শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ০২:৩৩ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::

বানিয়াচং হাসপাতালে সরকারি নিয়ম ভঙ্গ করে রোগীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত অর্থ আদায়

  • আপডেট টাইম বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন, ২০২৪
  • ১৫ বা পড়া হয়েছে

মখলিছ মিয়া, বানিয়াচং থেকে ॥ বানিয়াচং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সরকারি নিয়ম ভঙ্গ করে রোগীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল বুধবার সরেজিমন বানিয়াচং হাসপাতাল পরিদর্শনকালে হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীরা জানান, অসুস্থ শরীর নিয়ে হাসপাতালের জরুরী বিভাগে চিকিৎসা নিতে গেলে সেখানে দায়িত্বরত লোকজন রোগীদের কাছ থেকে ১০ টাকা ফিস জমা দিয়ে প্রেসক্রিপশন লিখার রিসিট সংগ্রহ করতে বলেন। ১০ টাকা জমা দেয়ার পর রিসিট দিয়ে লাইনে দাঁড় করিয়ে রোগীদের দেখা হয়। চিকিৎসা নিতে আসা মোঃ তোফাজ্জ্বল মিয়া বলেন, আজ (১২ জুন) বেলা ২টার পর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালের জরুরী বিভাগে গিয়েছিলাম। আমার কাছ থেকে ১০ টাকা নিয়ে নাম এন্ট্রি করা হয়। পরে জরুরী বিভাগে দায়িত্বরত ডাক্তার আমাকে দেখে প্রেসক্রিপশন দিয়ে বিদায় করে দেন। আমার মত অনেক রোগীকে ভর্তি না করা সত্ত্বেও ১০ টাকার বিনিময়ে চিকিৎসা দিতে দেখলাম। অথচ ডাক্তার আবুল হাদি মোহাম্মদ শাহ পরান বানিয়াচং হাসপাতালের টিএইচও থাকাকালে জরুরী বিভাগে সাধারণ রোগীদের কাছ থেকে ৫ টাকা ফিস নিয়ে দেখা হত এবং ভর্তি হওয়ার উপযুক্ত রোগীদের কাছ থেকে ১০ টাকা ফিস নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি করা হত। কিন্তু বর্তমান টিএইচও ডাক্তার শামীমা আক্তার যোগদানের পর থেকে প্রতিদিন বানিয়াচং হাসপাতালের জরুরী বিভাগে সাধারণ রোগী এবং ভর্তিরোগী সবার কাছ থেকেই ১০ টাকা ফিস নেয়া হচ্ছে। তিনি টিএইচও ডাক্তার শামীমা আক্তার এর আমলে বানিয়াচং হাসপাতালে জরুরী বিভাগে নিয়ম বহির্ভূতভাবে সাধারণ রোগীদের কাছ থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা আদায়ের ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচারের দাবী জানিয়েছেন। তোফাজ্জ¦ল মিয়ার মত আরো অনেক রোগীর কাছ থেকে এমন অভিযোগ পাওয়া যায়। আওয়ামীলীগ নেতা এডভোকেট মুর্শেদুজ্জামান লুকু জানান, তিনি গত সোমবার অসুস্থতাবোধ করায় বানিয়াচং হাসপাতালের জরুরী বিভাগে চিকিৎসা নিতে গিয়েছিলেন। তার কাছ থেকেও ১০ টাকা নিয়ে প্রেসক্রিপশন দিয়ে কর্তব্যরত ডাক্তার সাধারণ রোগী হিসেবে তাকে বাড়ী পাঠিয়ে দেন। বানিয়াচং মডেল প্রেসক্লাবের কোষাধ্যক্ষ এবং বড়বাজার ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির ক্রীড়া ও দপ্তর সম্পাদক শেখ মোঃ আলমগীর মিয়া জানান, তার নিকটাত্মীয় আনোয়ারা বেগমকে নিয়ে জরুরী বিভাগে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যান। আনোয়ারা বেগমকে ডাক্তার দেখে ভর্তি না করে প্রেসক্রিপশন দিয়ে বাড়ীতে পাঠিয়ে দেন। কিন্তু ভর্তি না করলেও ১০ টাকা ফিস নেয়া হয়। তিনি আক্ষেপ করে আরো জানান, এভাবে সাধারণ রোগী হিসেবে শুধুু আমার আত্মীয় আনোয়ারা বেগমের কাছ থেকেই ১০ টাকা নেয়া হয়নি। ওই দিন আমার সামন থেকেই কমপক্ষে ১৫ থেকে ২০ জন সাধারণ রোগীর কাছ থেকে ৫ টাকার পরিবর্তে ১০ টাকা করে ফিস নেয়া হয়েছে। এ দৃশ্য শুধু এক দিনের নয়। এটা প্রতিদিনের চিত্র। সাধারণ রোগীদের কাছ থেকে গণহারে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগের প্রেক্ষিতে বানিয়াচং হাসপাতালের জরুরী বিভাগে গিয়ে দেখা যায়, সাধারণ রোগীর রেজিঃ ফি এবং ভর্তি রোগীর ফি সম্বলিত একটি স্টীকার দেয়ালে সাঁটানো থাকলেও ওই স্টীকারে টাকার পরিমান উল্লেখ থাকা অংশটি অন্য আরেকটি ফেস্টুন দিয়ে ঢেকে রাখা হয়েছে। এ ব্যাপারে ইউএইচ এন্ড এফপিও ডাঃ শামীমা আক্তার এর নিকট জানতে চাইলে তিনি অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, রোগীদের কাছ থেকে সরকারি নিয়মেই অর্থ নেয়া হচ্ছে। অর্থ আদায়ের নিয়ম সংক্রান্ত স্টীকারে টাকার পরিমানের অংশ ঢেকে রাখার বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, এটা যদি কেউ করে থাকে সেটা অন্যায়; এ ব্যাপারে জরুরী বিভাগে দায়িত্বরত যিনি আছেন তাকে শোকজ করা হবে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com