বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ০৪:২০ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
হবিগঞ্জে মেডিক্যাল কলেজ, শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা বাল্লা স্থল বন্দর ও হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ॥ জেলা আওয়ামীলীগের পক্ষ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ

হবিগঞ্জে মেডিক্যাল কলেজ, শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা বাল্লা স্থল বন্দর ও হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ॥ জেলা আওয়ামীলীগের পক্ষ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ-লাখাই-শায়েস্তাগঞ্জ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব এডঃ আবু জাহির বলেছেন, প্রায় ৬ বছর ধরে পিছু লেগে থাকার ফসল হচ্ছে- হবিগঞ্জ শেখ হাসিনা মেডিক্যাল কলেজ, শায়েস্তাগঞ্জকে উপজেলায় উন্নীত করন, বাল্লা স্থল বন্দর স্থাপন প্রকল্প এবং সর্বশেষ ১০ সেপ্টেম্বর হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় সংসদে পাশ হওয়ার মধ্য দিয়ে পূর্ণ হলো মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘোষণার সফল বাস্তবায়ন। তিনি বলেন, ২০১৪ সনের ২৯ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হবিগঞ্জ সফরে আসলে সকলের সাথে পরামর্শক্রমে হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি আলহাজ্ব এডঃ মোঃ আবু জাহির এমপি উপরোক্ত ৪টি দাবী উপস্থাপন করলে প্রধানমন্ত্রী দাবীগুলো বাস্তবায়নের প্রতিশ্রোতি দেন।
গতকাল দুপুরে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে এডঃ আবু জাহির এমপি উপরোক্ত কথা গুলো বলেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আলমগীর চৌধুরী, জাতীয় পরিষদ সদস্য শহীদ উদ্দিন চৌধুরী, জেলা শ্রমিকলীগ সভাপতি আরব আলী, পিপি সিরাজুল হক চৌধুরী, ইউপি চেয়ারম্যান শেখ শামসুল হক, এডঃ লুৎফুর রহমান প্রমুখ আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ।
লিখিত বক্তব্যে আবু জাহির এমপি আরো বলেন, হবিগঞ্জ জেলার আপামর জনগনের বহুল প্রত্যাশিত হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের জন্য বিগত ১০সেপ্টেম্বর মহান জাতীয় সংসদে হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় আইন পাশ হয়েছে। আইনটির ৩ দফা ও ১নং উপ দফায় বলা হয়েছে “এই আইনের বিধান অনুযায়ী হবিগঞ্জ জেলার সদর উপজেলায় হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় নামে একটি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপিত হবে।
তিনি বরেন, ২০০৮, ২০১৪ ও ২০১৮ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে পরপর তিনবার হবিগঞ্জ-৩ আসনে দলীয় মনোনয়ন দিয়ে নির্বাচন করার সুযোগ দিয়েছেন। পরপর তিনটি নির্বাচনে আমার এলাকার জনগণ বিপুল ভোটে আমাকে নির্বাচিত করেছেন। এরপর থেকেই আমার নির্বাচনী এলাকার শিক্ষা, স্বাস্থ্য, যোগাযোগ, ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ ও অবকাঠামো উন্নয়নকে প্রাধান্য দিয়ে দিনরাত পরিশ্রম করে যাচ্ছি। ফলশ্রুতিতে আমার নির্বাচনী এলাকায় বিদ্যমান বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উন্নয়নের পাশাপাশি নতুন নতুন কলেজ ও হাইস্কুল প্রতিষ্ঠাসহ অবকাঠামো নির্মাণ করে দেই। এছাড়াও গ্রামীণ রাস্তাঘাট নির্মাণ, ঘরে ঘরে শতভাগ বিদ্যুৎ এবং স্বাস্থ্যখাতে আমূল পরিবর্তন আনার চেষ্টা করেছি। এতে হবিগঞ্জের ব্যবসা বানিজ্যে প্রানচাঞ্চল্য ও গতির সঞ্চার হয়েছে।
তিনি বলেন, ২০১৪ সনের ২৯ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হবিগঞ্জ সফলে আসলে হবিগঞ্জের উন্নয়নের জন্য চারটি দাবী উপস্থাপন করি। এ গুলো হচ্ছে- হবিগঞ্জে একটি মেডিক্যাল কলেজ স্থাপন, শায়েস্তাগঞ্জকে উপজেলায় উন্নীত করন, কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন ও বাল্লা স্থল বন্দর স্থাপন। ঐ দিন বিকালে স্থানীয় নিউ ফিল্ডে জেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে হবিগঞ্জের ইতিহাসে স্মরণকালের সর্ববৃহৎ জনসভায় প্রধানমন্ত্রী তার ভাষণে দাবীগুলির প্রতি একমত পোষন করে তা বাস্তবায়নে লাখো জনতার সমাবেশে প্রতিশ্রুতি দেন। প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি আদায়ের পর তা বাস্তবায়নের জন্য আমি মাঠে নামী।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্রুতির বিষয়টি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সচিব আবদুল মালেক ২০১৪ সনের ১৭ ডিসেম্বর সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয় গ্রালোতে পৃথক ৪টি পত্র প্রদান করেন। ওই পত্রের অনুলিপি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় এবং একমাত্র হবিগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য এডঃ আবু জাহিরকেই প্রদান করা হয়। হবিগঞ্জের আর কোন সংসদ সদস্যকে প্রদান করা হয়নি। এর থেকে মাসে পর মাসে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলোতে সার্বক্ষনিক যোগাযোগ স্থাপন করি। এর ফলে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বাংলাদেশের ৩১তম শেখ হাসিনা মেডিক্যাল কলেজ, হবিগঞ্জ অনুমোদন দেয়। বিগত ২০১৮ সালের ১০ জানুয়ারী ৫০ জন ছাত্র ছাত্রী নিয়ে হবিগঞ্জ শেখ হাসিনা মেডিক্যাল কলেজের একাডেমিক কার্যক্রম ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতাল ভবনে শুরু হয়েছে। অপর দিকে উক্ত কলেজের স্থায়ী ক্যাম্পাস স্থাপনের জন্য প্রস্তাবিত স্থানের সম্ভাব্যতা যাচাই কাজ চলছে। এদিকে বিগত ২০১৭ সালের ২০ নভেম্বর স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় এক আদেশে শায়েস্তাগঞ্জ থানাকে উপজেলায় উন্নীত করে। বর্তমানে ঐ উপজেলার প্রশাসনিক কার্যক্রম শুরু হয়েছে। নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে চুনারুঘাট উপজেলায় বাল্লা স্থলবন্দরের কাজও চলমান।
আবু জাহির এমপি বলেন, সারা বাংলাদেশে এতদিন মাত্র ছয়টি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ছিল এখন থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা মহান জাতীয় সংসদে বিলটি পাস করার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের সপ্তম কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় হবিগঞ্জ সদর উপজেলায় স্থাপন করতে যাচ্ছি। অচিরেই হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি নিয়োগসহ অন্যান্য কাজ শুরু হবে।
আবু জাহির এমপি বলেন, বৃহত্তর সিলেট অঞ্চলের মধ্যে হবিগঞ্জ জেলায় ব্যাপক উন্নয়ন দেখে আজ অনেকেই ইর্ষান্বিত। হবিগঞ্জ জেলার বিশেষ করে আমার নির্বাচনী এলাকার উন্নয়নকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে অনেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্ন বিভ্রান্তি ছড়ানোর চেষ্টা করছেন। আশা করি হবিগঞ্জের জনগনের সামনে দৃশ্যমান উন্নয়ন নিয়ে কেউ বিভ্রান্তি ছড়াতে পারবে না। যে কোন বিভ্রান্তি ও অপপ্রচারের জবাব দিবে জনগণই। সমাজের অগ্রসর শ্রেনী হিসাবে আপনাদের কলম উন্নয়ন বিরোধী যে কোন অপপ্রচার ও ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে সোচ্ছার হবে বলে আশা করি। মতবিনিময় সভায় হবিগঞ্জবাসীর প্রানের দাবীগুলো যথাযথ ভাবে পুরন করায় হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। সময় সুযোগ হলে লাখো জনতার সামনেই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আমরা সম্মাননা জানাবো।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com