রবিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২১, ১০:৩৪ পূর্বাহ্ন

হবিগঞ্জ সদর উপজেলার লস্করপুরের আব্দাবখাই গ্রামবাসীর উপর পুলিশী নির্যাতন এলাকাবাসীর সড়ক অবরোধ

হবিগঞ্জ সদর উপজেলার লস্করপুরের আব্দাবখাই গ্রামবাসীর উপর পুলিশী নির্যাতন এলাকাবাসীর সড়ক অবরোধ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ সদর উপজেলার লস্করপুর ইউনিয়নের আব্দাবখাই গ্রামে আসামী ধরতে গিয়ে গ্রামবাসীর উপর পুলিশী নির্যাতন ও নিরপরাধ স্কুলছাত্রসহ ৪জনকে আটকের প্রতিবাদে হবিগঞ্জ-মিরপুর আঞ্চলিক সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করছেন কয়েক গ্রামের মানুষ। এ ঘটনায় এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষোভ ও উত্তেজনা বিরাজ করছে। দায়ী পুলিশ সদস্যদের শাস্তির দাবি ও নিরীহ ব্যক্তিদের মুক্তির দাবিতে সড়কে গাছ ফেলে, টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে অবরোধ করা হয়। পুলিশের হ্যান্ডকাপ গ্রেপ্তারকৃত এক আসামী পালিয়ে যাওয়ার জের ধরে পুলিশ নিরীহ গ্রামবাসীর উপর নির্যাতন চালায় বলে এলাকাবাসী অভিযোগ করেন।
গ্রামবাসী ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, হবিগঞ্জ সদর উপজেলার লস্করপুর ইউনিয়নের আব্দাবখাই গ্রামের পশু চিকিৎসক আব্দুস সহিদ কিছুদিন আগে তার পুত্র জালালের বিরুদ্ধে নির্যাতনের অভিযোগ এনে হবিগঞ্জ সদর থানায় অভিযোগ দেন। এর প্রেক্ষিতে থানার এএসআই আব্দুল লতিফসহ একদল পুলিশ গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে ওই গ্রামে অভিযান চালিয়ে জালালকে আটক করে। পরে তাকে নিয়ে আসার সময় পথিমধ্যে মশাজান গ্রামের ডাকাত নজরুল ইসলাম খোকা ও তার সহযোগীকে দেখতে পায় পুলিশ। এ সময় হ্যান্ডকাপ পরিহিত জালালকে গাড়িতে রেখে পুলিশ সদস্যরা নজরুল ও তার সহযোগীকে ধরতে ধাওয়া করে। এক পর্যায়ে তাদের আটক করতে সক্ষম হয় পুলিশ। এদিকে এসুযোগে হ্যান্ডকাপসহ জালাল পালিয়ে যায়। খবরটি তাৎক্ষনিক সদর থানায় পৌছুলে ওসি মোঃ নাজিম উদ্দিনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ জালালকে ধরতে মশাজান ও আব্দাবখাই গ্রামের বিভিন্ন বাড়িঘরে তল্লাশী চালায়। এ সময় গ্রামের মহিলারা প্রতিবাদ করলে তাদের উপর পুলিশ চড়াও হয়। পুলিশের এলোপাথারী লাঠির আঘাতে মহিলা ও শিশুসহ কমপক্ষে ২০ জন আহত হন। গ্রামবাসী অভিযোগ, শুধু নির্যাতনই নয়, পুলিশ গ্রামের বেশ কয়েকটি বাড়ি ঘরের আসবাবপত্রসহ মূল্যবান জিনিসপত্র ভাংচুর করে। এ সময় পুলিশ কলেজ ছাত্রসহ ৩ জনকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।
তারা অভিযোগ করেন, শুধু নির্যাতনই নয়, পুলিশ গ্রামের বেশ কয়েকটি বাড়ি ঘরের আসবাবপত্রসহ মুল্যবান জিনিসপত্র ভাংচুর করে। এ সময় পুলিশ কলেজ ছাত্রসহ ৪ জনকে আটক করে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। আটকককৃতরা হলেন, আব্দাবখাই গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত বিডিআর কর্মকর্তা আলা উদ্দিনের পুত্র কলেজ ছাত্র নুর উদ্দিন তার ছোট ভাই আইডিয়াল স্কুলের ৯ম শ্রেণীর ছাত্র মইন উদ্দিন, জাহাঙ্গীর ও আহাদ।
habiganj pic (3) copyএদিকে আটককৃতদের থানায় নির্যাতন করা হচ্ছে এমন খবর গ্রামে প্রচার হলে বিক্ষুুদ্ধ হয়ে উঠেন এলাকাবাসী। প্রতিবাদে লস্করপুর ইউনিয়নের মশাজান, আব্দাবখাই, শরীফপুর, কটিয়াদি, চরহামুয়া, নোয়াবাদসহ কয়েকটি গ্রামের লোকজন রাস্তায় নেমে আসে। তারা বিকাল ৪টায় থেকে হবিগঞ্জ-মিরপুর আঞ্চলিক সড়কের মশাজান চৌমুহনী এলাকায় রাস্তায় গাছ ফেলে এবং টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ শুরু করে। এতে ওই সড়কের উভয়পাশে শত শত যানবাহন আটকা পড়ে। এদিকে ঘটনার পর আব্দাবখাই গ্রামের মুরুব্বী জনাব আলীর মাধ্যমে চাবিযোগে পালিয়ে যাওয়া আসামী জালালের কাছ থেকে হ্যান্ডকাপটি উদ্ধার করে পুলিশ। বিষয়টি নিশ্চিত করেন লস্করপুর ইউপি চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান হিরু ও সাবেক চেয়ারম্যান আলী আমজাদসহ গণ্যমান্য ব্যক্তি। এ ব্যাপারে সদর থানার ওসি মোঃ নাজিম উদ্দিন জানান, কোন নিরীহ লোকদের গ্রেফতার করা হয়নি। ওয়ারেন্টের আসামী ধরতে গেলে গ্রামের লোকজন আমাদের বাঁধা প্রদান করেন এবং কোন আসামী আমাদের হাত থেকে পালিয়ে যায়নি।
গ্রামবাসীর ভাষ্যমতে পুলিশী নির্যাতনে আহতরা হলেন-তানজিল, নাজমা, আমিনা খাতুন, নজিরা, রেজিয়া, ফাতেমা, জাহাঙ্গীর, আব্দুস সহিদ, আব্দুল জলিল, কাদির, আলা উদ্দিন ও সামছুননাহার। গ্রেফতার আতংকে আহতরা হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে না পেরে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা নিয়েছেন বলে তারা জানান।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com