শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ১০:১৮ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
বাউসা শাহ্ বাড়ি ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ৮ শতাধিক অসহায় ও হতদরিদ্র পরিবারের মাঝে নতুন শাড়ি, লুঙ্গি ও থ্রি-পিস বিতরণ নাজিরপুরে কমিউনিটি ইনিশিয়েটিভ সোসাইটি’র উদ্যোগে ”নারীর ক্ষমতায়ন ও সক্ষমতা বৃদ্ধির প্রশিক্ষন” প্রদান শায়েস্তাগঞ্জে ১২০ পিস ইয়াবাসহ বিক্রেতা আটক নিউইয়র্কে বাহুবল এসোসিয়েশন অব ইউএসএ’র নয়া কমিটি গঠন ॥ সভাপতি দেলোয়ার সাধারণ সম্পাদক মকছুদ শহরে জলাবদ্ধতা ॥ থানা-সার্কিট হাউজসহ বিভিন্ন অফিসে পানি শিক্ষিকা রিবন রূপা দাশের মৃত্যুর রহস্য উদ্ঘাটন ও অভিযুক্তদের গ্রেফতারের দাবীতে মানববন্ধন ঈদে বাড়ী-বাড়ী বর্জ্য সংগ্রহ কার্যক্রমকে আরো জোরদার করতে হবিগঞ্জ পৌর কর্তৃপক্ষের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হাসপাতালের প্রধান ফটকসহ ফুটপাতের দোকান উচ্ছেদ সিগন্যাল অমান্য করে ক্রসিংয়ে প্রবেশ ॥ লস্করপুরে ট্রেনের ধাক্কায় সিএনজি যাত্রী নিহত বানিয়াচং হাসপাতালে সরকারি নিয়ম ভঙ্গ করে রোগীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত অর্থ আদায়

নবীগঞ্জের কালাভরপুর গ্রামের সালামত খানের বিরুদ্ধে এন্তার অভিযোগ

  • আপডেট টাইম বৃহস্পতিবার, ২ নভেম্বর, ২০২৩
  • ১০৮ বা পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নবীগঞ্জ উপজেলার ১০ নং দেবপাড়া ইউনিয়নের কালাভরপুর গ্রামের স্বামী-স্ত্রীর বিরুদ্ধে এন্তার অভিযোগ এনেছেন ওই গ্রামের মকসুদ মিয়া। তিনি এ ব্যাপারে গতকাল ১ নভেম্বর হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। অভিযুক্ত ব্যক্তিরা হলেন- কালাভরপুর গ্রামে মৃত সুলেমান খাঁ এর পুত্র মোঃ সালামত খান ও স্ত্রী মোছাঃ রিপা খানম।
অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, মকসুদ মিয়ার চাচা ছাও মিয়া গংদের সাথে সালামত খানের দীর্ঘদিন যাবত পূর্ব বিরোধ ছিল। বিভিন্ন সময়ে উভয় পক্ষের মাঝে মামলা মোকদ্দমাও চলছিল। এরই মধ্যে মকসুদ মিয়ার সাথে তার চাচা ছাও মিয়ার বিভিন্ন বিষয় নিয়ে মনোমালিন্য ও বিরোধ সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে সালামত খা মকসুদ মিয়ার পক্ষ নেয়। হঠাৎ একদিন মকসুদ মিয়া সালামত খানের মধ্যে জানতে পারেন তার ভাতিজি আসমা বেগম নিখোঁজ। অনেক খোঁজাখোজি করে তার লাশ পাওয়া যায় পার্শ্ববর্তী একটি পুকুরে। পরবর্তীতে সালামত খানের পরোচনায় মকসুদ মিয়া তার চাচা ছাও মিয়ার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের কিছুদিন পর সামলাত খানই মকসুদ মিয়াকে মামলা টি আপোষ করার জন্য চাপ দেয়। এক পর্যায়ে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ফখরুল ইসলাম এর মধ্যেস্থতায় মামলাটি শালিস বিচারে নিষ্পত্তির লক্ষ্যে ইউপি চেয়ারম্যানের নিকট ছাও মিয়া ৮ লাখ ও সালামত খান ৮ লাখ করে মোট ১৬ লাখ টাকা জমা দেন। বিচারে সালামত খান ৮ লাখ টাকা জমা দেয়ায় আসমার মৃত্যুর ঘটনা নিয়ে মকসুদ মিয়ার সন্দেহের সৃষ্টি হয়। এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নিতে জেলা প্রশাসকের নিকট মকসুদ মিয়া আবেদন করেছেন। অভিযোগের অনুলিপি জেলা পুলিশ সুপার, সার্কেল এএসপি, নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও জেলা গোয়েন্দা সংস্থার নিকট প্রেরণ করা হয়।

 

 

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com