শনিবার, ০৬ Jun ২০২০, ০২:৫৬ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
শ্রীমঙ্গলে একই ঘরে মা ও মেয়ের রহস্যজনক মৃত্যু নবীগঞ্জে স্বাভাবিক জীবনে ফিরছে মানুষ মুখে মাস্ক বিহীন অবাধে চলাচল শুরু নবীগঞ্জে ঢাকা থেকে বাড়ি ফেরত ব্যক্তি করোনা আতঙ্কে দ্বন্দ্ব, সংঘর্ষে আহত ১৫ নবীগঞ্জে মরহুম সাংবাদিক সোহেলের পরিবারের পাশে এমপি মিলাদ গাজী মাধবপুরে ভারতীয় গাঁজাসহ ৩ পাচারকারী আটক নবীগঞ্জের নহরপুরে জামে মসজিদ নিয়ে বিদ্যমান দু’দশকের বিরোধের অবসান লক্ষাধিক টাকার মাদকদ্রব্যসহ মাধবপুরের ২ ব্যবসায়ীসহ আটক ৪ হবিগঞ্জে বিদ্যুৎকর্মীর মৃত্যুর ৫ দিন পর জানা গেলো তিনি করোনা পজেটিভ চুনারুঘাটে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় ৩জন আহত বাহুবল ও আজমিরীগঞ্জে বজ্রপাতে ৩ কিশোর নিহত
সংসদ নির্বাচনে বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জ আসনে সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড়-ঝাপ ঃ প্রার্থী তালিকায় বিএনপি ৪জন, আওয়ামীলীগের ৬ জন

সংসদ নির্বাচনে বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জ আসনে সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড়-ঝাপ ঃ প্রার্থী তালিকায় বিএনপি ৪জন, আওয়ামীলীগের ৬ জন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দেশের সাধারণ মানুষ প্রতিবারই প্রকৃত দেশপ্রেমিক প্রার্থীর সন্ধান করেন। তবে  রাজনৈতিক প্রক্রিয়া, দলীয় ও ব্যক্তিগত প্রভাবসহ বিভিন্ন কারনে তা আর হয়ে উঠেনা। যে কারনে তৃণমুল জনগনের ইচ্ছার বিরুদ্ধে বাধ্য হয়েই সেই সব নেতাদের নির্বাচিত করতে হয়। যোগ্য ও দক্ষ জনপ্রতিনিধির অনুপস্থিতিতে সরকার ও বিদেশী সংস্থাগুলো প্রতি বছর দেশের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ডে যে বরাদ্দ দেয় তা যথাযথ বাস্তবায়ন সম্ভব হয়না। এতে বিপুল সম্ভাবনা কাজে লাগাতে ব্যর্থ হয়ে পিছিয়ে যাচ্ছে দেশ ও জাতি। জনপ্রতিনিধিদের নিকট বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশের জনগনের প্রত্যাশা অনেক বেশী। নির্বাচনের সময় প্রার্থীরা নানা প্রতিশ্র“তি জনগনের সেই প্রত্যাশাকে অনেক গুন বাড়িয়ে তোলে। অথচ নির্বাচিত হওয়ার পর জনপ্রতিনিধিদের স্বচ্ছতা, যোগ্যতা, কর্মদক্ষতা, এলাকার উন্নয়নের ক্ষেত্রে আন্তরিকতা, দলীয় কোন্দল সহ নানাবিধ কারনে সেই সকল প্রত্যাশা পূরণে ব্যর্থ হন। সঙ্গত কারনেই জনগণ আবারও নতুন মুখের সন্ধান করে। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও হবিগঞ্জ-২ (আজমিরিগঞ্জ-বানিয়াচং) আসনে এই অবহেলিত এই জনপদের সাধারণ মানুষের প্রত্যাশা অনেক। তাদের প্রশ্ন  কে পারবেন তাদের এই প্রত্যাশা পূরণ করতে ?
জাতীয় সংসদের আসন নং ২৪০ হবিগঞ্জ-২ (আজমিরিগঞ্জ-বানিয়াচং) আসনে ভোটার সংখ্যা ২ লাখ ৫৩ হাজার ৭শ ৪৯ । ১৯৭৯ সালে বিএনপি প্রার্থী জনাব আলী নির্বাচিত হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন আওয়ামীলীগের প্রার্থী শরীফ উদ্দিন। ১৯৯১ সালে এ আসনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী শরীফ উদ্দিন ৫০ হাজার ৩শ ৯৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি বিএনপির প্রার্থী জাকারিয়া খান চৌধুরী পেয়েছেন ৪০ হাজার ২৫ ভোট। ৯৬ সালে আওয়ামীলীগ প্রার্থী সুরঞ্জিত সেন গুপ্ত ৭২ হাজার ৯শ ২৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি সিরাজুল হোসেন খান  পেয়েছেন ৩৯ হাজার ৩২ ভোট। ২০০১ সালে আওয়ামীলীগ প্রার্থী নাজমুল হাসান জাহেদ ৫০ হাজার ৩শ ৬১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। মাত্র ৩শ ৪৭ ভোট কম পেয়ে বিএনপি প্রার্থী এডভোকেট নুর”ল আমীন পরজিত হন। ২০০৮ সালে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী এডভোকেট মোঃ আব্দুল মজিদ খান ১ লাখ ২২ হাজার ২৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি বিএনপির প্রার্থী ডাঃ সাখাওয়াত হাসান জীবন পেয়েছেন ৬৭ হাজার ৫৯ ভোট। এ আসনে বিএনপি থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী রয়েছেন শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের প্রাক্তন উপদেষ্টা জাকারিয়া খান চৌধুরী, বিএনপি সিলেট বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ডাঃ সাখাওয়াত হাসান জীবন, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান এডভোকেট নুরুল আমীন চৌধুরী, সাবেক এমপি এডভোকেট জনাব আলীর পুত্র এডভোকেট তকদির মোঃ বেনজির জনাব। তন্মধ্যে ডাঃ সাখাওয়াত হাসান জীবন দীর্ঘদিন যাবত দলীয় কর্মকান্ড ও গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। তবে জাকারিয়া খান চৌধুরী এলাকায় একজন পরিচ্ছন্ন রাজীতিবিদ হিসেবে এবং রাজনৈতিক পরিবারের লোক হিসেবে সুপরিচিত রয়েছেন। বিগত ৫ বছরে পাল্টে গেছে ভোটের হিসেব। কয়েক বছরে জাতীয় ও স্থানীয় ইস্যুর কারনে নৌকার ইমেজ আগের মতো নেই। ইতিমধ্যে তাকে প্রার্থী না দেয়ার জন্য তৃণমূলের ব্যানারে হয়েছে মিছিল-সমাবেশ। তবে আওয়ামীলীগের জন্য সবচেয়ে বড় সম্ভাবনা ও চ্যালেঞ্জ এখন আওয়ামী লীগের আধা ডজনের বেশী মনোনয়ন প্রত্যাশী রয়েছেন। আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসেবে যারা নানাভাবে লবিং করছেন তারা হলেন জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আব্দুল মজিদ খান, সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের প্রথম নির্বাচিত সম্পাদক, শাবিপ্রবি শাখা ছাত্র ইউনিয়নের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও বৃটিশ সরকারের সাবেক প্রিন্সিপাল পলিসি অফিসার ড. মোহাম্মদ শাহ্ নেওয়াজ, সাবেক এমপি মরহুম শরীফ উদ্দিন আহমদ এর জেষ্ঠ্য পুত্র যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মিনহাজ উদ্দিন শরীফ রাসেল, ঢাকার বিশিষ্ট শিল্পপতি আমজাদ হোসেইন ফনিকস্, জেলা আওয়ামী লীগ নেতা এডভোকেট চৌধুরী আবুবকর ছিদ্দিকী, বানিয়াচং উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আমির হোসেন মাস্টার।
দেশে সংসদীয় গণতন্ত্র চালু হওয়ার পর ১৯৯১ সাল থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত পর পর ৪টি নির্বাচনেই এখানে বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়েছেন নৌকার প্রার্থীরা। যে কারণে এ আসনটিকে আওয়ামীলীগের ঘাটি হিসেবেই বিবেচনা করা হয়।
আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী সকলেই এলাকায় গণসংযোগের পাশাপাশি জোর লবিং চালাচ্ছেন হাইকমান্ডের সঙ্গে। এডভোকেট আব্দুল মজিদ খান এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর প্রত্যন্ত অঞ্চলের শিক্ষা, স্বাস্থ্য, যোগাযোগ, হাওর অঞ্চলের জীবন-মান উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছেন।  তবে বানিয়াচং সদরের ৪টি ইউনিয়নে যতটা উন্নয়নের সম্ভাবনা ছিল তুলনামূলকভাবে তা হয়নি। এলাকার একমাত্র ডিগ্রী কলেজ জনাব আলী ডিগ্রী কলেজ এখন বেহাল অবস্থা। বানিয়াচং গ্রামের খালগুলো ভরাট করে বেদখল করার বদৌলতে উপজেলা সদরে একটু বৃষ্টি হলেই দেখা দেয়া জলাবদ্ধতা। এ সকল কারনে এলাকাবাসী অনেকটাই হতাশ। এ আসন ধরে রাখার জন্য তিনি নৌকা প্রতীকে ভোট চেয়ে সভা-সমাবেশ করে চলেছেন প্রতিদিন। সবকিছুর পরও বর্তমান এমপি আব্দুল মজিদ খান দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার ব্যাপারে আস্থাশীল।  যদিও এ মূহুর্তে তিনি পড়েছেন মহাবিপাকে। সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের প্রথম নির্বাচিত সম্পাদক, শাবিপ্রবি শাখা ছাত্র ইউনিয়নের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও  ব্রটিশ সরকারের সাবেক প্রিন্সিপাল পলিসি অফিসার ড. মোহাম্মদ শাহ্ নেওয়াজ একজন শিানুরাগী ও সমাজসেবক এলাকায় দীর্ঘদিন যাবত কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি ১৯৯১ সাল থেকে যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগের কর্মকান্ডের সাথে প্রত্যভাবে জড়িত রয়েছেন। বানিয়াচং আইডিয়াল কলেজের প্রতিষ্ঠাতা দাতা সদস্য ড. শাহনেওয়াজ এর অর্থায়নে ২০০৭ সাল থেকে বানিয়াচং আদর্শ স্কুলের গরীব ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ায় উৎসাহিত করার জন্য প্রতি বছর বৃত্তি প্রদান করে আসছেন। তাছাড়া এলাকার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মসজিদ ও মক্তব-মাদ্রসার সার্বিক উন্নয়নে সহযোগিতা করছেন। ড. মুহাম্মদ শাহ্ নেওয়াজ প্রার্থী হিসেবে নতুন মুখ হলেও জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে এ নামটি সর্বসাধারণের নিকট আলোচিত হচ্ছে বেশি। স্বচ্ছ ইমেজের অধিকারী, তারুণ্যের প্রতিকৃত, বাংলাদেশ, ইউরোপ ও আমেরকার নামিধামী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উচ্চ  শিক্ষায় শিক্ষিত ড. শাহনেওয়াজের রয়েছে দেশ-বিদেশে বিশাল পরিচিতি। দেশের সুশীল সমাজ, পেশাজীবী, ব্যবসায়ী মহল ও কুটনৈতিক জগতেও তার রয়েছে সরব পদচারণা। দীর্ঘদিন বৃটিশ সরকারের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা হিসেবে চাকুরী করার সুবাধে পশ্চিমা বিশ্বে গ্রহণযোগ্য একটি অবস্থান তৈরী করে নিয়েছেন তিনি। অনেকের ধারণা, দীর্ঘ দিনের সঞ্চিত অভিজ্ঞতা ও মেধা-প্রজ্ঞাকে কাজে লাগিয়ে অবহেলিত-বঞ্চিত হাওর অঞ্চলের সার্বিক উন্নয়নে তার পক্ষে অগ্রণী ভূমিকা রাখা সম্ভব। এলাকায় একজন সজ্জন ও সুবক্তা হিসেবে রয়েছে তার স্বতন্ত্র পরিচিতি। দলীয় হাই কমান্ডে ভাল যোগাযোগ ও সুসম্পর্ক থাকায় আগামী নির্বাচরেন তার প্রার্থী হওয়ার সমূহ সম্ভাবনা রয়েছে। এ ব্যাপারে স্থানীয় লোকজন জানান, এলাকার সর্বজন গ্রহণযোগ্য, স্বচ্ছ ইমেজের অধিকারী ড. শাহনেওয়াজকে মনোনয়ন দেয়া হলে তার বিজয় নিশ্চিত হবে। পাশাপাশি এলাকার উন্নয়ন কর্মকান্ড ত্বরান্বিত হবে। বানিয়াচং উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি, ত্যাগী ও প্রবীণ আওয়ামীলীগার মুক্তিযোদ্ধা আমির হোসেন মাস্টারও এলাকায় একজন সুপরিচিত ব্যক্তি। গত নির্বাচনেও তিনি প্রার্থী হতে চেয়েছিলেন। শেখ হাসিনার আশ্বাসে সে সময় তিনি পিছু হঠেন। এবার তাকে  প্রার্থী করা হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধের রণাঙ্গনে যেভাবে সাহসী ভূমিকা রেখেছেন, ঠিক সেইভাবে দলকেও আগলে রেখেছেন। পাশপাশি এলাকার শিক্ষাসহ বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ডে তার যথেষ্ট ভূমিকা রয়েছে। আরেক সম্ভাব্য প্রার্থী সাবেক সংসদ সদস্য মরহুম শরীফ উদ্দিনের পুত্র মিনহাজ উদ্দিন শরীফ রাসেল। পারিবারিক ঐতিহ্য, ভদ্র ও বিনয়ী স্বভাবের কারণে মনোনয়ন দৌড়ে তিনিও রয়েছেন অনেকটা এগিয়ে। এ আসনের সাবেক এমপি মরহুম শরীফ উদ্দিনের মতোই পরিচ্ছন্ন রাজনীতির সাথে জড়িত রয়েছেন এলাকায় ও অন্যান্য স্থানে। ঢাকার বিশিষ্ট শিল্পপতি আওয়ামীলীগ নেতা আমজাদ হোসেইন ফনিক্সও আওয়ামীলীগের সম্ভাব্য প্রার্থী। গণসংযোগ, প্রচার-প্রচারণা ও বিভিন্ন দূর্যোগকালে মানুষের পাশে দাড়ানোসহ বিভিন্ন কাজে তিনিও রয়েছেন সমানতালে।জেলা আওয়ামীলীগের আরেক ত্যাগী নেতার নাম এডভোকেট চৌধুরী আবু বকর সিদ্দিকী। গত নির্বাচনে এডভোকেট আব্দুল মজিদ খানকে ছাড় দিয়েছিলেন এবার প্রার্থী হওয়ার আশায়। সহজে তিনি মাঠ ছেড়ে দেবেন এমনটিও বলা যাচ্ছেনা। তবে হবিগঞ্জ জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক শংকর পালকে এ আসন থেকে দলীয় মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। তিনি দীর্ঘদিন যাবত দলীয় ও ব্যক্তিগতভাবে জয়ের আশা নিয়ে এলাকায় কাজ করে যাচ্ছেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com