রবিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ০৬:৫৩ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
সায়হাম গ্রুপের কর্ণদার সৈয়দ মোঃ ফয়সল সেরা করদাতা নির্বাচিত বেকারত্ব দূর করতে ভূমিকা রাখতে পারেন ডিপ্লোমা প্রকৌশলীরা-এমপি আবু জাহির নবীগঞ্জ-বাহুবলের সাবেক এমপি আব্দুল মোছাব্বির এর কুলখানি অনুষ্ঠিত হবিগঞ্জ ব্যাংকার্স এসোসিয়েশনের কমিটি ও উপদেষ্ঠা পরিষদ গঠন নবীগঞ্জের ইনাতগঞ্জ ইউনিয়ন বিএনপির কাউন্সিল সম্পন্ন দাঙ্গা-হাঙ্গামায় সহযোগিতা নয় প্রতিরোধ করুন-রবিউল ইসলাম নবীগঞ্জ আউশকান্দি ইউনিয়ন বিএনপির ওয়ার্ড কমিটি গঠন হজ্ব পালনের বিভিন্ন নিয়মাবলী সম্পর্কে ধারণা দিলেন এমপি আবু জাহির বাসদ নেতা হুমায়ূন খানের বড় বোনের ইন্তেকাল ॥ শোক নবীগঞ্জের চৌকি গ্রামে ঠাকুর অনুকুল চন্দ্রের বিশেষ সৎসঙ্গ অধিবেশন
নবীগঞ্জের হীরাগঞ্জ বাজারে লন্ডন প্রবাসীর জায়গা দখল ॥ দখলদার ও ওসির বিরুদ্ধে অভিযোগ ॥ তদন্ত শুরু

নবীগঞ্জের হীরাগঞ্জ বাজারে লন্ডন প্রবাসীর জায়গা দখল ॥ দখলদার ও ওসির বিরুদ্ধে অভিযোগ ॥ তদন্ত শুরু

কিবরিয়া চৌধুরী, নবীগঞ্জ থেকে ॥ নবীগঞ্জের আউশকান্দি- হীরাগঞ্জ বাজারে অবৈধ দখলদারদের কবল থেকে ভিটে উদ্ধারের জন্য পুলিশ সুপার বরাবরে আবেদন করেছেন এক লন্ডন প্রবাসী। সেই সাথে ওই আবেদনে নবীগঞ্জ থানার ওসির বিরুদ্ধেও অভিযোগ করা হয়েছে। অভিযোগকারী হলেন, বাজারের প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত সোনা মিয়া চৌধুরীর নাতি যুক্তরাজ্য প্রবাসী শামীম আহমদ চৌধুরী। গত ২১ নভেম্বর হবিগঞ্জ পুলিশ সুপার বরাবরে অভিযোগটি দায়ের করেন তিনি। অভিযোগের প্রেক্ষিতে গতকাল সোমবার সরেজমিন তদন্ত করেছেন হবিগঞ্জ জেলা পুলিশের উত্তর সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ রাসেলুর রহমান।
অভিযোগে শামীম আহমদ চৌধুরী উল্লেখ করেন, মিঠাপুর মৌজাধীন আউশকান্দি হীরাগঞ্জ বাজারস্থ তাদের মালিকানাধীন ভিটে রকম প্রায় ৬শতক ভূমি কতিপয় প্রভাবশালী ব্যক্তি জাল দলিল সৃষ্ঠি করে। এমন খবর পেয়ে লন্ডন প্রবাসী শামীম আহমদ চৌধুরী চাচাতো ভাই আউশকান্দি হীরাগঞ্জ বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারন সম্পাদক জাহান চৌধুরী বাদী হয়ে বিজ্ঞ আদালতে অভিযোগ দায়ের করেন। এরই প্রেক্ষিতে বিজ্ঞ আদালত ১৪৪ ধারা জারী করেন। আদালতের এ নির্দেশ উপেক্ষা করে তারা জোরপূর্বক ভিটেটি দখলে নিয়ে ঘর নির্মাণ করে ফেলে। নবীগঞ্জ থানার ওসির সহায়তায় এ দখল প্রক্রিয়া করা হয়েছে বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়। পরবর্তীতে শামীম আহমদ চৌধুরী দেশে এসে পুলিশ সুপার বরাবরে অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, নবীগঞ্জ থানার ওসি আব্দুল বাতেন খাঁন বাদীর মাতা রাজিয়া খানমকে ভয়ভীতি দেখিয়ে ৫০হাজার টাকা হাতিয়ে নেন এবং পিতা মৃত শফিকুল হক চৌধুরীর নামীয় আনরেজিষ্ট্রারীকৃত মূল দলিল ও বাংলাদেশী পাসপোর্ট থানায় ডেকে নিয়ে তা হাতিয়ে নেন। অদ্যাবদি এসব ফেরত দেন নাই। পরবর্তীতে ওসি আব্দুল বাতেন খাঁন আবারো ভয় ভীতি ও অন্যান্য মামলায় ঢুকানোর হুমকি দেখিয়ে আবারো ৫০হাজার টাকা হাতিয়ে নেন। টাকা না দিলে শামীম চৌধুরীকে যুক্তরাজ্য যেতে দেওয়া হবে না বলেও তিনি হুমকি দিয়েছিলেন মর্মে অভিযোগে উল্লেখ রয়েছে।
এদিকে গতকাল সোমবার সকাল সাড়ে ১১টায় হবিগঞ্জ উত্তর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে বেশী বক্তব্য দেওয়া যাবেনা। তবে অভিযোগের প্রেক্ষিতে তদন্ত চলছে। তদন্তে অভিযোগ প্রমানীত হলে কাউকেই ছাড় দেওয়া হবে না।
অপরদিকে, অভিযোগের প্রধান সাক্ষি আউশকান্দি হীরাগঞ্জ বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারন সম্পাদক জাহান চৌধুরী বলেন, প্রবাসীর সম্পত্তি রক্ষার দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে প্রতিপক্ষ আমাদের পরিবার ও গ্রামের নিরপরাধ লোকজনের উপর নবীগঞ্জ থানার ওসির আব্দুল বাতেন খাঁনের যোগসাজসে হয়রানীমূলক একাধিক মামলা আদালতে করিয়েছেন। আমার নিরাপত্তার জন্য নবীগঞ্জ থানায় সাধারন ডায়েরী করতে গেলে আমার জিডি এন্ট্রি তিনি নেননি। উল্টো আমাকে একাধিক মামলার হুমকি দেন। সাধারন নাগরিক হিসাবে আমার অধিকার থাকলেও তিনি বারবার টাকার জন্য আমাদের হুমকি দেন, এবং ভূমি খেকো দুর্র্বৃত্তদের কবলে থাকা প্রবাসীর সম্পদের ব্যাপারে নাক না গলানোর জন্য ও সাক্ষি না দেওয়ার জন্য তিনি আমার সাথে খারাপ আচরন করেন ওসি আব্দুল বাতেন খাঁন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com