ্বদেব সরকার। অভিযোগে তিনি উল্লেখ করেন, যদি অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ করা না হয়। তাহলে তিনি আর্থিকভাবে মারাত্মক ক্ষতির শিকার হবেন। তিনি বলেন, বিগত বছর আমার কয়েক লক্ষ টাকা ক্ষতি হয়েছে। এবছরও আরও পুকুর খনন করে তাহলে আমার লিজের টাকাসহ সমস্ত মূলধন ক্ষতি সাধন হবে।

 

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com