মঙ্গলবার, ১৮ মে ২০২১, ১০:২২ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জে ভিজিএফ’র ২ লাখ টাকা ছিনতাইকারী মনির পুলিশের খাচাঁয় শহরতলীর কাকিয়ারআব্দায় গাইড ওয়াল নির্মাণ ॥ ফুসে উঠেছে এলাকাবাসী মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় এগিয়ে যাচ্ছে দেশ-এমপি আবু জাহির নিউইয়র্কে নবীগঞ্জের সন্তান পুলিশ সুপার আব্দুল ওয়াহাবকে সংবর্ধনা নবীগঞ্জের জহুরপুরে সংঘর্ষের ঘটনায় মামলা ॥ অভিযুক্ত আবু সামা গ্রেপ্তার মাধবপুরে পুলিশের পৃথক অভিযানে গাঁজা ও বিয়ার সহ ৪ জন আটক নবীগঞ্জ প্রেসক্লাবের কার্য নির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত নবীগঞ্জে অপহরণ ও ধর্ষণ মামলার আসামী আসিফ ৪ মাস পর গ্রেফতার নবীগঞ্জে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধু’র মৃত্যুর ঘটনায় মামলা ॥ স্বামী গ্রেফতার নবীগঞ্জের করাগাও গ্রামের যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী সমাজসেবক আব্দুল হাকিমের ইন্তেকাল ॥ বিভিন্ন মহলের শোক
হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন ॥ চিড়াকান্দির ঘটনাটি সাম্প্রদায়িক নয় মিথ্যাচার করছেন সুশান্ত দাশ গুপ্ত

হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন ॥ চিড়াকান্দির ঘটনাটি সাম্প্রদায়িক নয় মিথ্যাচার করছেন সুশান্ত দাশ গুপ্ত

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ শহরের চিড়াকান্দি এলাকার সৃষ্ট ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা সৃষ্টির পায়তারা করছেন আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার সম্পাদক সুশান্ত দাশ গুপ্ত। শুধু তাই নয়, বিছিন্ন একটি ঘটনাকে সংখ্যালগু সম্প্রদায়ের উপর হামলা বলে তার প্রকাশিত দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার মাধ্যমে মিথ্যাচার করেছেন এমন অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে।
গতকাল ২ মে রবিবার বিকাল ৩টায় হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবে ছাত্র-যুব ও সুশীল সমাজ আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বিপ্লব রায় চৌধুরী।
তিনি বলেন, গত ১৯ এপ্রিল ‘দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’ পত্রিকার মিথ্যাচারের প্রতিবাদে শহরে ছাত্র, যুব ও সুশীল সমাজের ব্যানারে শান্তিপূর্ণ মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়। মানববন্ধন চলাকালে সুশান্ত দাশ চিড়াকান্দি এলাকায় তার শশুরালয়ে অবস্থান করে ফেসবুকে উস্কানিমূলক স্ট্যাটাস দিয়ে জনগণকে তার বাসার দিকে যাবার আহ্বান করেন। মানববন্ধন শেষে কেউ কেউ চিড়াকান্দি এলাকা দিয়ে নিজেদের বাসায় ফেরার পথে পূর্ব থেকে উৎপেতে থাকা সুশান্ত ও তার লোকজন তাদের ধাওয়া করে। খবর পেয়ে মানববন্ধনে আসা কিছু লোক ক্ষুব্দ হয়ে উঠে চিড়াকান্দি এলাকায় যান প্রতিবাদ জানাতে। কিন্তু আগে থেকেই শ্বশুরের বাসা মঞ্জুরী ভবনের ছাদে অবস্থানরত সুশান্ত ক্ষুব্দ লোকজনকে উদ্দেশ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও গুলিবর্ষণ করেন। এতে এলাকাবাসীর কয়েকজন আহত হলে আরও বিক্ষুব্দ হয়ে উঠেন উপস্থিত লোকজন। খবর পেয়ে হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আতাউর রহমান সেলিম ও পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু মেয়র সেলিমকে দেখেই ফেসবুক লাইভে এসে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজসহ হাতে থাকা বন্দুক থেকে গুলি করেন সুশান্ত। পরবর্তীতে ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে ফেসবুক লাইভ ভিডিওটি তিনি ডিলিট করে দেন।
সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, গত ১৯ এপ্রিল তার পত্রিকা অফিস কিংবা শশুরালয়ে সুশীল সমাজের কেউ হামলা বা ভাংচুর করেনি। কিন্তু পরবর্তীতে সুশান্ত এ ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে নিজের লোক দিয়েই ভাংচুর করে ফেসবুকে প্রচার করছেন। তার শশুর একজন সংখ্যালগু বিধায় পরিকল্পিতভাবে হামলা চালানো হয়েছে। কিন্তু ওইদিনের ঘটনাটি কোনোভাবেই সাম্প্রদায়িক বিরোধের জন্য ঘটেনি। কারণ এটি হিন্দু-মুসলিমের কোনো বিরোধ ছিলো না। সম্পূর্ণ উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে এবং এলাকার আইন-শৃংখলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটাতেই সুশান্ত তার লোকজন নিয়ে এই অপচেষ্টা করেন।
সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরোও বলেন, হবিগঞ্জ শহর হল শান্তিপ্রিয় ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির শহর। দীর্ঘদিন ধরেই হবিগঞ্জ শহরে হিন্দু-মুসলিম সম্প্রদায়ের লোকজন পাশাপাশি বসবাস করে আসছেন। এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও আলহাজ্ব এডভোকেট মোঃ আবু জাহির এমপি ¯’ানীয় ব্যবসায়ী, রাজনীতিবিদ এবং সুশীল সমাজকে সাথে নিয়ে সব সময় সচেষ্ট আছেন বিধায় কোনো সময়ই সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট হয়নি। কিন্তু সুশান্ত তার ব্যক্তি কেন্দ্রিক ঘটনাকে সাম্প্রদায়িক হামলা বলে ফেসবুক ও তার পত্রিকায় মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করে জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করছেন। যা আদৌ সত্য নয়।
পরবর্তী ওই ঘটনায় বেশ কয়েকজন সনাতন সম্প্রদায়ের লোককে আসামি করে তিনি মামলা দায়ের করেছেন। যাদেরকে মামলায় আসামি করা হয়েছে তারা এলাকার উন্নয়নসহ বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ডে সব সময়ই সক্রিয় থাকেন। এমন পরিস্থিতিতে সুশান্তের কাছে থাকা আগ্নেয়াস্ত্রটি উদ্ধারসহ তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানানো হয়। সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মাঝে উপস্থিত ছিলেন, ৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র গৌতম কুমার রায়, ৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর পান্না কুমার শীল, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বিপুল রায় ও স্বপন কুমার মজুমদার, পূজা উদযাপন পরিষদের সদস্য সজল রায়, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক বিপ্লব রায় সুজন, পেশাজীবি পরিষদের সভাপতি ডা. পিন্টু আচার্য্য, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য শ্যামল কান্তি দাশ, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ পৌর শাখার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শান্তনু দাশ অলক, সাংগঠনিক সম্পাদক কৌশিক আচার্য্য পায়েল, পেশাজীবি পরিষদের সদস্য শেফাল বণিক, এডঃ সুবল গোপ, এসডি সুমন প্রমুখ।

 

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com