সোমবার, ১৯ এপ্রিল ২০২১, ০৩:৩৯ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
প্রেমিকার সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করায় তেঘরিয়ার খোকনকে গলা টিপে হত্যা ॥ প্রেমিকা ও তার বন্ধু ও বান্ধবী গ্রেফতার হবিগঞ্জ জেলাকে মডেল হিসেবে গড়ে তুলতে চান জেলা প্রশাসক ইশরাত জাহান খোশ আমদেদ মাহে রমজান সার-বীজ বিতরণ অনুষ্ঠানে এমপি আবু জাহির ॥ স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ না করে রাস্তায় বের হওয়া মানেই জীবনের ঝুঁকি ব্রি ৮৮ জাতের নতুন ধান আগাম কাটতে পেরে বেজায় খুশি কৃষক হবিগঞ্জে স্বাস্থ্য-বিধি লঙ্ঘনের করায় ৪০ জনকে জরিমানা ঠিকাদারের বিরুদ্ধে সুতাং বাজারের পুরাতন ব্রীজের রাড বিক্রির অভিযোগ ॥ ট্রাক বোঝাই রড আটক বানিয়াচংয়ে ব্র্যাক সিড এর ধান কর্তন সহায়তা কর্মসূচি ল্যাবএইড হাসপাতালে ৮ কেজি ওজনের টিউমার অপসারণ সংবাদ সম্মেলন দাবী ॥ গ্রাম্য মাতব্বরদের ইন্ধনে বানিয়াচংয়ে প্রতিপক্ষের হামলায় নারী আহত
বর্বরতা আর নৃশংসতার আরেক নজির স্থাপন হলো নারায়ণগঞ্জে ॥ অপহরণের পর প্যানেল মেয়রসহ ৬ জনকে হত্যা ॥ প্রতিটি লাশের সাথে বেঁধে দেয়া হয়েছিল ২৪টি ইট

বর্বরতা আর নৃশংসতার আরেক নজির স্থাপন হলো নারায়ণগঞ্জে ॥ অপহরণের পর প্যানেল মেয়রসহ ৬ জনকে হত্যা ॥ প্রতিটি লাশের সাথে বেঁধে দেয়া হয়েছিল ২৪টি ইট

এক্সপ্রেস ডেস্ক ॥ বর্বরতা আর নৃশংসতার আরেক নজির স্থাপন হলো নারায়ণগঞ্জে। একসঙ্গে অপহরণের পর নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম ও সিনিয়র 04_Nazrul+Islam+Death+Narayanganj_3004140024আইনজীবী চন্দন সরকারসহ ৬ জনের লাশও পাওয়া গেল একসঙ্গে। হাত-পা বেঁধে হত্যার পর তাদের ফেলে দেয়া হয়েছিল শীতলক্ষ্মা নদীতে। লাশ গুম করার উদ্দেশে প্রতিটি লাশের সঙ্গে বেঁধে দেয়া হয়েছিল ২৪টি করে ইট। পানির নিচে পচে গলে লাশ ভেসে ওঠে নদীর উপরে। আর এই লাশ উদ্ধারের পর শোক আর ক্ষোভে একাকার হয়ে পড়ে গোটা নারায়ণগঞ্জ। স্তব্ধ, নির্বাক মানুষগুলো প্রতিবাদে নেমে আসেন রাস্তায়। গুম-অপহরণ নিয়ে দেশজুড়ে ছড়িয়ে পড়া আতঙ্কে নতুন মাত্রা যোগ করেছে নৃশংস এই অপহরণ ও হত্যাকান্ডের ঘটনা। লাশ উদ্ধারের পর গতকাল বিকাল থেকে বিক্ষোভের আগুনে জ্বলছে নারায়ণগঞ্জ। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের স্থানে স্থানে বিক্ষোভ করেছেন সাধারণ মানুষ। ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের কারণে বিকাল থেকেই গুরুত্বপূর্ণ এই রাস্তায় যান চলাচল ছিল বন্ধ।
গত রোববার দুপুরে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার একটি মামলায় জামিন নিয়ে নারায়ণগঞ্জ আদালত থেকে বাসায় ফেরার পথে নাসিক প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম, তার সহযোগী লিটন, মনিরুজ্জামান স্বপন, তাজুল ইসলাম, গাড়িচালক জাহাঙ্গীর প্রাইভেটকারসহ অপহৃত হন। একই সময় নিখোঁজ হন সিনিয়র আইনজীবী চন্দন সরকার ও তার গাড়িচালক ইব্রাহিম। এর মধ্যে ওই রাতে নজরুলের গাড়িটি গাজীপুরের রাজেন্দ্রপুর থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় উদ্ধার হয়। সোমবার রাতে গুলশানের নিকেতন থেকে উদ্ধার হয় আইনজীবী চন্দন সরকারের গাড়ি।
অপহরণের ৭৩ ঘণ্টা পর অপহৃত নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম ও সিনিয়র আইনজীবী চন্দন সরকারসহ একে একে ৬ জনের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। নারায়ণগঞ্জের ইতিহাসে একসঙ্গে অপহরণের পর এতগুলো লাশ উদ্ধারের ঘটনা এটাই প্রথম। এমন হৃদয়বিদারক ঘটনায় নির্বাক নারায়ণগঞ্জবাসী। সংসদ সদস্য নাসিম ওসমানের মৃত্যুর সঙ্গে ৬টি লাশ উদ্ধারের ঘটনায় শোকাহত নারায়ণগঞ্জ।
31-300x192 copyবুধবার দুপুর ৩টায় বন্দর উপজেলার কলাগাছিয়া ইউনিয়নের শান্তিনগর এলাকায় শীতলক্ষ্যা নদী থেকে ভাসমান অবস্থায় প্রথমে প্যানেল মেয়র নজরুলের লাশটি উদ্ধার করে পুলিশ। একই সময় নজরুলের লাশের সঙ্গে নদীর একই এলাকায় নির্দিষ্ট দূরত্বে আরও ৫টি লাশ নদীতে ভেসে ওঠে। এর মধ্যে নজরুল ইসলামের সহযোগী মনিরুজ্জামান স্বপন, তাজুল ইসলাম ও আইনজীবী চন্দন সরকারের গাড়িচালক ইব্রাহিমের লাশ বলে শনাক্ত হলেও একটি লাশ শনাক্ত হয়নি। তবে ধারণা করা হচ্ছে ওই লাশটি প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলামের বন্ধু লিটন অথবা গাড়িচালক জাহাঙ্গীরের। লাশগুলো উদ্ধারের পর স্বজনদের আহাজারিতে শীতলক্ষ্যার বাতাস ভারি হয়ে ওঠে। এদিকে নজরুল ইসলামসহ অপহৃতদের লাশ শীতলক্ষ্যা নদী থেকে উদ্ধারের খবরে সিদ্ধিরগঞ্জের সানারপাড় এলাকায় বিকাল ৪টা থেকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে গাড়ি ভাঙচুর এবং অগ্নিসংযোগ করা হয়। বিক্ষোভকারীরা সড়কের উপর বড় বড় গাছের গুঁড়ি ফেলে যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেন। বিক্ষুব্ধ লোকজন ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক ও নারায়ণগঞ্জ-চিটাগাংরোড সড়ক অবরোধ করেন। দু’টি সড়কের অর্ধশতাধিক স্থানে টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে সড়কে যান চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়। ভাঙচুর করা ৩০-৩৫টি যানবাহন। মৌচাক বাসস্ট্যান্ডে আওয়ামী লীগ নেতার মালিকানাধীন শামস ফিলিং স্টেশনে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়। আতঙ্কে বন্ধ হয়ে যায় সিদ্ধিরগঞ্জপুল, মিজমিজি, চিটাগাংরোড, শিমরাইল, মৌচাক, সানারপাড়সহ বিভিন্ন এলাকার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। এ সময় আইনশৃংখলা বাহিনীর কোন তৎপরতা ছিল না। পুরো এলাকা বিক্ষোভকারীদের নিয়ন্ত্রণে থাকে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত। উদ্ধারকৃত ৬টি লাশের ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।
যেভাবে লাশগুলো উদ্ধার ও শনাক্ত হয়
দুপুর ৩টায় বন্দর উপজেলার কলাগাছিয়া ইউনিয়নের শান্তিনগর এলাকায় শীতলক্ষ্যা নদীতে ৩টি লাশ ভাসতে দেখে স্থানীয়রা পুলিশকে খবর দেয়। খবর পেয়ে বন্দর থানার ওসি আক্তার মোর্শেদ ঘটনাস্থলে ছুটে যান। বিকাল ৩টার দিকে চারদিকে খবর রটে যায় শীতলক্ষ্যায় লাশের খবর। লাশ ভাসার খবরে পাগলের মতো ছুটে আসে রোববার নিখোঁজ হওয়া ৭ পরিবারের স্বজনরা। যদিও স্বজনদের আগেই নদীর পাড়ে উৎসুক মানুষ ভিড় করে নদীর পূর্বপাড়ের কলাগাছিয়ার শান্তিনগর এলাকায়। যেখানে লাশগুলো ভাসছিল। বন্দর থানার ওসি আকতার মোর্শেদের নেতৃত্বে পুলিশ একে একে লাশগুলো উদ্ধার করে যখন তীরে নিয়ে আসছিল তখন নিখোঁজ ব্যক্তিদের স্বজনরা হুমড়ি খেয়ে লাশের সামনে। প্রথমে পাজামা-পাঞ্জাবি পরা এবং মুখে দাড়ি আছে এমন একজনের লাশ উদ্ধার করা হয়। পরে লাশটি নাসিকের প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলামের বলে শনাক্ত করেন নিহতের ছোটভাই আবদুস সালাম ও স্ত্রী সেলিনা ইসলাম বিউটি। পৌনে এক ঘণ্টা পর নজরুলের সহযোগী মনিরুজ্জামান স্বপনের লাশ শনাক্ত করে তার ছোট ভাই রিপন। ৩টি লাশের মধ্যে ২টি লাশ শনাক্ত হওয়ার খবরে ঘটনাস্থলের আশপাশে সাধারণ মানুষের ভিড় বাড়তে থাকে। এরপর নদী থেকে উদ্ধার হয় আরেকটি লাশ। পরে ওই লাশটি নিখোঁজ সিনিয়র আইনজীবী চন্দন সরকারের গাড়িচালক ্ইব্রাহিমের লাশ বলে শনাক্ত করে নিহতের ভাগ্নে আবুবকর ও সাঈদ। বিকাল পৌনে ৬টায় উদ্ধার হয় আরেকটি লাশ। লাশটি প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলামের সহযোগী তাজুল ইসলামের বলে শনাক্ত করে তার ভাই আনিস ও বোন শিরিন আক্তার। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় উদ্ধার হয় আরেকটি লাশ। লাশগুলো নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে নেয়ার পর রাত সোয়া ৮টার দিকে হাতের ব্রেসলেট ও কাপড়-চোপড় দেখে সিনিয়র আইনজীবী চন্দন সরকারের লাশ শনাক্ত করেন নারায়ণগঞ্জ জেলা বারের সভাপতি এডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান ও নিহতের ভাগ্নি। তবে ধারণা করা হচ্ছে ওই লাশটি নিহত প্যানেল মেয়রের বন্ধু লিটন অথবা গাড়িচালক জাহাঙ্গীরের।
প্রতিটি লাশ ভারি বস্তু দিয়ে বাঁধা
ঘাতকরা পরিকল্পিতভাবে অপহৃতদের হত্যাকান্ড ঘটিয়ে লাশ গুম করার সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়েছে। আর এজন্যই হত্যার পর লাশগুলো যাতে শনাক্ত বা পাওয়া না যায় সেজন্য প্রতিটি লাশের পেছন থেকে হাত ও পা বাঁধা হয়। এরপর প্লাস্টিকের বস্তায় সারিবদ্ধ করে ১২টি করে ইট ভরা হয়। সূক্ষ্মভাবে বস্তাটিকে একটি প্যাকেটে বানানো হয়। এরপর লাশের পায়ের সঙ্গে দু’টি করে ইটের ওই বস্তা বেঁধে দেয়া হয়। যাতে লাশগুলো ভেসে না ওঠে। তবে নিহত নজরুলের হাত পিঠ মোড়া করে এবং পা বাঁধা ছিল। লাশ যাতে ভেসে না ওঠে সেজন্য নজরুলের পেট ফেঁড়ে দেয়া হয়। তার মুখমন্ডল পলিথিন দিয়ে মোড়ানো ছিল। মনিরুজ্জামান স্বপনের একটি হাতের কয়েকটি আঙুল কাটা ছিল। আইনজীবী চন্দনের মুখ এসিড দিয়ে ঝলসে দেয়া হয়েছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে।
লাশ উদ্ধার করতে যাওয়া বন্দর থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) মোকাররম হোসেন সাংবাদিকদের জানান, এলাকাবাসীর খবর পেয়ে আমরা লাশ উদ্ধার করছি। প্রতিটি লাশই ইট দিয়ে বাঁধা ছিল। যেন লাশ ভেসে উঠতে না পারে তার জন্যই দুর্বৃত্তরা এটি করে থাকতে পারে। কারও কারও চেহারা ঠিকমতো বোঝা যাচ্ছে না। পাঞ্জাবি-পাজামা পরা লাশ (নজরুল ইসলাম)টি প্রথমে শান্তিনগর এলাকা থেকে উদ্ধার করা হয়। তিনি আরও বলেন, প্রতিটি লাশের হাত-পা বাঁধা ছিল। মুখ পলিথিন দিয়ে মোড়ানো ছিল। কোন সংঘবদ্ধ চক্রই এ ঘটনা ঘটিয়ে থাকতে পারে।
লাশ উদ্ধারের পর বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে এলাকাবাসী, পেট্রলপাম্পে আগুন, ভাঙচুর
এদিকে বিকাল ৩টার পর শীতলক্ষ্যা নদী থেকে প্যানেল মেয়র-২ নজরুল ইসলামের লাশ উদ্ধার হওয়ার খবরে আবারও রাস্তায় নামে নজরুলের সমর্থকরা। বিকাল ৪টার দিকে তারা সিদ্ধিরগঞ্জের সানারপাড় থেকে শিমরাইল মোড় পর্যন্ত ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক এবং আদমজী সালেহা সুপার মার্কেট থেকে শিমরাইল মোড় পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জ-চিটাগাং রোড সড়কের অর্ধশতাধিক পয়েন্টে টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ শুরু করে। তারা অপহরণকারী হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার ও ফাঁসি দাবি করে বিভিন্ন শ্লোগান দিতে থাকে। অবরোধের কারণে ওই দু’টি সড়কে সকল প্রকার যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এর আগে সকাল ১০টা থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত ৪ ঘণ্টা একই সড়ক অবরোধ করে রেখেছিল বিক্ষুব্ধ লোকজন। অবরোধের কারণে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয় ওই সড়কে। এতে চরম দুর্ভোগে পড়ে শ’ শ’ মানুষ। বেলা ২টা দিকে অবরোধকারীরা সড়ক থেকে সরে গেলে যানবাহন চলাচল শুরু হয়। কিন্তু লাশ উদ্ধারের পর ফের অবরোধের কারণে সিদ্ধিরগঞ্জের জীবনযাত্রা অনেকটা অচল হয়ে পড়ে। সিদ্ধিরগঞ্জ পুল, মিজমিজি, মৌচাক, সানারপাড়, শিমরাইল এলাকায় আতঙ্কে সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যায়। এক ভুতুড়ে নগরীতে পরিণত হয় ওই সব এলাকা। সন্ধ্যার আগ মুহূর্তে আদমজী ইপিজেডসহ আশপাশের শতাধিক ফ্যাক্টরি ছুটি হলে হাজার হাজার ঘরমুখো শ্রমিক-কর্মচারী ও কর্মকর্তারা আটকা পড়ে। অনেকেই নিরুপায় হয়ে পায়ে হেঁটে গন্তব্যের উদ্দেশে রওনা হন। এ সময় আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যদের কোন তৎপরতা চোখে পড়েনি। রাত সাড়ে ৭টার দিকে মৌচাক বাসস্ট্যান্ডে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী ইয়াছিন মিয়ার মালিকানাধীন সামস ফিলিং স্টেশনে আগুন ধরিয়ে দেয় নিহত নজরুলের সমর্থকরা। বিভিন্ন পয়েন্টে বিক্ষুব্ধ লোকজন কমপক্ষে অর্ধশতাধিক গাড়ি ভাঙচুর করে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক, ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক ও নারায়ণগঞ্জ-চিটাগাং রোড সড়কে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।
আইনজীবীদের ধারণা
নারায়ণগঞ্জের আইনজীবী নেতাদের ধারণা, কাউন্সিলর নজরুল ও তার সহযোগীদের অপহরণের ঘটনা এডভোকেট চন্দন দেখে ফেলায় গাড়িসহ (ঢাকা-মেট্রো-গ-২৭-৩৩৩৭) তাকে ও তার গাড়িচালক ইব্রাহিমকেও অপহরণ করে নিয়ে যায়। ঘটনার সাক্ষী যাতে না থাকে এ জন্য চন্দন সরকার ও তার গাড়িচালককে হত্যা করেছে ঘাতকরা। এডভোকেট চন্দন কুমার সরকারের ভাইপো এডভোকেট অরুনাথ কুমার সরকার জানিয়েছিলেন, ঘটনার দিন তার চাচা চন্দন সরকারের গাড়ি ও কাউন্সিলর নজরুলকে বহনকারী গাড়িটি আদালত প্রাঙ্গণ থেকে আগে পিছে বের হয়ে যেতে দেখেছেন তিনি।
সাদা পোশাকে আইনশৃংখলা বাহিনীর অভিযান বন্ধ
নারায়ণগঞ্জে প্যানেল মেয়র ও কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম ও আইনজীবী চন্দন সরকারসহ ৭ জন অপহরণের ঘটনার পরে সারা দেশে সাদা পোশাকে আইনশৃংখলা বাহিনীর অভিযান স্থগিত করা হয়েছে। বুধবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি মাহফুজুল হক নুরুজ্জামান। এছাড়া, ৭ জন অপহরণের ঘটনায় ঢাকা রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি (প্রশাসন) খন্দকার গোলাম ফারুককে প্রধান করে একটি ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।
কমিটির অপর দুই সদস্য হলেন নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) সাজ্জাদুর রহমান ও ঢাকা জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আশরাফুল আজিম।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com