শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ০২:৪১ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
বানিয়াচং-হবিগঞ্জ সড়কে সিএনজি ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে শিশুর মৃত্যু ॥ আহত ৩ গণভবনে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে কৃতজ্ঞতা জানালেন জেলা আওয়ামীলীগের নতুন সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নবীগঞ্জে কম দামে পেঁয়াজ ক্রয় করতে থানার সামনে ভীড় হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে অ্যাডভোকেট আলমগীর চৌধুরীর চমক মাথায় কাপনের কাপড় ও হাতে লাঠি নিয়ে জেলা ছাত্রদলের বিক্ষোভ হবিগঞ্জ লায়ন্স ক্লাবের নেতৃবৃন্দ ভারতের চেন্নাইয়ে মিনি ইন্টারন্যাশনাল লায়ন্স কনভেনশনে যোগদান করবেন হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের নয়া সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আলমগীর চৌধুরীর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ সাংবাদিক ইমদাদকে হত্যার হুমকির প্রতিবাদে বানিয়াচংয়ে মানববন্ধন মাধবপুর পৌরসভা ও চৌমুহনী ইউনিয়নে তরুণ শিল্পপতি সৈয়দ সাজ্জাদ আহমেদের দরিদ্রদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ নবীগঞ্জ পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ড বিএনপির নির্বাচন কমিশন গঠন
বানিয়াচং উপজেলার ১৫নং পইলারকান্দি ইউনিয়নে ॥ ঘরোয়া ভাবেই ২০১৪-১৫ অর্থবছরের বাজেট সম্পন্ন

বানিয়াচং উপজেলার ১৫নং পইলারকান্দি ইউনিয়নে ॥ ঘরোয়া ভাবেই ২০১৪-১৫ অর্থবছরের বাজেট সম্পন্ন

এম কাউছার আহমেদ ॥
ওয়ার্ড সভা কি জানেনা কেউ। কি হয় এখানে তাও জানেনা কেউ। ওয়ার্ড সভা সম্পর্কে এমনই অজ্ঞাত হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলার পৈলারকান্দি ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রামের মানুষ। এখানে হয় নি কোন ওয়ার্ড সভা। করা হয় না উন্মুক্ত বাজেট ঘোষনা। অনেকটা লোক চোখের আড়ালেই সম্পন্ন করা হয় বাজেট। এমন তথ্য জানালেন পৈলারকান্দি গ্রামের বাসিন্দা নাম প্রকাশ না করার শর্তে ৩০ বছরের এক যুবক। তিনি জানান, পৈলারকান্দি ইউনিয়নের মানুষ খুব অবহেলিত। এখানে জনপ্রতিনিধিরা নির্বাচিত হন ভোটারদের স্বপ্ন দেখিয়ে কিন্তু নির্বাচনের পর তারা আর জনসাধারণের খবর রাখেন না। প্রয়োজনীয় কাজেও তাদের খুঁজে পাওয়া যায় না।
তৃণমূল সাধারণ জনগনের সম্পৃক্ততায় যে বাজেট ঘোষনার কথা তা এভাবে করা হয় কেন? এমন প্রশ্ন সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের একজন সদস্য’র। তিনি বলেন এটা অত্যন্ত দুঃখজনক যে, মানুষ ওয়ার্ড সভা সম্পর্কে কিছুই জানেনা। আমরা এখনও অনেক দিক থেকে পিছিয়ে আছি নানা সমস্যার কারণে।
তবে এ ব্যাপারে ইউনিয়ন সচিব-জিলু মিয়া জানান-চলতি অর্থ বছরে বাজেট সভা করার পূর্বে ৯টি ওয়ার্ডে ১৮টি ওয়ার্ড সভা করে সকলের সমন্বয়ে উন্মুক্ত বাজেট সভা করা হয়।
তিনি জানান-চলতি বছরের মে মাসে ইউপি চেয়ারম্যান খোয়াজ আলীর সভাপতিত্বে ২০১৪-১৫ অর্থ বছরের আনুষ্ঠানিক বাজেট অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। সভায় মোট আয় ধরা হয়েছে ৫৫ লাখ ৫১ হাজার ৬৬৮ টাকা। ব্যয় ধরা হয়েছে ৫৫ লাখ ৫১ হাজার ৬৬৮ টাকা। এতে ইউনিয়ন পরিষদের সকল সদস্য ও সদস্যাগণ ছাড়াও এলাকার বিপুল সংখ্যক নারী-পুরুষ অংশগ্রহণ করেন। বাজেট ঘোষণাকালে তাদের এলাকার সমস্যার কথা তুলে ধরেন।
তিনি বলেন-বাজেট ঘোষনার সময় ইউনিয়ন পরিষদের কোন খাত থেকে কত টাকা আয় হবে তা বিস্তারিত তুলে ধরা হয়। আয়ের উৎস সম্পর্কে বলা হয়েছে ইউনিয়ন পরিষদের নিজস্ব আয়, হোল্ডিং ট্যাক্স (বকেয়াসহ) ইত্যাদি, সরকারী আয়ে বলা হয়েছে থোক বরাদ্দ, এলজিএসপি, ভাতা বা বেতন এবং উৎসব ভাতা।
অপর দিকে-চলতি বছরের গত এপ্রিল মাসে পৈলারকান্দি ইউনিয়নের একমাত্র ৯নং ওয়ার্ডে ইউনিয়ন বাজেটের পূর্বে ওয়ার্ড সভা করা হয় বলে জানান ইউপি সদস্য দেবী চাদ দাশ। সভায় রাস্তাঘাট, ফেরি ও কৃষি খ্যাত নিয়ে বিভিন্ন আলোচনা করা হয়। কিস্তু স্থানীয় নানা সমস্যার কারণে তা সফলতার মুখ দেখেনি।
১৫নং পৈলারকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান খোয়াজ আলী জানান, ২০১৪-১৫ অর্থ বছর মে মাসেই তার ইউনিয়ন পরিষদে উন্মুক্ত বাজেট ঘোষনা করা হয়। বাজেট নিয়ে উন্মুক্ত আলোচনায় বিভিন্ন সমস্যা ও সম্ভাবনার কথা উঠে আসে। তিনি বলেন-জনগণ বাজেট সম্পর্কে এখন অত্যন্ত সচেতন। তারা বাজেট বক্তৃতায় নিজেদের সমস্যাসহ, এলাকার সমস্যা, জনপ্রতিনিধিদের অপারগতা তুলে ধরে এর সমাধান চায়।
তিনি আরো জানান, এডিবির অর্থ প্রাপ্তি সাপেক্ষে বাজেটের বাস্তবায়ন করা হয়। অনেক ক্ষেত্রে এডিবি পর্যাপ্ত অর্থ বরাদ্দ পাওয়া যায় না। সেক্ষেত্রে বাজেটে প্রণীত অনেক প্রকল্পের কাজ বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয় না।
ওয়ার্ড সভা সম্পর্কে বানিয়াচং উপজেলার ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা এবিএম মশিউর রহমান এর সাথে আলোচনাকালে তিনি বলেন-সাধারণ জনগণের ক্ষমতায়নের স্বার্থে প্রতিটি ইউনিয়নে বাজেটের পূর্বে ওয়ার্ড সভা করার আইনগত বিধান রয়েছে। তিনি বলেন-যদি কোন ইউনিয়নে ওয়ার্ড সভা না করে বাজেট ঘোষনা করা হয় তাহলে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের বিরুদ্ধে তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
বানিয়াচং উপজেলা চেয়ারম্যান শেখ বশীর আহমেদ বলেন-ইউনিয়ন পরিষদের বাজেট ঘোষনার পূর্বে অবশ্যই সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের প্রতিটি ওয়ার্ডে ২টি করে ওয়ার্ড সভা করে বাজেটের খসড়া প্রণয়ন করতে হবে। পরে সকলের সমন্বয় ও পর্যালোচনার ভিত্তিতে বাজেট পেশ করতে হবে। বাজেট সভায় উপস্থিত জনসাধাণের মতামতের গুরুত্ব দিতে হবে।
এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ জেলা ইউপি চেয়ারম্যান সমিতির সভাপতি ও বানিয়াচং সদর দণিক্ষ-পশ্চিম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী বলেন-স্থানীয় সরকার ২০১০ অনুযায়ী ইউনিয়ন পরিষদে উন্মুক্ত সভার মাধ্যমে জনগণের মতামত নিয়ে খসড়া বাজেট প্রনয়ণ করে জেলা প্রশাসনের অনুমোদন নিতে হয়। তিনি বলেন-ইউনিয়ন পরিষদের উন্মুক্ত বাজেটের পূর্বে প্রত্যেক ওয়ার্ডে ২টি করে ওয়ার্ড সভা করার আইনত বিধান রয়েছে। তবে ভৌগলিক, আঞ্চলিকতা ও সামাজিক সম্প্রীতিহীনতার কারণে অনেক ইউনিয়নের ওয়ার্ড সভা করা সম্ভব হয় না।
সচেতন মহল মনে করে-শুধু জনগণের সামনে আনুষ্ঠানিকভাবে বাজেট ঘোষণা করলেই হবে না। এই বাজেটের বাস্তবায়ন করাও জরুরী। কারণ সবার সামনে বাজেট ঘোষণা করে একটি পরিকল্পনা গ্রহণ করা হলো কিন্তু তা বাস্তবায় হলো না। এতে এলাকাবাসীর মনে ওপেন বাজেট ঘোষণার বিষটি প্রহসনে পরিণত হয়। তাই এলাকার সাধারণ নারী-পুরুষের ধারনা ইউনিয়ন পরিষদের উন্মুক্ত বাজেটে গৃহীত পরিকল্পনার শতভাগ বাস্তবায়ন হওয়া উচিত। তাহলে উন্মুক্ত বাজেট আলোচনা আরো অধিক কার্যকর হবে।
ইউনিয়ন পরিষদ সংক্রান্ত প্রথম পূর্নাঙ্গ আইন ১৯৮৩ সালে প্রণয়ন করা হয়। পরে তা সংশোধন করে ৪৭ ধারায় বাজেটে আয় ব্যয় সম্পর্কে বলা হয়েছে। এই আইনের ৫১ ধারায় ইউনিয়ন পরিষদকে জেলা প্রশাসকের অনুমোদন সাপেক্ষে একটি উন্নয়ন পরিকল্পনা প্রনয়নের ক্ষমতা প্রদান করা হয়। যার ফলে ২০০৯ সালের ইউপি আইনে ওয়ার্ড ভিত্তিক উন্মুক্ত বাজেট প্রনয়ন বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্বপ্রথম একটি আইনি সুরাহা পায়।
২০০৮ সালে জারিকৃত খএঝচ প্রকল্পের পরিকল্পনা নির্দেশিকায় ওয়ার্ড পরিকল্পনার ভিত্তিতে ইউনিয়ন পরিষদের কেন্দ্রিয় বাজেটের খসড়া তৈরী করার কথা বলা হয়। যাহা আবার উন্মুক্ত সভার মতামতের ভিত্তিতে চুড়ান্ত হবে। কিন্তু বাস্তবে এর প্রতিফলন দেখা যায় না।
জেলা শহর হবিগঞ্জ থেকে প্রায় ২৫ কিলোমিটার দূরত্বে বানিয়াচং উপজেলার ১৫নং পৈলারকান্দি ইউনিয়ন অবস্থিত। ৩৮.৬৪ বর্গ কিলোমিটার আয়াতনের এ ইউনিয়ন ২০১১ সালের পরিসংখ্যান অনুযায়ী ১৭ হাজার ৭৫৪ জন লোকের বসবাস। এখানের অধিকাংশ মানুষ কৃষি কাজের সাথে সম্পৃক্ত। রাস্তাঘাট না থাকায় যোগাযোগ ব্যবস্থা অত্যন্ত কষ্টদায়ক। বছরের কিছুটা সময় চান্দের গাড়ী চললেও বাকী সময় যাতায়াতের মাধ্যম একমাত্র নৌকা। প্রত্যন্ত এ ইউনিয়নে ২০০১ সালের শিক্ষার জরিপ অনুযায়ী শিক্ষার হার ৩৭.৫০ শতাংশ। বর্ষাকালে এখানকার গ্রামগুলো ছোট ছোট দ্বীপ এর মতো ভেসে উঠে। চারদিকে পানির উপরে দ্বীপের মতো দাড়িয়ে থাকে ওই গ্রাম গুলো।
যোগাযোগ সম্পর্কে প্যানেল চেয়ারম্যান দেবী চাদ দাশ বলেন-ইকরাম থেকে বসন্তপুর-ভায়া-পইলারকান্দি পর্যন্ত সাড়ে ৩ কিলোমিটার রাস্তা নির্মাণ করা হলে ওই ইউনিয়নের যোগাযোগ ব্যবস্থার দুর্গতি নিরসন হতো। তিনি সংশ্লিষ্ট উর্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট ওই রাস্তাটি নির্মানে জোর দাবী জানান।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com