সোমবার, ১৯ এপ্রিল ২০২১, ০৪:০৭ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
প্রেমিকার সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করায় তেঘরিয়ার খোকনকে গলা টিপে হত্যা ॥ প্রেমিকা ও তার বন্ধু ও বান্ধবী গ্রেফতার হবিগঞ্জ জেলাকে মডেল হিসেবে গড়ে তুলতে চান জেলা প্রশাসক ইশরাত জাহান খোশ আমদেদ মাহে রমজান সার-বীজ বিতরণ অনুষ্ঠানে এমপি আবু জাহির ॥ স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ না করে রাস্তায় বের হওয়া মানেই জীবনের ঝুঁকি ব্রি ৮৮ জাতের নতুন ধান আগাম কাটতে পেরে বেজায় খুশি কৃষক হবিগঞ্জে স্বাস্থ্য-বিধি লঙ্ঘনের করায় ৪০ জনকে জরিমানা ঠিকাদারের বিরুদ্ধে সুতাং বাজারের পুরাতন ব্রীজের রাড বিক্রির অভিযোগ ॥ ট্রাক বোঝাই রড আটক বানিয়াচংয়ে ব্র্যাক সিড এর ধান কর্তন সহায়তা কর্মসূচি ল্যাবএইড হাসপাতালে ৮ কেজি ওজনের টিউমার অপসারণ সংবাদ সম্মেলন দাবী ॥ গ্রাম্য মাতব্বরদের ইন্ধনে বানিয়াচংয়ে প্রতিপক্ষের হামলায় নারী আহত
৩ জনেরই ফাঁসি দাবী ছিল এলাকাবাসীর

৩ জনেরই ফাঁসি দাবী ছিল এলাকাবাসীর

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জের দুই সহোদর ও তাদের এক চাচাতো ভাইয়ের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের মামলার রায়ে এলাকাবসী আনন্দিত। তকে সবার প্রত্যাশা ছিল তিন জনেরই ফাঁসির হবে ট্রাইব্যুনাল থেকে।
সরজমিনে বানিয়াচঙ্গ উপজেলার খাগাউড়া গ্রামে গেলে দেখা যায় সবার মাঝে একটাই আলোচ্য বিষয়। সেটি হল তিন ভাইয়ের রায়। কথা হয় শহীদ মুক্তিযোদ্ধা আকল মিয়ার ভাই ও মামলার প্রধান স্বাক্ষী মোঃ মস্তর আলীর সঙ্গে। তিনি বলেন, এই তিন ভাই মিলে এলাকায় যে আকাম করেছে তার জন্য তিন জনেরই ফাঁসি হওয়া উচিত ছিল। তার পরও এই রায়ে তিনি খুশি। তবে তিনি এখনও আতঙ্কগ্রস্থ। তিনি নিরাপত্তার জন্য সরকারের প্রতি দাবি জানিয়েছেন।
মুক্তিযোদ্ধা এম এ রব গবেষক এ কে এম আজাদ ওয়ায়েছ বলেন, দীর্ঘদিন পর হলেও ন্যায় বিচার নিশ্চিত হয়েছে। আমরা এই রায়ে খুশি। আমরা দীর্ঘদিন আন্দোলন সংগ্রাম করেছি এই রাজাকারদের বিচারের জন্য। তারা মুক্তিযুদ্ধের সময় মুক্তিযুদ্ধের উপ-সর্বাধিনায়ক মেজর জেনারেল (অব) এম রব বীর উত্তমের বাড়ী আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দিয়েছিল। হত্যা, ধর্ষণ, লাশ গুম ও আগুন লাগানোসহ এমন কোন কাজ নেই যা তারা করেনি।
তিনি আরও জানান, মুক্তিযুদ্ধের সময় মহিবুর রহমান বড় মিয়ার দুই ভাই খাগাউড়া শান্তি কমিটির প্রধান কলমদর মিয়া ও খাগাউড়া রাজাকার ক্যাম্প কমান্ডার মস্তোফা মিয়াকে মুক্তিযোদ্ধারা হত্যা করেছিল। এখন যদি তাদের ৩ জনেরই ফাঁসি হত তাহলে এলাকাবাসী খুবই আনন্দিত হত।
একাত্তরে মহান মুক্তিযুদ্ধে তাদের অত্যাচারের কথা আজো ব্যথিত করে এলাকাবাসীকে। সেই লোমহর্ষক ঘটনাগুলো তাড়িয়ে বেড়ায় তাদের। এম এ রবের রবের বোন নুরুন্নাহার ও চাচাতো বোন ছালেখা বেগম এই রায়ে আনন্দ প্রকাশ করেন।
হবিগঞ্জ জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ইউনিট কমান্ডার অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ আলী পাঠান বলেন, এই রায়ে তিনি আনন্দিত। ৭১ সালে তারা হত্যা, ধর্ষন ও লুটপাপট করে। দীর্ঘদিন পর এই রায় হওয়ায় যারা সেদিন ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছিলেন তাদের পরিবারের লোকজন শান্তি পাবেন। তিনি আরও জানান, মুক্তিযুদ্ধের পরও এলাকায় তাদের প্রভাব ছিল। ফলে সাধারন লোকজন তাদের বিরুদ্ধে কথা বলতে ও প্রতিবাদ করতে বলতে সাহস পেত না।
প্রসঙ্গত, ১৯৭১ সালে খাগাউড়া গ্রামে তিন ভাই ও তাদের আরও কিছু সহযোগী রাজাকর ক্যাম্প প্রতিষ্ঠা করে খুন, ধর্ষণ, অগ্নিসংযোগ কিছুই বাদ দেয়নি তারা। বানিয়াচং উপজেলার খাগাউড়া গ্রামে রাজাকার ক্যাম্প ও টর্চার সেল গড়ে তুলে মহিবুর রহমান ওরফে বড় মিয়া, তার ছোট ভাই মুজিবুর রহমান আঙ্গুর মিয়া এবং তাদের চাচাতো ভাই আব্দুর রাজ্জাক। আর তাদের বড় ভাই কলমদর ছিলেন খাগাউড়া ইউনিয়ন শান্তি কমিটির চেয়ারম্যান এবং ছোট ভাই মোস্তফা ছিলেন রাজাকার কমান্ডার। তাদের অত্যাচারের লোমহর্ষক ঘটনাগুলো আজো তাড়িয়ে বেড়ায় গ্রামের লোকদের।
২০০৯ সালে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা আকল মিয়ার স্ত্রী ভিংরাজ বিবি হবিগঞ্জের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এই তিনজনসহ মোট ছয়জনের বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে মামলা করেন। পরে মামলাটি ট্রাইব্যুনালে যায়। প্রসিকিউশনের আবেদনে ২০১৫ সালের ১০ ফেব্র“য়ারি দুই সহোদরকে গ্রেফতার করা হয়। ১৮ মে গ্রেফতার করা হয় চাচাতো ভাই আব্দুর রাজ্জাককে। তাদের বিরুদ্ধে স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় চারটি ঘটনায় হত্যা, অপহরণ, আটক, নির্যাতন, লুটপাট, অগ্নিসংযোগ ও ধর্ষণের অভিযোগ আনা হয়েছে। এ মামলায় রাষ্ট্রপক্ষে ১২ জন ও আসামি পক্ষে ৭ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com