বুধবার, ০৮ এপ্রিল ২০২০, ০৫:১৬ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
হবিগঞ্জ শহরে একটি মার্কেটের ভাড়া মওকুফ করলেন কাতার প্রবাসি মাসুক চুনারুঘাটের আমুরোড বাজারে সেনাবাহিনী ও প্রশাসনের যৌথ অভিযান ॥ ৪টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে সাড়ে ৪’হাজার টাকা জরিমানা হবিগঞ্জ জেলা পরিষদের উদ্যোগে মঙ্গলরবার মাধবপুরে শ্রমজীবী মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ ডাঃ ফাতেমা খানম হবিগঞ্জ সীমান্তে কঠোর নিরাপত্তার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর মাধবপুরে বেসকারী হাসপাতালের চিকিৎকদের পিপিই দিলেন ডাঃ মুশফিক চৌধুরী নবীগঞ্জে সংবাদপত্র হকারদের মধ্যে ত্রান বিতরন করেছেন সাবেক এমপি মুনিম চৌধুরী বাবু চুনারুঘাটে গ্রামীণ উন্নয়ন ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে কর্মহীনদের মাঝে আর্থিক সহায়তা দরিদ্রদের মাঝে রোটারি ক্লাব অব শ্রীমঙ্গলের ত্রাণ বিতরণ করোনা সন্দেহে চুনারুঘাটে ২৫ জনের নমুনা আইইডিসিআরে প্রেরন
৯০ দিনের মধ্যে ভাঙা হচ্ছে বিজিএমইএ ভবন

৯০ দিনের মধ্যে ভাঙা হচ্ছে বিজিএমইএ ভবন

এক্সপ্রেস ডেস্ক ॥ আধুনিক ও বিশেষ ব্যবস্থায় ভেঙে ফেলা হবে বিজিএমইএ ভবন। এই ভবন ভাঙার জন্য সকল প্রয়োজনীয় প্রাক প্রক্রিয়া সম্পন্ন করছে রাজউক। গৃহায়ন ও গণপূর্ত মনন্ত্রণালয় থেকে এই ব্যাপারে নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে।
গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন জানান, আমরা ৯০ দিন অপেক্ষা করবো। এই সময়ে মধ্যে ভবনটি ভাঙা শুরু না করলে ৯০ দিন পরেই এ ব্যাপারে ব্যাবস্থা নেবে রাজউক। আর সময় দেওয়া হবে না। এই সময়ের মধ্যে বিজিএমইএ না ভাঙলে আমরাই ভেঙে দেব।
এদিকে সূত্র জানায়, মন্ত্রণালয় এটা বলেছে বিজিএমইএ যদি ভবন নির্ধারিত সময়ে না ভাঙে সেই ক্ষেত্রে রাজউককে সব প্রস্তুতি রাখতে হবে। আর সব ধরণের ব্যবস্থাও নিতে হবে। এই জন্য সবচেয়ে বড় হচ্ছে, এই ভবন ভাঙার সময় যাতে আশে পাশের কোন ক্ষয় ক্ষতি না হয় সেটাও লক্ষ্য রাখতে হবে। কোন প্রাণহানি যাতে না হয় তাও দেখতে হবে। এছাড়াও ওই ভবনে যাদের অফিস ও মালামাল রয়েছে তাও যাতে সরিয়ে নিতে পারে সেই ব্যবস্থাও নিশ্চিত করতে হবে। এই জন্য সময় দেওয়া হবে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে মালামাল না সরালে দ্বিতীয়বার কোন সুযোগ দেওয়া হবে না। সূত্র জানায়, ভবন ভাঙ্গার সময় যেদিকগুলো বিশেষভাবে খেয়াল রাখতেহবে এরমধ্যে প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হেটেল। এটি ভবনটির সবচেয়ে কাছের স্থাপনা। সেখানে বিদেশী অতিথি থাকে প্রতিদিন। সেই সঙ্গে বিজিএমইএ ভবনের আশে পাশের এলাকায় যারা বসবাস করে তাদেরও যাতে কোন ধরনের সমস্যা না হয় সেই বিষয়টি লক্ষ্য রাখার জন্য বলা হয়েছে। গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সূত্র জানায়, বিজিএমইএ কর্তৃপক্ষ ওই অবৈধ ভবনটি তারা রক্ষা করতে চায়। এই জন্য তারা নানা রকমের বাহানা খুঁজছে। বিভিন্ন ভাবে প্রভাব খাটানোরও চেষ্টা করছে। এছাড়াও তারাইতো আইনীভাবে লড়াই করেছে। কিন্তু আইনতো তাদের অনুকূলে নয়। এই কারণে তারা সুবিধা করতে পারবে না।
গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশরারফ হোসেন জানান, বিজিএমইএ ভবন কিভাবে ভাঙ্গা হবে সেই বিষয়টি আমরা পর্যালোচনা করেছি। আর সেটা পর্যালোচনা করে দেখা গেছে এটাকে বিশেষ ব্যবস্থায় ভাঙ্গতে হবে। সেই বিশেষ ব্যবস্থাটি কি হবে সেই বিষয়ে আমরা বিবেচনা করেছি। আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি বিশেষ ব্যবস্থায়ও সেটি ভাঙ্গা হবে। বিজিএমইএ কে সব খরচও আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী ভবন করতে হবে। রাজউকের ঊধ্বর্তন সূত্র জানায়, বিজিএমইএ ভবন ভেঙে ফেলার বিষয়ে হাইকোর্টের রায় সুপ্রিম কোর্টে বহাল থাকার কারণে এটি ভাঙ্গতে কোন আইনী বাঁধা নেই। তবে যেহেতু আইন অনুযায়ী রিভিউ করার সুযোগ ছিল। তা রয়েছে বলে বিজিএমইএ মনে করছে শেষ লড়াইটা করবে। সেই জন্য তারা রিভিউর সিদ্ধান্তর অপেক্ষা করছে।
বিজিএমইএ সূত্র জানায়, তারা রিভিউর ব্যাপারে কি আদেশ আসবে সেই জন্য অপেক্ষা করছে। আইন অনুযায়ী তারাও ব্যবস্থা নিবে। তারাও আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল বলেও জানান।
গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় সূত্র বলছে, তারা আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হলে এতোদিনে ভাঙ্গার কাজটি শুরু করতো। কারণ রায় অনুযায়ী ৯০ দিনের মধ্যে বিজিএমইএ কর্তৃপক্ষকে ভবনটি ভেঙ্গে ফেলতে হবে। আমরা আশা করি তারা এই ভবনটি নিজেরাই ভাঙ্গবে। তারা না ভাঙ্গলে সরকারই ভাঙ্গবে। এই কাজটি করার জন্য বিভিন্ন দিক খেয়াল রাখা হবে। এর আগে র‌্যাঙ্গস ভবন ভাঙ্গা হয়েছে। ওই ভবন ভাঙ্গা সময়ে বেশ কয়েকজন প্রাণ হারাণ। ওই ঘটনার পর অতন্ত সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেওয়ার কথা ভাবা হচ্ছে। যাতে করে বিজিএমইএ ভবন ভাঙ্গার সময়ে কোন মানুষের ক্ষয়ক্ষতি না হয়। কারো প্রাণ না যায়। ক্ষয়ক্ষতি যাতে না হয় সেটা করার জন্য অবশ্যই আধুনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। সেটা করা হচ্ছে। সূত্র জানায়, দীর্ঘ ছয় বছরের বেশি সময় ধরে বিষয়টি ঝুলে আছে। কারণ ২০১১ সালে জলধার আইন লঙ্ঘন করার অভিযোগে ওই ভবন ভাঙ্গার জন্য হাইকোর্ট নির্দেশ দিয়েছিলো। ওই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করে বিজিএমইএ। আপিল বিভাগ তাদের আপিল খারিজ করে দেয়।
সূত্র আরও জানায়, ইতোমধ্যে ১৮ তলা ভবনটি ভাঙ্গার ব্যাপারে যে আদেশ দিয়েছিলো আপিল বিভাগ, সেই রায়ও প্রকাশ হয়েছে। সেখানে ওই ভবনটিকে বিজিএমইএ এর নিজস্ব খরচে অবিলম্বে ভাঙ্গার জন্য নির্দেশ দিয়েছে আদালত। বিজিএমইএ যদি ওই ভবন না ভাঙ্গে কিংবা ওই আদেশ পালনে তারা ব্যর্থ হলে ওই রায় প্রকাশের ৯০ দিনের মধ্যে রাহউককে ওই ভবন ভাঙ্গার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
সূত্র জানায়, বিজিএমইএ কে ভবন ভাঙ্গার জন্য প্রয়োজনীয় সব খরচ দিতে হবে। তারা না দিলে এটা সরকার ভেঙে দিবে। খরচ বিজিএমইএ কর্তৃপক্ষর কাছ থেকে আদায় করা হবে। এর ব্যতয়ের কোন সুযোগ নেই। এখন তারা রিভিউর কথা বলছে। কিন্তু হাইকোর্ট ও আপিলবিভাগে যেহেতু একই রায় এসেছে। তাই আমরা মনে করি এতে করে বিজিএমইএ কেবল সময়ক্ষেপন করার চেষ্টা করছে।
রাজউকের সূত্র জানায়, ওই ভবনটি অনুমোদনবিহীন হওয়ার কারণে সেটি রাখার কোন সুযোগ নেই। একটি অবৈধ ভবন ভেঙ্গে আইনের প্রতি মানুষকে শ্রদ্ধাশীল করতে হবে। এছাড়াও ওই ভবনটি ভাঙ্গার পর সেখানে বেগুনবাড়ি ও হাতিরঝিল প্রকল্পের যে অংশের কাজ হওয়ার কথা সেটি বাস্তবায়ন করা হবে। আদালতের আদেশে সেটাও বলা আছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com