বৃহস্পতিবার, ০৪ Jun ২০২০, ০৭:১৮ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নিঃশ্বাস কথা বলবে!

নিঃশ্বাস কথা বলবে!

এক্সপ্রেস ডেস্ক ॥ এবার নিঃশ্বাস কথা বলবে। বাক্যহীনদের মুখে ফুটবে কথা। ভারতের এক তরুণ বিজ্ঞানী শ্বাস-প্রশ্বাসকে কাজে লাগিয়ে উদ্ভাবন করেছেন ‘টক’ অর্থাৎ কথা নামে একটি যন্ত্র। বয়স বছর ১৬। স্কুলের পড়াশোনা, খেলাধুলার ফাঁকেই চলেছে তার বিজ্ঞান চর্চা। কোনো দিন স্বপ্নেও ভাবেনি, সখের বিজ্ঞানচর্চাই তাকে এনে দেবে আন্তর্জাতিক সম্মান। তার আবিষ্কার বিস্মিত করে দেবে বিশ্বের নামজাদা চিকিৎসা বিজ্ঞানীদের। ভারতীয় এই খুদে বিজ্ঞানীর আবিষ্কৃত যন্ত্রের সাহায্যে কম খরচেই কথা বলতে পারবেন লকড-ইন-সিনড্রম অর্থাৎ গলা বা মুখমন্ডলে পক্ষাঘাতের ফলে বাকশক্তি হারানো ব্যক্তিরা। তাও একেবারে স্বাভাবিক শ্বাস-প্রশ্বাসের সাহায্যে। ভারতের হরিয়ানা রাজ্যের পানিপথের বাসিন্দা এই তরুণ বিজ্ঞানীর নাম আর্শ শাহ দিলবাগি। পানিপথের ডিএভি ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের ছাত্র। ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে বিজ্ঞানে উৎসাহ বাড়াতে প্রতি বছরই গুগল একটি আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। গুগল’স সায়েন্স ফেয়ার নামক এই প্রতিযোগিতায় অংশ নেয় বিশ্বজুড়ে তেরো থেকে আঠারো বছর বয়সি ছাত্র-ছাত্রীরা। এ বছর বিশ্বের কয়েক হাজার ছাত্র-ছাত্রীদের সঙ্গেই গুগল-এর ওই বিজ্ঞান প্রতিযোগিতায় প্রথমবার অংশ নেয় আর্শ। প্রথমবারেই বাজিমাত। প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত বাছাই পর্বে এশিয়া থেকে একমাত্র জায়গা করে নেয় আর্শ। কীভাবে কাজ করবে ‘টক’। আর্শ জানিয়েছে, এই যন্ত্রে থাকছে একটি সেন্সর। লকড-ইন-সিনড্রোম আক্রান্ত মানুষ মনের ভাব প্রকাশ করতে চাইলে, তার শ্বাস-প্রশ্বাস থেকে সিগনাল পড়ে নেবে সেন্সরটি। এর পর ওই সিগনাল কথায় রূপান্তরিত হবে। একটি মাইক্রোফোনের সাহায্যে সেই কথা শোনা যাবে। ফলে মনের ভাব প্রকাশ করতে বাকশক্তি হারানো ব্যক্তিকে কোনো রকম কসরতই করতে হবে না। স্বাভাবিক শ্বাস-প্রশ্বাস নিলেই হবে। ‘টক’ ওই শ্বাস-প্রশ্বাসকে কথায় রূপান্তরিত করে দেবে। মোটর নিউরো ডিজেবিলিটির ফলে বাকশক্তি হারানো ব্যক্তিরা মনের ভাব প্রকাশের জন্য সাধারণত যে অগমেন্টেটিভ অ্যান্ড অলটারনেটিভ কমিউনিকেশন (এএসি) ডিভাইস ব্যবহার করে থাকেন, সেগুলো থেকে ‘টক’ অনেক বেশি কার্যকরী বলেই দাবি আর্শের।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com