রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৫:৪০ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
হবিগঞ্জে স্কুল ব্যাংকিং কনফারেন্স অনুষ্ঠিত ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতি’র নির্বাচন ॥ শামছুল হুদা-আলমগীর প্যানেলের নিঙ্কুশ বিজয় নবীগঞ্জের ঘোলডোবা এম সি উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি বিলুপ্ত মাধবপুরে দোকান থেকে ১১ বস্তা ভিজিডির চাল জব্দ যুক্তরাষ্ট্রে জ্বালানি ব্যবহারে গ্যাসের ভূমিকা শীর্ষক কনফারেন্সে এমপি আবু জাহির শহরের পুরাতন খোয়াই নদীতে ২৫০টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ সামাজিক সংগঠন ‘বন্ধু মেলা’ এর আহ্বায়ক কমিটি গঠন মাধবপুরে দু’মাদক পাচারকারীকে ভ্রাম্যমান আদালতের কারাদন্ড অসাধু বিদ্যুৎ কর্মচারীদের সহযোগিতায় শহরের অর্ধশতাধিক অবৈধ টমটম গ্যারেজ নবীগঞ্জে বিয়ের প্রস্তাবে সম্মতি না দেয়ায় দুই বোনকে পিঠিয়ে আহত
হবিগঞ্জ-লাখাই-নাছিরনগর সড়ক উন্নয়নে ঠিকাদারের হেয়ালিপনা

হবিগঞ্জ-লাখাই-নাছিরনগর সড়ক উন্নয়নে ঠিকাদারের হেয়ালিপনা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ-লাখাই-সরাইল-নাছিরনগর সড়কের উন্নয়ন কাজ বন্ধ রাখায় রাস্তার বিভিন্ন স্থান ভেঙ্গে গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। দফায় দফায় কাজ ফেলে চলে যাচ্ছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। বিভিন্ন স্থানে ভেঙ্গেচুরে ফেলে রাখা হয়েছে। এক বছরেরও অধিক সময় ধরে এমন অবস্থায় পড়ে আছে সড়কটি। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের এমন হেয়ালিপনায় এ সড়কে চলাচলকারী ৩টি জেলার লক্ষাধিক মানুষকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। ওয়ার্ক অর্ডার পাওয়ার প্রায় এক বছর পর কাজ শুরু করলেও যেকোন সময় তারা এটি ফেলে রেখে চলে যেতে পারে বলে আশংকা করছেন স্থানীয়রা। তারা রাস্তাটি দ্রুত সংস্কারের দাবি জানিয়েছেন। তবে এবার কাজ ফেলে গেলে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার আশ^াস দিয়েছে সওজ কর্তৃপক্ষ।
হবিগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগ সূত্রে জানা যায়, হবিগঞ্জ-লাখাই-সরাইল-নাছিরনগর সড়কের দৈর্ঘ্য মাত্র ২৫ কিলোমিটার। তবে সড়কটি চালু হলে ঢাকার সঙ্গে হবিগঞ্জ তথা সিলেট বিভাগের দূরত্ব কমবে প্রায় ৪০ কিলোমিটার। রাস্তাটি দিয়ে চলাচল করেন লাখাই, বানিয়াচং, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাছিরনগর ও কিশোরগঞ্জের অষ্টগ্রাম উপজেলার কয়েক লাখ মানুষ। ফলে রাস্তাটি এ অঞ্চলের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সড়কটি আঞ্চলিক মহাসড়ক হিসেবে ঢাকা-সিলেট বিকল্প সড়কে রূপান্তরের উদ্দেশ্যেই এ সড়ক উন্নয়নের উদ্যোগ নেয়া হয়। হবিগঞ্জ-শায়েস্তাগঞ্জ-লাখাই আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট মো. আবু জাহিরের প্রচেষ্টায় এ সড়ক উন্নয়নের জন্য একনেকে (জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি) ২০১৭ সালে দেড়শ’ কোটি টাকার প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়। এর মধ্যে ৫টি ব্রীজও রয়েছে। যৌথভাবে সড়কটির উন্নয়ন কাজ পায় মোজাহার এন্টারপ্রাইজ, তাহের বাদার্স লিঃ ও মাহফুজ খান নামের ৩টি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। গত (২০১৮ সালের) বছরের ফেব্র“য়ারী মাসে তারা কাজ শুরু করে। বলভদ্র সেতু থেকে কালাউক পর্যন্ত সড়কটি উন্নয়ন কাজ সম্পন্ন হলেও বিভিন্ন স্থানে উন্নয়ন কাজের পাথর, বালু ফেলে, ভেঙ্গেচুরে রেখে কাজ বন্ধ করে চলে যায় ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। এছাড়াও সড়কটি রিচি এলাকার সামনের দিক থেকে শুরু হয়ে বুল্লা বাজার পর্যন্ত বিভিন্ন স্থান ভেঙ্গে বড় বড় গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। সামান্য বৃষ্টি হলেই গর্তগুলোতে পানি জমে থাকছে। অনেক স্থানে দেখলে মনে হয় যেন ডোবা।
সরেজমিন ঘুরে জানা যায়, ভাঙ্গা ওই রাস্তা দিয়ে প্রতিদিন চলাচলরত যানবাহনগুলোতে দিনে ২/৩ বার সমস্যা দেখা দিচ্ছে। এতে চালক যে টাকা উর্পাজন করছেন তা গাড়ী মেরামতেই খরচ করতে হচ্ছে। বর্তমানে রাস্তাটির এমন করুন অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে যে এতে মোটরসাইকেলে চলাচল করাও অনেকটা বিপদজনক হয়ে দাঁড়িয়েছে। ভাঙ্গা গর্তগুলো দিয়ে চলাচল করতে গিয়ে অতিরিক্ত ঝাকুনীতে গর্ভবতী মায়েদের পেটে প্রচন্ড ব্যাথাও অনুভব হয়। রোগীদের হাসপাতালে নেয়াও কঠিন হয়ে পড়েছে। সুস্থ মানুষও এ সড়কে চলাচল করলে অসুস্থ হয়ে পড়ছেন। প্রায়ই ছোট বড় দুর্ঘটনা ঘটছে। দিনের পর দিন এ অসহনীয় অবস্থা থেকে পরিত্রাণ পেতে ইতিপূর্বে মানববন্ধনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেছে স্থানীয়রা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও রাস্তাটি সংস্কারের দাবিতে সোচ্চার হয়ে উঠেছেন তারা।
এ ব্যাপারে এ সড়কে চলাচলকারী সিএনজি অটোরিকশা চালক শাকিল মিয়া জানান, বর্তমানে রাস্তার বিভিন্ন স্থান ভেঙ্গে গর্ত সৃষ্টি হয়ে যে করুন অবস্থায় হয়েছে তাতে আমাদের চলাচল করতে গিয়ে প্রতিদিন গাড়ী মেরামত করতে হচ্ছে। অতিরিক্ত ঝাকুনীর কারণে অনেক চালক রাতে শরীরে প্রচন্ড ব্যাথা অনুভব করেন। আবার অনেকেই অসুস্থ হয়ে যাচ্ছেন। এতে রাস্তা দিয়ে চলাচলে চালকরা যে টাকা উপার্জন করেন তা নিজের চিকিৎসা, গাড়ী মেরামতেই চলে যাচ্ছে।
বুল্লা বাজারের ব্যবসায়ী মনিরুল আলম জসিম জানান, ঠিকাদার রাস্তাটি উন্নয়ন কাজ বন্ধ রাখার কারণেই রাস্তা দিয়ে চলাচলে জনগণের দুর্ভোগ বেড়েছে। বর্তমানে রাস্তা দিয়ে যারা একবার চলাচল করেন তারা পরেরবার চলাচলে অনীহা প্রকাশ করছে।
লাখাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা. শাহিনা আক্তার জানান, বলভদ্র সেতু থেকে কালাউক পর্যন্ত রাস্তার উন্নয়ন কাজ শেষ হয়েছে। বুল্লা, করাব এলাকাসহ কয়েকটি স্থানে রাস্তার উন্নয়ন কাজ বন্ধ থাকার কারণে সাধারণ জনগণকে যাতায়াতে চরম দুর্ভোগের সম্মুখীন হতে হচ্ছে। আইনশৃঙ্খলা সভায় রাস্তাটিতে চলাচলে জনদুর্ভোগের কথা উপস্থাপন করা হয়েছে। আশা করছি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান দ্রুত রাস্তাটির কাজ সম্পন্ন করবে।
গত ১৪ আগস্ট আইনশৃঙ্খলা সভায় রাস্তার বিষয়টি উপস্থাপন হলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ জানান, রাস্তার উন্নয়ন কাজ দ্রুত শেষ করার জন্য ঠিকাদারের সাথে যোগাযোগ করছেন। রাস্তার উন্নয়ন কাজ দ্রুত শেষ করা না হলে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে বলে কর্তৃপক্ষ আশ^াস দিয়েছে।
হবিগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সজীব আহমেদ জানান, দু’দিন হলো ঠিকাদার পূণরায় কাজ শুরু করেছে। আশা করা যায় এবার আর কাজ ফেলে যাবেনা। তিনি বলেন, তবে যদি আবারও কাজ ফেলে চলে যায় তাহলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়ে দিয়েছি। দ্রুত কাজটি শেষ করতে তাদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com