শুক্রবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ০১:৩৫ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
চুনারুঘাটে র‌্যাবের অভিযানে ১২ কেজি গাঁজাসহ যুবক গ্রেপ্তার নবীগঞ্জে একরাতে তিন মন্দিরে চুরি খোয়া গেল মূর্তিসহ আসবাবপত্র বেগম খালেদা জিয়ার সু-স্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনায় জেলা বিএনপির মিলাদ মাহফিল হবিগঞ্জ জেলা এসোসিয়শন বাফেলোর থ্যাংকস গিভিং ডে ফ্যামিলি পার্টি ও সাধারন সভা অনুষ্টিত চুনারুঘাটে আকল মিয়া হত্যায় জড়িত মোশাহিদ মিয়া আটক নবীগঞ্জে বাল্য বিয়ে বন্ধ করলেন এসিল্যান্ড সদর উপজেলার গোপালপুরে ব্যবসায়ীকে হত্যার অভিযোগ পইলে ইউপি চেয়ারম্যান আরিফকে সংবধর্না প্রদান লন্ডনে বেঙ্গলী ওয়ার্কার্স এসোসিয়েশনের উদ্যোগে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি উদযাপন চুনারুঘাটে বিপুল পরিমাণ অনুমোদনহীন বিড়ি জব্দ

একটি অসহায় পরিবারের গল্প ॥ ভিক্ষা করলে পরিবারের খাবার জোটে নইলে উপোষ থাকতে হয়

  • আপডেট টাইম শুক্রবার, ৮ অক্টোবর, ২০২১
  • ৩৯ বা পড়া হয়েছে

মখলিছ মিয়া, বানিয়াচং থেকে ॥ বানিয়াচংয়ের একটি অসহায় পরিবার মানবেতর জীবন কাটাচ্ছে। ভিক্ষাবৃত্তি করে চলছে সংসার। যে দিন ভাগ্যে ভিক্ষাও জুটেনি সেইদিন পরিবারের সদস্যদের নিয়ে থাকতে হয় বিনা খাবারে। বলছি বানিয়াচং উপজেলার ২ নম্বর ইউনিয়নের রঘুচৌধুরী পাড়া গ্রামের পরিতোষ মোদক এর কথা। ৩৭ বছরের যুবক। এই বয়সেই পরিতোষের দেখা হয়ে গেছে পৃথিবীর নির্মমতার সঙ্গে। তার জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রেই সুখের বদলে আছে কেবলই কষ্টগাথার গল্প। পরিতোষ মোদকের পৈতৃক পেশা ছিল মিষ্টান্ন তৈরি ও বিক্রি করা। খুব ছোটবেলায় বাবাকে হারিয়ে পেশা হিসেবে বেছে নেন মোয়া-মুড়কি, বাদাম, ছোলা বিক্রি করা। বিদ্যালয়ে গিয়ে পড়াশোনা করা তার ভাগ্যে জুটেনি। একটি সড়ক দূর্ঘটনায় ভেঙ্গে যাওয়া পায়ের চিকিৎসা করাতে ঘর-বাড়ি বিক্রি করে দিতে হয়। বর্তমানে সব হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে এখন ভিক্ষাবৃত্তি করছেন। ভিক্ষা করলেই চার সদস্যের পরিবারের সবার খাবার জোটে। পরিতোষ যেদিন ভিক্ষা করতে পারেননি, সেদিন সবাইকে উপোষ থাকতে হয়। দিনদিন বয়সের ভারে শরীলেও দেখা দিয়েছে বিভিন্ন রোগের। চোখেও ঠিকমত দেখতে পারেন না। চশমা লাগিয়েও চোখে ঝাপসা দেখেন। চোখের ডাক্তার বলে দিয়েছেন অপারেশন করতে হবে। তিনবেলা খাবারই যেখানে ভাগ্যে জোটেনা সেখানে চেখের চিকিৎসা কি করে হবে ? চার সন্তানের জনক পরিতোষ। দুটি সন্তান দত্তক দিয়ে দিয়েছেন। কারন তার স্ত্রী মনিকা মোদক মানসিকভাবে ভারসাম্যহীন। স্ত্রীকে শিকল দিয়ে বেধে রাখলে ঘরের মধ্যে মল-মূত্র ত্যাগ করে। ছেড়ে দিলে যেখানে ইচ্ছা চলে যায়। সন্তানদের কোন খোজ-খবরই রাখেনা। সব দিন ভিক্ষা করেও যখন মাঝে মধ্যে খালি হাতে ফিরতে হয় তখন ভিক্ষা করতেও লজ্জা করে বলে জানান পরিতোষ। যে কারনে ওইদিন দুই বাচ্চা ও মানসিক ভারসাম্যহীন স্ত্রীকে নিয়ে উপোষ থাকতে হয়। পরিতোষের স্ত্রীর উৎপাতে বাড়ির মালিক প্রায়ই বাড়ি ছাড়ার জন্য তাগাদা দেন। কিন্ত অসুস্থ স্ত্রী ও ছোট দুটি বাচ্চা নিয়ে এতবড় ধরণীরবুকে পরিতোষের যাওয়ার মত নিজস্ব কোন স্থান নেই। হতাশ পরিতোষ এখন কেবলই চোখের জল ফেলে দিন দিনরাত নিরবে নিভৃতে সময় পার করছেন। প্রধানমন্ত্রীর উপহারের একটি ঘরের জন্য ইউপি সদস্য ও চেয়ারম্যানের কাছে ধর্না দিলেও সময়মত না আসায়, দেখতে পারবেন না বলে তারা জানিয়েছেন। এ ব্যাপারে পরিতোষ মোদক বলেন, এতবড় পৃথিবীতে আমার কোন যাওয়ার জায়গা নাই। আমি সরকারের নিকট সাহায্যর আবেদন করছি। আমাকে যেন মাথাগোজার ঠাই করে দেওয়া হয়। এ ব্যাপারে ইউপি সদস্য মোঃ জাহেদ মিয়া জানান, পরিতোষের ঘর-বাড়ী নেই এই কথাটি সত্য। সে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে খুবই অসহায় অবস্থায় আছে। তাকে যদি সরকারিভাবে একখানা ঘরের ব্যাবস্থা করে দেওয়া যায় তাহলে খুবই উপকার হবে। এ বিষয়ে বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী অফিসার পদ্মাসন সিংহ বলেন, পরিতোষ মোদকের কষ্ট দূর করার জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে সহযোগিতা করার চেষ্টা করবো। সামনের দিনে আবার যদি গৃহহীনদের জন্য ঘর আসে তাহলে অবশ্যই তার বিষয়টি বিবেচনা করা হবে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com