বৃহস্পতিবার, ০৪ Jun ২০২০, ০৮:৫২ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জের হৈবতপুর গ্রামের ৩ ব্যক্তির বিরুদ্ধে সমন জারী

নবীগঞ্জের হৈবতপুর গ্রামের ৩ ব্যক্তির বিরুদ্ধে সমন জারী

স্টাফ রিপোর্টার ॥ দৈনিক নয়া দিগন্ত’র নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ও দৈনিক হবিগঞ্জের জনতার এক্সপ্রেস পত্রিকার স্টাফ রিপোর্টার কিবরিয়া চৌধুরী ও তার পরিবারকে জড়িয়ে মানহানিকর প্রতিবাদ বিজ্ঞাপন প্রকাশ করায় নবীগঞ্জের হৈবতপুর গ্রামের দবির, রিপন ও শিপন মিয়ার বিরুদ্ধে সমন জারী করেছেন আদালত। গত বৃহস্পতিবার হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট রশিদ আহমেদ মিলন এ নোটিশ জারী করেন। মামলার বিবরণে জানা যায়, বিভিন্ন পত্রিকায় দবির সহ বেশ কয়েকজনের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ করা হয়। সংবাদের প্রেক্ষিতে দবির, রিপন ও শিপন মিয়া যৌথভাবে হবিগঞ্জের স্থানীয় কয়েকটি পত্রিকায় বিজ্ঞাপন আকারে প্রতিবাদ প্রকাশ করে। প্রতিবাদ বিজ্ঞাপনে অযাচিতভাবে সাংবাদিক কিবরিয়া চৌধুরীকে সন্ত্রাসীসহ বিভিন্ন খারাপভাবে উপস্থাপন করা হয়। বলা হয় কিবরিয়া চৌধুরী সাংবাদিক হিসাবে যোগদানের পর তিনি “চৌধুরী” বংশ সংযোজন করেন। এ ব্যাপারে ২০১৩ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর কিবরিয়া চৌধুরী বাদী হয়ে ১ কোটি ২৫ লাখ টাকার মানহানির মামলা দায়ের করেন। মামলাটি তদন্তের জন্য প্রেরণ করা হয় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বরাবরে। তৎকালীন পুলিশ সুপার তোফায়েল আহমেদ ২০১৩ সনের ৩ নভেম্বর দাখিল করা প্রতিবেদনে কিবরিয়া চৌধুরীর অভিযোগের সত্যতা নাই মর্মে প্রতিবেদন দাখিল করেন। অথচ তদন্তকালে কিবরিয়া চৌধুরী ১৯৪৩ সাল থেকে তার পরিবারের লিখিত ডকুমেন্ট প্রদর্শন করেন। ১০/১১/১৯৪৩ইং সনে কিবরিয়া চৌধুরী দাদা হুসাইন চৌধুরীর নিকাহনামায় দাদা দাদী দুজনের নামের শেষেই চৌধুরী উপাধি লেখা রয়েছে। তাছাড়া কিবরিয়া চৌধুরীর বাবা দুদু মিয়া চৌধুরীর বিবাহের রেজিষ্ট্রি নিকাহ নামায়ও বাবার নামের সাথে চৌধুরী উপাধি রয়েছে। কিবরিয়া চৌধুরীর দাদী রহিমা চৌধুরীর অন্তত ৫টি এফিডেভিট, ডিড অব এসপিসিয়াস ম্যারিজ, তার পরিবারের একাধিক সদস্যের এপলিকেশন ফর ইমিগ্রেন্ট ভিসা, ভোটার আইডিকার্ডসহ বিভিন্ন দলিলপত্র তদন্তকালে প্রদর্শন করা হলেও তা আমলে নেননি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তোফায়েল আহমেদ। অবশেষে গত বুধবার আদালতে কিবরিয়া চৌধুরীর নারাজী পিটিশন শুনানী হয়। শুনানীকালে এসব ডকুমেন্ট প্রদর্শন করে কিবরিয়া চৌধুরীর পক্ষে শুনানী করেন এডভোকেট এম এ মজিদ। অপরদিকে দবিরের পক্ষে শুনানীতে অংশ নেন এডভোকেট আব্দুর রহিম আকল মিয়া। শুনানী শেষে আদালত নারাজী পিটিশন গ্রহণ করেন এবং আসামীদের বিরুদ্ধে সমন জারী করেন। আদালতের নির্দেশে কিবরিয়া চৌধুরীর পরিবারের বিভিন্ন ডকুমেন্ট দাখিল করা হয়।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com