মঙ্গলবার, ০৯ মার্চ ২০২১, ০৬:৫৭ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
সাতছড়িতে রকেট লাঞ্চারের ১৮টি গোলা নিস্ক্রিয় করলো সেনাবাহিনী মতবিনিময় সভায় নবাগত জেলা প্রশাসক ॥ দেশ ও জাতির উন্নয়ন অগ্রযাত্রায় সাংবাদিকদের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ আবু জাহির এমপি’র সাথে নবনির্বাচিত হবিগঞ্জ পৌর পরিষদের সৌজন্য সাক্ষাৎ নারী দিবসের চেতনায় সবাইকে উজ্জীবিত হওয়ার আহ্বান জেলা প্রশাসকের ৪নং ওয়ার্ডের মুরুব্বীয়ানদের সাথে মেয়র সেলিমের শুভেচ্ছা বিনিময় নূর মডেল কেজি এন্ড হাই স্কুলের শিক্ষা সফর সম্পন্ন নবীগঞ্জ উপজেলা মাসিক আইন শৃঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্টিত বিদায়ী জেলা প্রশাসককে তাসনুভা-শামীম ফাউন্ডেশনের সম্মাননা স্মারক প্রদান হবিগঞ্জে আরো ৫৩৪ জন করোনা টিকা নিয়েছেন মাধবপুরে আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালিত
ঝড়ে সারা জেলায় মানবিক বিপর্যয় হাজারো পরিবার আশ্রয়হীন ॥ সরকারীভাবে নিরূপণ হয়নি ক্ষয়ক্ষতি

ঝড়ে সারা জেলায় মানবিক বিপর্যয় হাজারো পরিবার আশ্রয়হীন ॥ সরকারীভাবে নিরূপণ হয়নি ক্ষয়ক্ষতি

স্টাফ রিপোর্টার ॥ শনিবার রাতে হবিগঞ্জের সর্বত্র কালবৈশাখীর তাণ্ডবে ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়েছে। জেলার সর্বত্রই অসংখ্য কাঁচা বাড়িঘর ভেঙে পড়েছে। লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে গাছপালা। বিদ্যুতের খুটি উপড়ে পড়ে বিপর্যস্থ হয়ে পড়ে বিদ্যুত ব্যবস্থা। রাতভর গোটা জেলা ছিল অন্ধকারে। ঝড়ের সময় সড়কে চলাচলকারী যানবাহন উল্টে যাত্রী ও চালক আহত হয়েছে। এছাড়া ঘরচাপা পড়েও অসংখ্য মানুষ আহত হয়েছে। কোন কোন এলাকায় শিলাবৃষ্টিতে ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ওই দিনের ঝড়ে চরম মানবিক বিপর্যয় ঘটেছে। হাজারো পরিবার আশ্রয়হীন হয়ে পড়েছে। এসব পরিবার নতুন করে ঘর তৈরী করবে এমন সামর্থ্য অনেকের নেই। এতে করে শিশু মহিলা নিয়ে বিপাকে পড়েছে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলো। তবে গতকাল রবিবার বিকালে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত প্রশাসনের পক্ষ থেকে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নিরূপণ করা সম্ভব হয়নি।
DSC05037 copyওই দিন রাত প্রায় ৮টার দিকে কালবৈশাখীর ঝড় আঘাত হানে। প্রায় ২০মিনিট স্থায়ী এ ঝড়ে মানবিক বিপর্যয় ঘটে। এমন কোন গ্রাম নেই যেখানে ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়নি। ঝড়ের কবলে পড়ে আহত হওয়া হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রিচি গ্রামের আহাদ মিয়া জানান, তারা ইজিবাইকে করে শহরের গরুর বাজার এলাকা থেকে কোর্ট স্টেশন যাচ্ছিলেন। হঠাৎ প্রচন্ড ঝড়ে তাদের বহনকারী ইজিবাইকটি উড়িয়ে পার্শ্ববর্তী খাদে নিয়ে যায়। এতে তারা আহত হন। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক শাহ আলম জানান, ঝড়ে তেমন ক্ষয়ক্ষতি না হলেও শিলাবৃষ্টিতে মাধবপুরে ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। উপজেলার ১৫শ’ হেক্টর বোরো ধান, ১শ’ হেক্টর শাকসবজি ও ৪০ হেক্টর তরমুজ খেত নষ্ট হয়েছে।
জেলা প্রশাসক মো. জয়নাল আবেদীন জানান, এখনও পর্যন্ত ক্ষয়ক্ষতির তালিকা পাওয়া যায়নি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদেরকে ক্ষয়ক্ষতির তালিকা তৈরির জন্য বলা হয়েছে।
বানিয়াচং প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা জানান, ইউপি চেয়ারম্যানদের ক্ষয়ক্ষতির তালিকা দিতে বলা হয়েছে। তালিকা পাওয়ার পর যাচাই বাছাই করে ত্রাণ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে।
আমাদের চুনারুঘাট প্রতিনিধি জানান, শনিবার রাতে উপজেলার উপর দিযে বয়ে যাওয়া কাল বৈশাখী ঝড়ে ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়েছে। অসংখ্য কাচা ঘরবাড়ি ও শত শত গাছপালা ভেঙ্গে পড়েছে। লন্ডভন্ড হয়ে গেছে বিদ্যুৎ ব্যবস্থা। ঝড়ের ২০ ঘন্টা পর গতকাল রবিবার বিকেল ৫টায় পৌর শহরে সীমিত আাকরে বিদ্যুৎ ব্যবস্থা চালু হলেও পুরো উপজেলা রয়েছে অন্ধকারে। শিলাবৃষ্টিতে উপজেলার বোরো ফসলের ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়েছে।
শনিবার রাত ৮টার দিকে কাল বৈশাখী ঝড় শুরু হয়। ঘন্টাব্যাপী ঝড়ে উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন ও পৌরসভার বিভিন্ন এলাকায় অসংখ্য কাচা ঘর এবং শত শত গাছপালা ভেঙ্গে পড়েছে। অসংখ্য বিদ্যুতের খুটি ভেঙ্গে পড়ার পাশাপাশি বিদ্যুতের তারের উপর গাছপালা ভেঙ্গে পড়ায় শনিবার রাত থেকে উপজেলা অন্ধকারে রয়েছে। বিদ্যুৎ বিভাগ ২০ ঘন্টা চেষ্ঠার পর বিকেলে চুনারুঘাট পৌর এলাকায় বিদ্যুৎ ব্যবস্থা চালু করলেও উপজেলার অধিকাংশ ইউনিয়ন রয়েছে অন্ধকারে। বিদ্যুৎ বিভাগ জানিয়েছে আজ সোমবার পর্যন্ত বিদ্যুৎ সমস্যা সমাধান হতে পারে। এদিকে সামান্য বাতাস এলেই বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে পড়ে। গত ৩ দিনে মাত্র এক তৃতীয়াংশ সময়ও বিদ্যুৎ সরবরাহ করা সম্ভব হয়নি। ঝড়ে উপজেলার বোরো ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com