রবিবার, ০৭ মার্চ ২০২১, ০৯:৩১ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
আজ ঐতিহাসিক ৭ মার্চ হবিগঞ্জে ড্যান্ডি নেশায় ঝুঁকছে টোকাই শিশুরা প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলীর সাথে মেয়র সেলিমের শুভেচ্ছা বিনিময় নয়া জেলা প্রশাসক ইসরাত জাহানের দায়িত্ব গ্রহণ এমপি পুত্র ইফাত জামিলের আইন বিষয়ে ¯œাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জন হবিগঞ্জ পৌর নির্বাচন ৭দিন আগে অনুষ্ঠিত হলেও শহরে বিরাজ করছে নির্বাচনী আমেজ! পোষ্টারে পোষ্টারে ছেয়ে আছে হবিগঞ্জ শহর ! এগুলো পরিস্কারের দায়িত্ব কার ? জন দূর্ভোগ ॥ নবীগঞ্জ-মুক্তাহার ব্রীজ বানিয়াচংয়ে প্রেমিকের ব্যবসা প্রতিষ্টানে প্রেমিকার অনশন ॥ সালিশে নিষ্পত্তির শর্তে মুরুব্বীদের জিম্মায় নবীগঞ্জে খোলা জায়গায় পশু জবাই করে বিক্রি ॥ পরিবেশ দুষিত হচ্ছেন পত্রিকায় লিখে কোন লাভ হবে না। কর্তারা তাদের ম্যানেজ নবীগঞ্জে অসহায় ব্যক্তির অর্ধশতাধিক গাছ কর্তন
নবীগঞ্জে আ.লীগে কাটা বিদ্রোহী বিএনপিতে মনোনয়ন ফ্যাক্টর

নবীগঞ্জে আ.লীগে কাটা বিদ্রোহী বিএনপিতে মনোনয়ন ফ্যাক্টর

এম এ বাছিত, নবীগঞ্জ থেকে ॥ আসন্ন ইউপি নির্বাচনে নবীগঞ্জের ১৩টি ইউনিয়নের মনোনয়নপত্র দাখিল ও বাচাই শেষে প্রচার-প্রচারণা জমে উঠেছে। ১২মে প্রত্যাহারের শেষ দিন এবং ১৩মে প্রতীক বরাদ্দ দেবে নির্বাচন কমিশন। ইতোমধ্যে কোমড় বেধে মাঠে চষে বেড়াচ্ছেন প্রার্থীরা। প্রথমবারের মত দলীয় প্রতীকে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন হওয়ায় প্রার্থী ও ভোটারদের মধ্যে অন্যরকম আকর্ষণ তৈরী হয়েছে। দলীয় প্রতীকপ্রাপ্ত প্রার্থীরা দলকে সুসংগঠিত করতে সাধারণ কর্মীদের সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রক্ষা করছেন। সেক্ষেত্রে সাধারণ কর্মীদের কদর শতগুণ বেড়ে গেছে। আগে যাদেরকে দেখলে এড়িয়ে যেতেন এখন তাদের মাথায় হাত বুলাচ্ছেন প্রার্থীরা। কোন কোন ক্ষেত্রে দলীয় আবার কোন কোন ক্ষেত্রে আঞ্চলিকতার সুরে বাঁশি বাজাচ্ছেন প্রার্থীরা।
এদিকে সাধারণ ভোটাররাও হিসাব কষছেন। হাট-মাঠে-ময়দানে এমনকি চায়ের কাপে ঝড় তুলছেন নির্বাচনী আলাপ নিয়ে। আওয়ামীলীগ না-কি বিএনপি, কোন প্রার্থীর অবস্থা কেমন এসব আলোচনাও চলছে।
সূত্রমতে ১৩ ইউনিয়নের ৩টিতে আওয়ামীলীগের একাধিক বিদ্রোহী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। বিএনপিতে বিদ্রোহী না থাকলেও মনোনয়ন বঞ্চিত অনেক ত্যাগি নেতাদের মধ্যে ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে। স্থানীয় ও রাজনৈতিক সূত্রে প্রকাশ, উপজেলা ও হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগ ১৩ প্রার্থীকে মনোনীত করে কেন্দ্রীয় দপ্তরে প্রেরণ করে। এর মধ্যে দুটি ইউনিয়নে প্রার্থী বদল হলেও নাটকীয়তা শেষে গজনাইপুর ইউনিয়নে ইমদাদুর রহমান মুকুলকে দলীয় প্রতীক দেয়া হয়। এখানে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি ও বর্তমান চেয়ারম্যান আবুল খায়ের গোলাপ। ১২নং কালিয়ারভাঙ্গা ইউনিয়নে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিল করেন বর্তমান চেয়ারম্যান মোঃ নজরুল ইসলাম। এখানে আওয়ামীলীগ প্রার্থী হিসেবে লড়ছেন ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি ইমদাদুল হক চৌধুরী। ৬নং কুর্শি ইউনিয়নে দলীয় মনোনয়ন লাভ করেন যুক্তরাজ্য প্রবাসী সাবেক যুবলীগ নেতা আলী আহমদ মুছা। বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে মনোনয়পত্র দাখিল করেছেন জাতীয় পার্টির স্থানীয় সংসদ সদস্য এম এ মুনিম চৌধুরী বাবু সহোদর যুবলীগ নেতা আবদুল বাছিত চৌধুরী ও অপর যুক্তরাজ্য প্রবাসী যুবলীগ নেতা আবদুল মুকিত। ৭টি ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের শক্তিশালী প্রার্থী মনোনয়ন দেয়া হলেও কয়েকটিতে বিদ্রোহ দেখা দেয়।
এদিকে, বিএনপির প্রার্থী মনোনয়ন নিয়ে তুমুল নাটকীয়তা দেখা দেয়। ১২ ইউনিয়নে স্থানীয় বিএনপির দেয়া প্রার্থী তালিকা থেকে ৪টি পরিবর্তন করে কেন্দ্রীয় বিএনপি। এনিয়ে প্রকাশ্য বিভক্তি দেখা দেয়। ৪নং দীঘলবাক ইউনিয়নে প্রার্থী মনোনয়নে ব্যর্থ হন স্থানীয় বিএনপি। ৯নং বাউশা ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান আনোয়ারুর রহমানের পরিবর্তে সাবেক যুবদল নেতা মজিদুল করিম মজিদকে মনোনীত করে কেন্দ্রীয় বিএনপি। ২নং পূর্ব বড়ভাকৈড় ইউনিয়নে থানা বিএনপির সহ-সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান আশিকুর রহমান আশিকের মনোনয়ন বাতিল করা হয়। অপরিচিত মুখ হাবিবুর রহমানকে দলীয় মনোনয়ন দেয় কেন্দ্রীয় বিএনপি। ১০ নং দেবপাড়া ইউনিয়নে বিএনপির এডভোকেট জালাল আহমদকে প্রাথমিক ভাবে মনোনয়ন দেয় স্থানীয় বিএনপি। কেন্দ্রের তরফ থেকে ওই মনোনয়ন বাতিল করে থানা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম সাধারন সম্পাদক আমীর হোসেনকে মনোনয়ন দেয়া হয়। ১১নং গজন্ইাপুর ইউনিয়নে প্রাথমিকভাবে মনোনীত হন ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি শফিউল আলম বজলু। তার পরিবর্তে চুড়ান্ত মনোনয়ন লাভ করেন ইউপি সদস্য ও যুবদল নেতা শাহ মোস্তাকিম। এছাড়াও ৬নং কুর্শি ইউনিয়নে বিএনপির বিদ্রোহী হিসেবে প্রার্থী রয়েছেন ইউনিয়ন বিএনপির সহ-সভাপতি মীর্জা আলী আজম রায়হান খাদিম। এখানে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে লড়ছেন সদ্য যোগদানকারী ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ খালেদুর রহমান খালেদ।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com