শনিবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৯, ০৫:০০ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
গবেষণায় সফল বাংলাদেশী বিজ্ঞানী ড. নূর চৌধুরী ॥ পেঁয়াজের বিকল্প ‘চিভ’ নবীগঞ্জে মাকে বাড়ি আনতে গিয়ে লাশ হয়ে ফিরলেন পুত্র শায়েস্তাগঞ্জ জংশনে বিচারক চোরের কবলে ॥ আটক ১ খেলাধূলার প্রসারে সকলে মিলে কাজ করতে হবে ॥ এমপি আবু জাহির নবীগঞ্জে সাংবাদিক সোহেল এর দাফন সম্পন্ন ॥ শোক কবসায় ট্রেন দুর্ঘটনায় আহতদের দেখতে নবীগঞ্জ হাসপাতালে এমপি মিলাদ গাজী অপরাধ নির্মুলে সাংবাদিকদের সহযোগিতা প্রয়োজন ওসি-রঞ্জন কুমার সামন্ত চুনারুঘাটের আমরোড বাজারে কবিরাজের ঘরে যুবতীর মৃত্যু ধান কাটতে গিয়ে নবীগঞ্জে বিষধর সাপের কামড়ে কৃষকের মৃত্যু আজমিরীগঞ্জের জলসুখায় পানিতে ডুবে গৃহবধূর মৃত্যু
পাহাড়ি এলাকায় ঘাই পদ্ধতি বছরে কোটি কোটি টাকা আয়

পাহাড়ি এলাকায় ঘাই পদ্ধতি বছরে কোটি কোটি টাকা আয়

আবু ছালেহ মোঃ নুরুজ্জামান চৌধুরী ॥ হবিগঞ্জের পাহাড়ী এলাকায় সেচের অভাবে কৃষিকাজ করা এক সময়ে একেবারেই অসম্ভব ছিল। কিন্তু হালে অসম্ভবকে সম্ভব করেছেন কৃষকরা। সম্পুর্ণ নতুন প্রযুক্তি খাটিয়ে ওইসব এলাকায় বিদ্যুৎ ও তেল ব্যবহার ছাড়া পরিবেশ বান্ধব নলকুপ বসিয়ে হবিগঞ্জের সদর, চুনারুঘাট, মাধবপুর উপজেলার পাহাড়ী এলাকার কৃষকরা প্রতি বছর ধান ও সবজি উৎপাদন করছে। সরকারী খরচেই স্থানীয় বিএডিসি’র মাধ্যমে কৃষকরা এ সুবিধা পাচ্ছেন। গভীর অথবা অগভীর কুপ বা টিউবওয়েল দিয়ে নয়, শুধুমাত্র কয়েক ফুট পাইপ বসিয়ে দিলেই আর্টেশিয়ান কূপ স্থাপন করা যায়। স্থানীয়রা একে ঘাই পদ্ধতি বলে থাকেন। এ কুপ দিয়ে অনবরত পানি বের হয়। আর এ পানি থেকে ধান, সবজি ও দৈনন্দিন কাজে ব্যবহার করছেন এলাকার কৃষকরা।
ffffffffffffff copyসুবিধাভোগী কৃষকদের সাথে আলাপ করে জানা গেছে, হবিগঞ্জের চুনারুঘাট, সদর ও মাধবপুর উপজেলার পাহাড়ি এলাকার পাদদেশে সেচের অভাবে কৃষি কাজ করা দুর্বীসহ ছিল। বিএডিসি’র তত্ত্বাবধানে ২০১২ সাল থেকে পরিবেশ বান্ধব আর্টেশিয়ান নলকূপ স্থাপন করে এলাকায় সেচের অভাব পূরণ করা হয়। বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন এলাকার মাটি পরীক্ষা করে কৃষকদের জন্য ৮০থেকে ১৬০ ফুট পাইপ বসিয়ে দিলেই অনবরত পানি বের হতে থাকে। জেলার ঐ এলাকাগুলোতে বছরের অধিকাংশ সময় কোন টিউবওয়েল বা কুপ ছাড়াই পাইপ বসিয়ে দিলে অনবরত পানি পড়তে থাকে।  বিশেষ করে পাহাড়ি এলাকায় এ প্রকল্প চালু করা হয়েছে। তবে স্থানীয় কৃষকরা একে ঘাই প্রকল্প বলে অভিহিত করে। বিএডিসি জেলার ৩টি উপজেলায় ৮শত কৃষকের মধ্যে ২শতটি আর্টেশিয়ান কূপ স্থাপন করে দিয়েছে। ফলে বছরে অতিরিক্ত ৩ হাজার মন ধান উৎপাদন হচ্ছে। আটের্শিয়ান কুপের মাধ্যমে এলাকার কৃষকরা ধানসহ নানা ধরণের সবজি ফলিয়ে বছরে কোটি কোটি টাকা আয় করছেন। পাশাপাশি এর পানি দৈনন্দিন কাজেও ব্যবহার করছেন তারা। পাহাড়ি এলাকার পাদদেশের জমিগুলোতে আর্টেশিয়ান কূপ স্থাপন করে কৃষিতে ব্যাপক বিপ্লব ঘটানো সম্ভব বলে অভিজ্ঞ মহল মনে করেন। স্থানীয় বিএডিসি কর্মকর্তা জানান, কৃষকের চাহিদা অনুযায়ী নলকূপ স্থাপন করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। তারা ঐ এলাকার কৃষকদেরকে কুপের পানির মাধ্যমে সেচের আওতায় আনার ব্যাপক পরিকল্পনা করছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com