শুক্রবার, ১০ Jul ২০২০, ১২:৪৬ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জে আলোচনায় চেয়ারম্যান মুসা চেয়ারম্যান মুকুল বরখাস্ত ॥ দিনারপুর পরগনার কলঙ্কজনক অধ্যায় তেঘরিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আনু মিয়ার বাড়ীতে প্রতিপক্ষের হামলা ভাংচুর লুটপাট ॥ ১ জন গ্রেফতার বানিয়াচঙ্গে মেয়াদোত্তীর্র্ণ ঔষধ বিতরণ নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করায় টনক নড়েছে কর্তৃপক্ষের ঘটনা তদন্তে কমিটি গঠন হবিগঞ্জে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নে ২৯ লাখ টাকার চেক বিতরণ করেছেন এমপি এডাভোকেট আবু জাহির করোনা আমাদের কাছে সত্যিই হার মেনেছে শায়েস্তাগঞ্জের ইউএনও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ॥ জেলায় নতুন আক্রান্ত আরও ২৭ জন বানিয়াচংয়ে প্রশাসনের অভিযানে জব্দ ‘কারেন্ট জাল’ করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সচেতন নাগরিক কমিটির আজমিরীগঞ্জ উপজেলা শাখার কমিটি গঠন করোনা পরিস্থিতির মাঝে মাধবপুরে ডেঙ্গু নিয়ে ভাবনা
স্ত্রী সন্তানের সাথে আর দেখা হলোনা ইউসুফের

স্ত্রী সন্তানের সাথে আর দেখা হলোনা ইউসুফের

স্টাফ রিপোর্টার ॥ স্ত্রী সন্তানকে নিয়ে আর বাড়ি ফেরা হলোনা আলী মো. ইউসুফের। স্ত্রী সন্তানের কাছে পৌছানোর আগেই তিনি ট্রেন দুর্ঘটনায় মারা গেছেন। পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম টগবগে এ যুবককে হারিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছে তার পরিবার। শোকে মূহ্যমান হয়ে পড়েছে তার এলাকার মানুষও। নিহত ইউসুফ হবিগঞ্জ পৌর এলাকার আনোয়ারপুর গ্রামের বাসিন্দা মো. হাসান আলীর ছেলে। মঙ্গলবার ভোরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার মন্দবাগ রেলওয়ে স্টেশনে দুই ট্রেনের সংঘর্ষে তিনি মারা যান।
নিহত ইউসুফের প্রতিবেশী মো. জয়নাল মিয়া জানান, কয়েক বছর পূর্বে ইউসুফ জেলার আজমিরীগঞ্জ উপজেলার কাকাইলছেও গ্রামের চিশতিয়া বেগমকে বিয়ে করেন। তার স্ত্রী চট্টগ্রামে স্বাস্থ্যকর্মী হিসেবে চাকরি করছেন। তাদের দেড় বছর বয়সী একটি সন্তানও রয়েছে। নাম ইশা বেগম। আর ইউসুফ হবিগঞ্জ সরকারি বৃন্দাবন কলেজ থেকে ২০১৫ সালে ব্যবস্থাপনা বিষয়ে এমএ পাশ করে লিটল ফ্লাওয়ার কিন্ডারগার্টেন নামে একটি স্কুল পরিচালনা করছেন। স্কুলটির অধ্যক্ষের দায়িত্বও তিনি পালন করছিলেন। প্রায়ই তিনি স্ত্রী ও সন্তানের সাথে দেখা করতে চট্টগ্রামে যাতায়াত করতেন। মঙ্গলবার তিনি উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনযোগে স্ত্রী ও সন্তানকে আনতে চট্টগ্রামে রওয়ানা হন। পথে ট্রেন দুর্ঘটনায় মারা গেছেন ইউসুফ। তিন ভাই বোনের মাঝে ইউসুফ তৃতীয়। ২০১১ সালের জুনে মারা গেছেন তার বাবা। আর ২০১৭ সালের মার্চে ক্যান্সার আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন তার বড় ভাই মো. উসমান গনি। এমএ পাশ করে তিনি ধরেছিলেন পরিবারের হাল।
জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক রুবেল চৌধুরী জানান, ইউসুফ জেলা ছাত্রদলের সহ-সভাপতি ছিলেন। স্ত্রী চট্টগ্রামে চাকরি করার সুবাধে তিনি প্রায়ই সেখানে যাতায়াত করতেন স্ত্রী সন্তানকে দেখার জন্য। তিনি বলেন, অত্যন্ত ভাল ছেলে ছিলেন ইউসুফ। বাবা ও ভাই না থাকার কারণে তিনিই পরিবারের হাল ধরেছিলেন। লিটল ফাওয়ার কিন্ডার গার্টেন নামে একটি কিন্ডার গার্টেন স্কুলের অধ্যক্ষ হিসেবে তিনি দায়িত্ব পালন করছিলেন। তার একমাত্র ছোট ভাই আমজদ আলী পড়ছেন বিএ। তিনিও একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করছেন। পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তিকে হারিয়ে তার পরিবারের সদস্যরা এখন দিশেহারা হয়ে পড়েছেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com