শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ০৩:০৯ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::

নানা অনিয়মের অভিযোগে আউশকান্দি র,প, স্কুল এন্ড কলেজের পরিচালনা পর্ষদ নির্বাচন স্থগিতের আবেদন

  • আপডেট টাইম বুধবার, ৩ জুলাই, ২০২৪
  • ১৭ বা পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নবীগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী আউশকান্দি র,প, স্কুল এন্ড কলেজের পরিচালনা পর্ষদ নির্বাচনে দাতা সদস্য সংগ্রহ ও ভোটার তালিকায় অনিয়মের অভিযোগ এনে নির্বাচন স্থগিতের জন্য জেলা প্রশাসক বরাবরে আবেদন জানিয়েছেন র,প, স্কুল এন্ড কলেজের আজীবন দাতা সদস্য ডাঃ মুজিবুর রহমান। আবেদনে তিনি উল্লেখ করেন, আউশকান্দি র,প, স্কুল এন্ড কলেজ ১৯৪১ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। প্রতিষ্ঠার পর থেকে ২০২২ ইং পর্যন্ত শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পরিপত্র অনুযায়ী আজীবন দাতা সদস্য সংগ্রহ করে গভর্নিংবডির নির্বাচন হয়ে আসছে। কিন্তু বর্তমান গভর্নিংবডি চলতি বছরের ২২ এপ্রিল শিক্ষা মন্ত্রণালয় কর্তৃক প্রণীত গেজেট প্রজ্ঞাপণের নীতিমালা না মেনে বেআইনি ও বিধি বর্হিভুত ভাবে নির্বাচনী তফসীল ঘোষণা করেন। আবেদনে আরো উল্লেখ করা হয়, আউশকান্দি র,প, স্কুল এন্ড কলেজে গভর্নিং বডির মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার প্রাক্কালে জেলা প্রশাসকের নিকট আবেদনের প্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসক নবীগঞ্জের সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তাকে গভর্নিংবডির নির্বাচন পরিচালনার জন্য প্রিসাইডিং অফিসার নিয়োগ করেন। প্রিসাইডিং অফিসার গত ২৫ জুন নির্বাচনী তফশীল ঘোষণা করেন এবং কলেজ অভিভাবক, স্কুল শাখার অভিভাবক ও দাতা সদস্যের খসড়া ভোটার তালিকা প্রকাশ করেন। পরবর্তীতে যা চূড়ান্ত হয়। আবেদনে গভর্নিং বডির সাধারণ সম্পাদক ও স্কুলের প্রধান শিক্ষক লুৎফুর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে বলা হয়, তিনি নীতিমালা পরিপন্থিভাবে আজীবন দাতা সদস্য সংগ্রহ করেছেন। তফশীল ঘোষনার পর গভর্নিংবডিকে পাশ কাটিয়ে যতেচ্ছাভাবে আজীবন দাতা সদস্য সংগ্রহ শুরু করেন। তার পছন্দীয় ব্যক্তিদের নিকট থেকে ৫০ হাজার, ৪০ হাজার ও ৭০ হাজার টাকা গ্রহণ করে এমন কি কোন পরিবারের প্রায় সকলইকে আজীবন দাতা সদস্য হিসাবে বেআইনীভাবে অন্তর্ভূক্ত করেন। এছাড়া বিদ্যালয়ের চাকুরীরত প্রধান শিক্ষক ও শিক্ষকদেরকেও আজীবন দাতা সদস্য হিসাবে অন্তর্ভূক্ত করেছেন। যা সরকারী পরিপত্রের পরিপন্থি। সরকারী নীতিমালা অনুযায়ী বিদ্যালয়ের চলমান কমিটির মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার ৯০ দিন পূর্বে ৫০ হাজার টাকায় এককালীন দাতা সদস্য সংগ্রহ করার নিয়ম থাকলেও প্রধান শিক্ষক নির্বাচনী তফশীল ঘোষণার পরও তার পছন্দ অনুযায়ী ব্যক্তিদেরকে দাতা সদস্য হিসাবে অন্তর্ভূক্ত করছেন। আবেদনে বলা হয়, ঘোষিত তপশীল অনুযায়ী বিদ্যালয় এবং কলেজের নির্বাচন হলে নির্বাচনী নীতিমালা ব্যাহত হবে এবং গভর্নিং বডির স্বচ্ছতা ও নিরপেক্ষতা ক্ষুন্ন হবে। এ ব্যাপারে গভর্নিং বডির সাধারণ সম্পাদক ও স্কুলের প্রধান শিক্ষক লুৎফুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি দাতা সদস্য অন্তর্ভূক্তির বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, বিদ্যালয়ের সামনে খালি জায়গা রয়েছে। এ জায়গায় দোকান কোটা নির্মাণের জন্য টাকার প্রয়োজন। তাই দাতা সদস্য অন্তর্ভূক্তির মাধ্যমে তহবিল গঠন করা হচ্ছে। নিয়ম মাফিক দাতা সদস্য অন্তর্ভূক্ত করা হচ্ছে কি না এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে, তিনি বলেন গতকালও (১ জুলাই) অনেককে দাতা সদস্য হিসাবে অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে। বৈধ হলে সদস্য পদ থাকবে অবৈধ হলে থাকবে না। তিনি বলেন সদস্য অন্তর্ভূক্তর জন্য প্রত্যকের কাছ থেকেই ৫০ হাজার টাকা নিয়েছি। কারো কাছ থেইে বেশি নেই নাই। এ বিষয়ে বিদ্যালয় গভর্নিং বডির সভাপতি ও আউশকান্দি ইউপি চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেনের ব্যক্তিগত ফোন (০১৭২৬-০৯৮২৩৪) নাম্বারে বার বার যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেন নি।

 

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com