মঙ্গলবার, ১১ মে ২০২১, ১২:৫৬ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
আজ পবিত্র শব-ই-কদর নয় সহশ্রাধিক মানুষের মাঝে সরকারি সহায়তা বিতরণে এমপি আবু জাহির নবীগঞ্জে জাহির হত্যার মামলা ॥ ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে আসামীদের গোপন বৈঠক ‘হৃদ্যতা হবিগঞ্জ’র দরিদ্রদের মাঝে অর্থ সহায়তা বিতরণ শহরের শায়েস্তানগরে তুচ্ছ ঘটনায় যুবককে ছুরিকাঘাত নবীগঞ্জ উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পদক উজ্জ্বল সরদারকে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা উপ কমিটির সদস্য মনোনীত নবীগঞ্জের বিশিষ্ট মুরুব্বী ওয়াহিদ চৌধুরী আর নেই সুশীল সমাজ, এতিম ও শিক্ষার্থীদের সম্মানে নবীগঞ্জ প্রেসক্লাবের উদ্যোগে ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত আজমিরীগঞ্জে ছুরিকাঘাতে নাড়ি-ভুড়ি বের হয়ে গেছে নবীগঞ্জে নুরানী মার্কেটে মহিলা ক্রেতাকে মারধোর ও শ্লীলতাহানির অভিযোগ ॥ এলাকায় উত্তেজনা
ধর্ষণকারী আরেক লম্পটের আদালতে স্বীকারোক্তি

ধর্ষণকারী আরেক লম্পটের আদালতে স্বীকারোক্তি

স্টাফ রিপোর্টার ॥ গণ ধর্ষণের ঘটনা ঘটার মাত্র ১২ ঘন্টার মধ্যে দুই ধর্ষককে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে পুলিশ। সেইা সাথে ধর্ষণের মূল রহস্য উদঘাটন করেছে হবিগঞ্জ সদর থানা পুলিশ। জানা যায়, সম্প্রতি হবিগঞ্জ শহরের কামড়াপুর থেকে সিএনজি অটোরিক্সায় তুলে নিয়ে প্রাণকোম্পানীর এক কিশোরী শ্রমিককে গণধর্ষনের স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্ধী দিয়েছে আটক সোহেল রানা (২২)। সদর থানার ওসি মোঃ মাসুক আলী জানান, মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কোর্ট ষ্টেশন পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক গোলাম কিবরিয়া হাসান ঘটনা ঘটার মাত্র ১২ ঘন্টার মধ্যে অভিযুক্ত দুই লম্পটকে গ্রেফতার করেন। এর মধ্যে বৃহস্পতিবার ও গতকাল শুক্রবার বিকেলে দুই লম্পট আদালতে স্মীকারোক্তিমূল জবানবন্দী দিয়েছে। গতকাল বিকেলে গ্রেফতারকৃত সোহেল রানাকে আদালতে পাঠালে সে ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে ১৬৪ ধারায় জবানবন্ধীতে ঘটনার পুরো বর্ণনা দেয়। এবং তার সাথে যারা জড়িত তাদের নাম প্রকাশ করে। পরে তাকে আদালত কারাগারে প্রেরন করেন। সে উপজেলার আশেঢ়া গ্রামের বায়জীদ মহুরীর পুত্র। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার তার বাড়ী থেকে সোহেল রানাকে আটক করা হয়।
প্রসঙ্গত, গত ২৭ আগস্ট সন্ধ্যায় বানিয়াচঙ্গ উপজেলার বাল্লা গাজীপুর গ্রামের তঞ্জু মিয়ার সপ্তদর্শী কন্যা অলিপুর প্রাণকোম্পানীর নারী শ্রমিককে কামড়াপুর ব্রীজ থেকে কর্মস্থলে পৌছানোর কথা বলে মিটুরচক গ্রামের আব্দুস সামাদের পুত্র সিএনজি চালক আব্দুর রশিদ ও তার সহযোগী সোহেল রানা গাড়িতে তুলে নিয়ে রাস্তার পাশে পালাক্রমে ধর্ষন করে। এ সময় টহলরত পুলিশ আব্দুর রশিদকে আটক করলেও তার সহযোগী পালিয়ে যায়।
পরে ধর্ষিতাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করে পুলিশ। এ ঘটনায় তঞ্জু মিয়া বাদী হয়ে সদর থানার একটি মামলা দায়ের করে। গত বৃহস্পতিবার আব্দুর রশিদ এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দী দেয়।
এদিকে, ভিকটিমের অবস্থা আশঙ্কাজনক হলে সে সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। আজ শনিবার তার আদালতে জবানবন্দী দেবার কথা রয়েছে।
ওসি মাসুক আলী আরও জানান, অভিযুক্ত দু’জনই আদালতে স্বীকারোক্তি দিয়েছে। মামলাটির মূল রহস্য উদঘাটন করতে পুলিশ সক্ষম হয়েছে। মামলাটির তদন্ত করছেন কোর্ট ষ্টেশন পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক গোলাম কিবরিয়া হাসান। বাকী বিচার আদালত করবেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com