রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:৩২ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
সাতছড়ি উদ্যান পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব লাখাই উপজেলার কৃষ্ণপুর গণহত্যা দিবস পালিত শিবপাশা নবদম্পতির আত্মহত্যার চেষ্টা আজমিরীগঞ্জের কাকাইলছেও ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রের নার্স ও সহকারীর বিরুদ্ধে এন্তার অভিযোগ দূর্গাপূজা উপলক্ষ্যে নতুন শাড়ি ও মাস্ক বিতরণ করেছেন গিরেন্দ্র চন্দ্র রায় চুনারুঘাট উপজেলা যুবলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত নবীগঞ্জে সিএনজি চোর চক্রের সদস্য গ্রেফতার ॥ সিএনজি ফিরিয়ে দেয়ার নামে ১ লাখ টাকাও হাতিয়ে নেয় নবীগঞ্জ প্রেসক্লাবের কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় সাংবাদিক সরওয়ার ও মুজিবের উপর মিথ্যা মামলা দায়েরে নিন্দা হবিগঞ্জে ৯/১১ ব্যাচের বন্ধুদের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে মিলন মেলা বিএনপির মতবিনিময় সভায় জিকে গউছ ॥ মানুষের ভোটাধিকার ছিনতাই করে আ.লীগ গণতন্ত্র ধ্বংস করেছে

বর্বরতা ॥ লুকড়া গ্রামের ৩০টি পরিবার ৫ মাস ধরে সমাজচ্যুত

  • আপডেট টাইম বৃহস্পতিবার, ৫ আগস্ট, ২০২১
  • ৫২ বা পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ সদর উপজেলার লুকড়া গ্রামের প্রায় ৩০টি পরিবার প্রায় ৫ মাস ধরে সমাজচ্যুত অবস্থায় দিনযাপন করছে। লুকড়া গ্রামের কথিপয় মাতব্বর গ্রামে বৈঠক করে সিদ্ধান্ত ও মাইকিং করে এ সমাজচ্যুত করার ঘোষণা দেন। ওই পরিবারের সদস্যরা গ্রামের হাটে-বাজারে, রাস্তা-ঘাটে চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারী করা হয়েছে। বাধা দেয়া হচ্ছে জমি চাষাবাদে। কাপড়ের দোকানসহ ৩টি দোকান ৫ মাস ধরে বন্ধ। খুলতে দেয়া হচ্ছে না। ওই দোকানে রক্ষিত প্রায় ২০ লাখ টাকার মালামালের কি অবস্থায় আছে তাও দোকান মালিকরা বলতে পারছেন না। এর প্রতিকার এবং ক্ষতিপুর দাবী করে জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, হবিগঞ্জ সদর মডেল থানা, মানবাধিকার কমিশনসহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত আবেদন জানানো হয়েছে। লুকড়া গ্রামের মরহুম হাজী আব্দুল জব্বারের পুত্র ব্যবসায়ী মোঃ জালাল উদ্দিন গতকাল হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলনে এসব তথ্য তুলে ধরেন।
লিখিত বক্তব্য ও সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে মোঃ জালাল উদ্দিন বলেন, লুকড়া গ্রামের মৃত ছদ্দর আলীর পুত্র জুলমত আলী, মৃত শান উল্লার পুত্র মোঃ শুকুর আলী, মৃত অছিদ উল্লার পুত্র রফিক আলী, মৃত মর্তুজ আলীর পুত্র মোঃ আব্দুর রহমান, মৃত সৈয়দ আলীর পুত্র মোঃ জয়াদ আলী, মোঃ আকবর হোসেন বাচ্চুর পুত্র মোঃ আব্দুস শহীদ, মৃত আক্রাম আলীর পুত্র মোঃ আব্দুল আলী, মৃত আহছান আলীর পুত্র মোঃ জবরু মিয়া, মৃত আমির উদ্দিনের পুত্র মোঃ জালাল উদ্দিন ও মৃত নুরুল মিয়ার পুত্র মোঃ নজরুল এর সাথে তাদের (জালাল উদ্দিনের) পৈত্রিক সম্পত্তি নিয়ে বিরোধ সৃষ্টি হয়। তাদের পৈত্রিক সম্পত্তি তারা যুগ যুগ ধরে ভোগদখল করে আসছেন। কিন্তু ইদানিং উল্লেখিত ব্যক্তিদের সাথে ওই ভূমি নিয়ে বিরোধ সৃষ্টি হলে তিনি এলাকার মুরুব্বীদের স্মরনাপন্ন হন।
উক্ত বিষয় নিয়ে গত ১৩ মার্চ লুকড়া ইউনিয়ন অফিস প্রাঙ্গনে বার পঞ্চায়েত কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব মোঃ রহিছ মিয়ার সভাপতিত্বে সালিশ অনুষ্ঠিত হয়। সালিশে কাগজপত্র পর্যালোচনা করে ওই ভূমির মালিক জালাল উদ্দিন বলে রায় ঘোষণা করা হয়। জুলমত আলী গংরা রায় মেনে নিলেও পরদিন ১৪ মার্চ রায় অমান্য করে জুলমত আলীসহ উল্লেখিতরা গ্রামে বৈঠক করে জালাল উদ্দিন ও তার আত্মীয় স্বজনকে সমাজচ্যুত ঘোষণা করে। তাদের সাথে গ্রামের কোন লোকজন চলাফেরায় নিষেধাজ্ঞা জারী করা হয়। মাইকিং করে তাদের সমাজচ্যুত করার বিষয়টি জানিয়ে দেয়া হয়। এরপর থেকে প্রায় ৫ মাস যাবত জালাল ও তার আত্মীয় প্রায় ৩০টি পরিবার স্বাভাবিকভাবে চলাফেরা করতে পারছেন না। জালাল প্রায় ৫ মাস ধরে গ্রাম ছাড়া। সংবাদ সম্মেলনে জালাল উদ্দিন আরও অভিযোগ করেন, জুলমত আলী গংদের হুমকি ধামকির কারণে গৃহপালিত পশু, ফসলি জমির ধান কাটা কিংবা চাষ করতে পারছেন না। এমনকি লুকড়া বাজারে জালাল উদ্দিনের ভাইয়ের ১টি কাপড়ের দোকান, ১টি মুদিমালের দোকান এবং ১টি গ্যাস সিলিন্ডারের দোকানও খুলতে পারছেন না। ৫ মাস ধরে তারা দোকানের ধারে কাছেও যেতে পারছেন না। ওই দোকান গুলোতে প্রায় ২০ লক্ষাধিক টাকার মালামাল কোন অবস্থায় আছে, এমনকি আদৌ দোকানে কোন মালামাল আছে কি না তাও তারা বলতে পারছেন না। ওই দোকানের বিপরীতে ব্যাংক ও এনজিও ঋণ রয়েছে। তাদের দেখলেই জুলমত আলী ও তার দলবল তাদের উপর হামলা করে তাড়িয়ে দেয়। তারা সার্বক্ষনিক দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ঘুরাফেরা করে। এ ব্যাপারে তিনি সদর থানায় অভিযোগ করেও কোন প্রতিকার পাননি। পুলিশের পক্ষ থেকে জুলমত আলী গংদের এসব অবৈধ কর্মকান্ড থেকে বিরত থাকার নির্দেশনা দেয়া হয়। কিন্তু তারা ক্ষান্ত হয়নি। কিছুদিন পূর্বে জালালের আত্মীয় জমি চাষাবাদের জন্য হালের মেশিন নিলে রাতের আধারে ওই মেশিন নদীর গভীর পানিতে ফেলে দেয়া হয়। পরদিন অনেক খোজাখুজি করে করে পানির নীচে মেশিনের সন্ধান পান। গত ৩ আগষ্ট মঙ্গলবার জালাল উদ্দিনের আত্মীয় স্বজন জমিতে হাল চাষ করতে গেলে জুলমত গংরা বাধা প্রদান করেন। তাাদের হালের মেশিন জমি থেকে তুলে দেয়া হয়।
এমন পরিস্থিতিতে জালাল উদ্দিন ও তার আত্মীয় পরিজন মানবেতর জীবন যাপন করছেন। তিনি দীর্ঘদিন ধরে বাড়ি ছেড়ে শহরে বসবাস করছেন। রাতের আধারে বাড়ি গেলেও রাতের আধারেই আবার চলে আসেন। তাকে মেরে ফেলার জন্য জুলমত গংরা বিভিন্ন ফন্দি করছেন বলে তিনি সাংবাদিক সম্মেলনে জানান।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com