শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ১১:৩৬ অপরাহ্ন

নবীগঞ্জে আরোয়া নদীর জায়গাদখল করে গৃহ নির্মাণ

নবীগঞ্জে আরোয়া নদীর জায়গাদখল করে গৃহ নির্মাণ

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ নবীগঞ্জের এক সময়ের ক্ষরস্রোতা আরোয়া নদীটি সীমিত জলাশয়ে পরিনত হয়েছে। নদীটিতে কোন গভীরতানেই, নেই জোয়ার ভাটা। ক্রমান্বয়ে পলি মাটি, বাজারের ময়লা আবড়জনা, পাকা ভবন করে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, পাকা বসত বাড়ি গড়ে তুলে নদীটি সরু খালে পরিনত হয়েছে। নবীগঞ্জ উপজেলার বাউসা ইউনিয়নের বাশডর দেবপাড়া) গ্রাম ঘেষা আরোয়া নদী অবস্থিত। বাউসা ইউনিয়নের মৃত ছুরাব মিয়ার পুত্র আঃ মালিক, আঃ জলিলসহ বেশ কয়েকটি পরিবার আরোয়া নদীর জায়গা দখল করে গৃহ নির্মান করে বসবাস করছেন। অভিযোগ রয়েছে নদীর জায়গা দখল করে দখল বিক্রি করারও। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের কারণে আরোয়া নদীটি এখন মৃত্যু প্রায় হয়ে পড়েছে। নদীর দু,পাড়েই শত শত পাকা বাড়িঘর, তৈরী করে লোকজন বসবাস করছে। অথচ অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদের কোন ব্যবস্থা গ্রহন করা হচ্ছে না। বর্জ্য ময়লা, বাথরুমে পাইপ দিয়ে মল ফেলা হচ্ছে আরোয়া নদীতে। এতে করে পরিবেশ মারাতœক দুষিত হচ্ছে। এই নদীর জায়গা দখল করেই নির্মাণ করা হয়েছে অসংখ্য ঘরবাড়ি বসানো হয়েছে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। এখনও চলছে এই দখল প্রক্রিয়া। যেন কারো কিছুই বলারও নেই। এভাবে দখলের পর দখল করায় সংকোচিত হয়ে গেছে ঐতিহ্যবাহী আরোয়া নদীটি। দখলদাররা আস্তে আস্তে দখল করে নদীটিকে প্রায় গ্রাস করে ফেলেছে। এক সময়ে যে নদীতে লঞ্চ-স্টিমার চলতো সেই নদী এখন খালে পরিনত হয়েছে। দখলদাররা প্রভাবশালী হওয়ায় কেউ প্রতিবাদ করতে সাহস পাচ্ছে না। আরোয়া নদী এলাকা ঘুরে দেখা গেছে নদীর দুই পাড় চলেছে এই দখলের প্রতিযোগিতা। এখানে নদীর জায়গায় পুকুর কেটে মাছ চাষ করা হচ্ছে। পরিকল্পিত ভাবে পাঁকা ঘরগুলো নির্মাণ করা হয়েছে। এখনও কিছুকিছু স্থানে নির্মান কাজ চলছে। দখলের কারণে নদীটি খালে পরিনত হয়েছে। অথচ একটি সময়ে এই নদীতে লঞ্চ-স্টিমার চলতো। নদীতে চলাচলকারী নৌকায় মালামাল আনা-নেওয়া হতো। এক শ্রেণীর লোকজন নানা কাগজপত্র দেখিয়ে এই সকল জায়গাটি তাদের দাবি করে আসছেন। কিন্তু প্রবীন ব্যক্তিদের ভাষায় এগুলো সবই এক সময়ে নদীই ছিল। শুধু দখল নয়, নদীতে নানা ধরনের ময়লা ফেলে ভরাট করা হচ্ছে। বর্জ্য, ময়লা ফেলে পানি দুষণ করা হচ্ছে। একাধিক ব্যক্তি জানান, এক শ্রেনীর মানুষ বস্তায় ভরে ময়লা এনে নদীর পানিতে ফেলেন। অনেক ক্ষেত্রে কুকুর-বিড়াল মারা যাওয়ার পরও বস্তায় ভরে নদীতে ফেলা হচ্ছে। এতে নদীর পানি দুষিত হচ্ছে। প্রতিবাদ করলে উল্টো খারাপ আচরণ করেন দখলদাররা। এ বিষয়ে নবীগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুমাইয়া মমিন বলেন, এগুলোর বিষয়ে খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নিবেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com