শুক্রবার, ১৪ মে ২০২১, ০৮:৩১ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
কাল খুশির ঈদ পাথারিয়ায় ভাগ্নের ফিকলের আঘাতে মামা নিহত কাকাইলছেওয়ে সংঘর্ষের ঘটনায় হত্যা মামলা দায়ের ॥ আটক ৩৫ আউশকান্দির মেম্বার উস্তার প্রতারণার দায়ে ঈদ উদযাপন করছেন কারাগারেই রেড ক্রিসেন্ট হবিগঞ্জ ইউনিটের ৪শ পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ পুরান মুন্সেফীতে মোতাচ্ছিরুল ইসলামকে সংবর্ধনা প্রদান ও ২ শতাধিক মানুষকে ঈদ উপহার বিতরণ শায়েস্তাগঞ্জ অজ্ঞাত গাড়ি চাপায় গ্যাস অফিসের কর্মচারী নিহত হবিগঞ্জ জেলা রিপোর্টার্স ইউনিটির আয়োজনে ইফতার ও দোয়া মাহফিল পশ্চিমভাগ গ্রামের আলহাজ্ব মশাহিদ আহমেদ খানের ইন্তেকাল ॥ শোক নবীগঞ্জে শাহ হেল্প ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে অসহায় দরিদ্রদের মাঝে কাপড় বিতরণ
চুনারুঘাটের পুলিশ কর্মকর্তা ঢাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত

চুনারুঘাটের পুলিশ কর্মকর্তা ঢাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ঢাকায় দায়িত্ব পালনকালে চুনারুঘাটের এক পুলিশ কর্মকর্তা কাভার্ডভ্যান চাপায় নিহত হয়েছেন। তিনি কাঁচপুর হাইওয়ে থানায় এসআই পদে কর্মরত ছিলেন। গতকাল শুক্রবার ভোরে ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কের বন্দর মালিবাগ এলাকায় এ দুর্ঘটনাটি ঘটে। নিহতের নাম ফরিদ আহাম্মেদ। তিনি চুনারুঘাটের গেরারুক গ্রামের মানিক জমাদারের ছেলে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সোনারগাঁওয়ে বুধবার দিনগত রাত থেকে পিকআপভ্যানে দায়িত্ব পালন করছিলেন এসআই ফরিদ। শুক্রবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে মহাসড়কের লাঙ্গলবন্দ এলাকায় হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের অষ্টমী স্নান উৎসব উপলক্ষে যানজটের সৃষ্টি হয়। এ সময় বন্দরের মালিবাগ ক্যাসেল এলাকায় যানজটে আটকে যাওয়া এক ট্রাকের চালক গাড়িতেই ঘুমিয়ে পড়েন। এতে যানজট আরও তীব্র আকার ধারণ করতে থাকে। পরে যানজট নিরসনে নিহত ফরিদ আহাম্মেদ পায়ে হেঁটে রাস্তা পার হয়ে ঘুমিয়ে পড়া ওই ট্রাকচালককে ডেকে তুলেন ও গাড়ি চালানোর জন্য বলেন। একপর্যায়ে ওই ট্রাকচালক গাড়ি চালানো শুরু করলে পেছন থেকে একটি কাভার্ডভ্যান (এমকে এন্টারপ্রাইজ (ঢাকা-মেট্টো-ট-১৮-৭০৪০) এসআই ফরিদ আহম্মেদকে চাপা দেয়। এ সময় ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।
এ ঘটনায় পুলিশ ঘাতক কাভার্ডভ্যানটি আটক করলেও চালক পালিয়ে গেছেন।
গতকালই লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হলে বেলা ৩ টায় নিহত এস আই ফরিদ মিয়ার লাশ তার গ্রামের বাড়ি গেরারুক গ্রামে পৌছলে এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারনা হয়। ছেলের লাশ দেখে বৃদ্ধা মাতা বার বার মুর্ছা যাচ্ছিলেন। ৪ বছরের একমাত্র মেয়ে বার বার বাবার লাশে দিকে তাকিয়েছিল। বাবা মারা গেছে এ বোধও তার হয়নি। বিকেল ৫টায় রাষ্ট্রীয় মর্যাদা শেষে তাকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com