মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯, ০৩:২৯ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
হবিগঞ্জে ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) এর জশ্নে জুলুছে লাখো জনতার ঢল হবিগঞ্জে মোহনা টেলিভিশনের ১০ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত শহরের পুরাণমুন্সেফির পুকুর থেকে নবজাতকের লাশ উদ্ধার হবিগঞ্জ সদর থানা পুলিশের অভিযানে ১১ জন আটক ডাকাতি প্রতিরোধসহ অপরাধ কর্মকান্ড হ্রাসে প্রাণান্তকর চেষ্টা চালাচ্ছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রবিউল ইসলাম বাহুবলে দু’ছাত্রীকে তোলে নেয়ার চেষ্ঠা ॥ সিএনজি চালক ও বখাটের কারাদন্ড তেঘরিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আনু মিয়াকে জেলে প্রেরণ নবীগঞ্জের ২নং ইউনিয়ন বিএনপির কমিটি গঠন নবীগঞ্জে অসহায় মহিলার বাড়িঘর ভাংচুর-গাছপালা বিনষ্ট ॥ অভিযোগ নবীগঞ্জের ৭নং করগাঁও ইউনিয়ন বিএনপির আহবায়ক কমিটি গঠন
শহরের চাঞ্চাল্যকর মা ও মেয়েকে হত্যার দায়ে তাজুল গ্রেফতার

শহরের চাঞ্চাল্যকর মা ও মেয়েকে হত্যার দায়ে তাজুল গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ শহরের উমেদনগরে স্ত্রী, শাশুড়ীকে হত্যাকারী সেলু মিয়া ওরফে আলমগীরের ১ম স্ত্রী’র বাবা তাজুল ইসলামকে গ্রেফতার করেছে ডিবি পুলিশ। শুক্রবার বিকেল ৫টায় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবির এসআই আবুল কালাম আজাদের নেতৃত্বে একদল বাহুবলের মানিকা বাজার এলাকায় পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত তাজুল ইসলাম (৫২) বানিয়াচং উপজেলার পুকড়া ইউনিয়নের নোয়াগাও গ্রামের রঙ্গিলা মিয়ার ছেলে। গতকাল তাকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। মামলার বিবরণ ও পুলিশ সূত্র জানায়, উমেদনগরের সেলু মিয়া ওরফে আলমগীর প্রায় দেড় বছর পূর্বে ঘরে স্ত্রীসহ ২ সন্তান থাকাবস্থায় তিনি বানিয়াচং উপজেলার তারাসই গ্রামের লিল মিয়ার মেয়ে ফুলবরন নেছার (৩০) সাথে পরকিয়া প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলেন। এক পর্যায়ে সেলু মিয়া এফিডেভিট করে ফুলবরন নেছাকে দ্বিতীয় বিয়ে করেন। ফুলবরন নেছাকে বিয়ে করার সংবাদ তার ১ম স্ত্রীর কাছে পৌঁছার পর পরিবারে অশান্তি নেমে আসে। ২য় স্ত্রীকে নিয়ে কিছুদিন তার সংসার সুখে চললেও হঠাৎ করে সুখের সংসারে দুঃখের আগুন জ¦লে উঠে। স্ত্রী ফুলবরন নেছাকে সন্দেহের চোখে দেখতে শুরু করেন সেলু মিয়া। তার বাড়িতে পরপুরুষের আগমন ও স্ত্রীর ফোনে আলাপে তিনি দ্বিতীয় স্ত্রীর বিরুদ্ধে পরকিয়া প্রেমের অভিযোগ তুলেন। এ নিয়ে সেলু মিয়া ও তার স্ত্রী ফুলবরন নেছার মধ্যে কলহ শুরু হয়। এক পর্যায়ে ফুলবরন নেছা গর্ভবতী হয়ে পড়লে সেলু মিয়া তার পেটের সন্তান নষ্ট করান। এ নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর পারিবারিক কলহ চরম আকার ধারণ করে। এর মধ্যে আত্মীয় স্বজনসহ স্থানীয় মুরুব্বীয়ান তাদের দ্বন্দ্ব নিরসনও করে দেন। এদিকে দুই স্ত্রীকে নিয়ে সংসার জীবন করায় সেলু মিয়ার সংসারে অশান্তি আরো বৃদ্ধি পায়। এক পর্যায়ে পরকিয়ার অভিযোগ এনে সেলু মিয়া তার ২য় স্ত্রীকে মারধোর করে তার বাবার বাড়ি পাঠিয়ে দেয়। এ পরিপ্রেক্ষিতে সেলু মিয়ার ২য় স্ত্রী তার বিরুদ্ধে হবিগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে মামলা দায়ের করেন।
গত ৫ সেপ্টেম্বর মামলা সংক্রান্ত কাজে হবিগঞ্জ আদালতে আসার জন্য ফুলবরন নেছা ও তার মা জমিলা বেগম প্রস্তুতি নেন। ফুলবরন নেছা আগের দিনই বাড়ি থেকে তার মাকে নিয়ে উমেদনগরস্থ চাচাতো ভাই এনামুল হকের ভাড়া বাসায় রাত্রিযাপন করেন। ৫ সেপ্টেম্বর সকালে সেলু মিয়া ফোন পেয়ে এনামুল এর বাসায় চলে আসে। পরে তার স্ত্রী, শাশুড়ি, এনামুলসহ মামলা মোকদ্দমা নিষ্পত্তির বিষয়ে কথাবার্তা বলে। এক পর্যায়ে সেলু চৌধুরী বাজারস্থ তার পিতার দোকানে চলে যায়। ওইদিন বিকালে আবারও সেলু মিয়া তার স্ত্রী ও শাশুড়িকে ফোন দিয়ে চৌধুরী বাজারস্থ মায়া হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্টে এনে কথাবর্তা বলে। তারপর সে আছরের নামাজের পর তাদেরকে নিয়ে শহরের উমেদনগরস্থ তার নিজ বাড়িতে যায়। সেখানে তার বাবার সাথে শাশুড়ির মামলা নিয়ে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে তার বাবা সেলু’কে বলে “তুই আমার মুখে চুনকালী দিছস্। হয় তুই বিষ খাইয়া মর – না হয় আমাকে বিষ দে খাইয়ালামু।” তখন সেলু মিয়া মনের দুঃখে বাড়ি থেকে বের হয়ে তার শ্যালক ও শ^শুর লিল মিয়াকে ফোন করে তার স্ত্রী’র বিষয়ে নালিশ করে। কিন্তু সে তাদের কাছ থেকে কোন শান্তনামূলক জবাব পায়নি। তারপর স্ত্রী ও শাশুড়িকে নিয়ে পায়ে হেঁটে কিবরিয়া ব্রীজের চায়ের দোকানে তাদের রেখে সে বের হয়ে যায় এবং ১ম স্ত্রীর পিতা তাজুল মিয়াকে ফোনে তার শ্যালক আনোয়ার (২০) সহ তার সবজির দোকানের লাউ কাটার দা নিয়ে আসতে বলে। সেলু মিয়া তখন একটি সিএনজি খোঁজলে তার পরিচিত চালককে পেয়ে ১২০ টাকা ভাড়ায় ঘটনাস্থল গোবিন্দপুর এলাকাস্থ খোয়াই নদীর পাড়ে চলে যাওয়ার জন্য ঠিক করে। সিএনজি নিয়ে বাড়িতে এসে সেলু মিয়া তার ২য় স্ত্রী ও শাশুড়িকে বলে তোমাদের জন্য নতুন একটি বাসা ভাড়া ঠিক করেছি সেটা দেখতে যাব। এই বলে তাদেরকে সিএনজিতে নিয়ে আসে। ইতোমধ্যে তার ১ম স্ত্রীর পিতা ও শ্যালক সিএনজি’র কাছে চলে আসলে সেলু তার স্ত্রী ও শাশুড়িকে নিয়ে পিছনে বসে, শ্বশুর ও শ্যালক সামনে ড্রাইভারের পাশে বসে গোবিন্দপুর এলাকাস্থ খোয়াই নদীর পাড়ের উদ্দেশে রওনা হয়। ঘটনাস্থলে পৌঁছার ৫০ গজ আগে সিএনজি থামিয়ে তারা সবাই নেমে ড্রাইভারকে গাড়ী ঘুরিয়ে তাকে সিএনজিতে থাকতে বলে। এরপর তারা বেড়ি বাঁধ ধরে কিছু দূর সামনে নির্জন অন্ধকারে গিয়ে নদীর চরে পৌছামাত্র তারা সবাই মিলে তার ফুলবরন নেছা ও জমিলা বেগমকে এলোপাতাড়ি গাছের ডাল দিয়ে বেধড়ক মারপিট শুরু করে। এক পর্যায়ে প্রথমে শাশুড়ি জমিলা ও পরে স্ত্রী ফুলবরন অজ্ঞান হয়ে মাটিতে পড়ে যায়। তখন তার শ্বশুর দা দিয়ে জমিলাকে কুপিয়ে আঘাত করে। সেলু তার শ্বশুরের কাছ থেকে দা নিয়ে তার শ্যালক মিলে স্ত্রী’কে কুপিয়ে আঘাত করে মৃত্যু নিশ্চিত করে। এদিকে তাদের সিএনজিতে ফিরতে দেরি হওয়ার কারণে ড্রাইভার সামনে এগিয়ে আসলে তাদের সামনে দুই জনের মৃতদেহ দেখে সে ফিরে যাওয়ার চেষ্টাকালে সেলু তাকে দেখে ফেলে এবং হত্যাকান্ডে ফাঁসানোর হুমকি দিয়ে তাকে মৃতদেহ নদীতে ফেলতে সহায়তা করতে বাধ্য করে। মৃতদেহ দুটি তার শ্বশুর, শ্যালক, সিএনজি ড্রাইভার ও সেলু মিলে খোয়াই নদীতে ফেলে দিয়ে উক্ত সিএনজি দিয়ে ফিরে কিবরিয়া ব্রীজে নেমে যে যার মত করে বাসায় চলে যায়। এ ঘটনার পরদিন ফুলবরন নেছার ভাই ফুল মিয়া তার বোন ও মায়ের কোন সন্ধান না পেয়ে বিষয়টি বানিয়াচং থানা পুলিশকে অবগত করেন। গত ৮ সেপ্টেম্বর বানিয়াচং উপজেলার সুজাতপুর ইউনিয়নের শতমুখা এলাকায় খোয়াই নদীতে ভাসমান অবস্থায় অর্ধগলিত অজ্ঞাত মহিলার লাশ পাওয়া যায়। তাৎক্ষণিক মৃতদেহটি সনাক্ত করা সম্ভব হয়নি। মৃতের সুরতহাল রিপোর্ট প্রস্তুতকালে তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন পরিলক্ষিত হওয়ায় ১১ সেপ্টেম্বর এসআই ধ্র“বেশ চক্রবর্তী বাদী হয়ে অজ্ঞাত আসামীর বিরুদ্ধে বানিয়াচং থানার মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই এমএ ফারুক আহমেদ মৃতদেহটি সনাক্ত করার জন্য প্রয়োজনীয় সকল প্রকার উদ্যোগ গ্রহণ করেন এবং অজ্ঞাত লাশ হিসেবে আঞ্জুমানে মফিদুল ইসলামের কাছে হস্তান্তর করেন। পরবর্তীতে গত ১৮ সেপ্টেম্বর বানিয়াচং উপজেলার সুজাতপুর ইউনিয়নের পূর্ব বাজুকা গ্রামের অংশে খোয়াই নদীতে ভাসমান অব¯’ায় পঁচাগলা অজ্ঞাত মহিলার লাশ দেখতে পান এলাকাবাসী। পরে পুলিশ অজ্ঞাত লাশটি উদ্ধার করে। প্রাথমিকভাবে উদ্ধারকৃত সেলু মিয়ার সমন্ধি মোঃ ফুল মিয়া সনাক্ত করেন সেটি তার মা জমিলা বেগমের লাশ। পরে জমিলার বেগমের ছেলে ফুল মিয়া ও তার স্বজনরা লাশ বাড়িতে নিয়ে দাফন করে। এদিকে ঘটনার পর পরই ঘাতক সেলু মিয়া আত্মাগোপন করে। পুলিশের দায়েরকৃত মামলাটি অধিকতর তদন্তের জন্য পুলিশ সুপারের কাছে প্রেরণ করা হয়। তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে নিহত ফুলবরন নেছার স্বামীকে গ্রেফতারের নির্দেশ দেন। এক পর্যায়ে ফুলবরন নেছার মোবাইল ফোনটির অবস্থান স্থান নির্ধারণ করেন। পরে পুলিশ সুপারের নির্দেশে এসআই আবুল কালাম আজাদ মোবাইল ফোনটি উদ্ধার করেন। মোবাইলটি ঘাতক সেলু মিয়া এক ভিক্ষুকের কাছে বিক্রি করেছিল। মোবাইল ফোনের সূত্র ধরে ১ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার দুপুর আড়াইটার দিকে এসআই আবুল কালাম আজাদের নেতৃত্বে একদল পুলিশ নবীগঞ্জ উপজেলার নোয়াগাঁও গ্রামের ইউনুছ মিয়া ওরপে সাজুর বাড়ি থেকে সেলু মিয়াকে গ্রেফতার করেন। ইউনূছ মিয়া ওরফে সাজু মিয়া সেলু মিয়ার সম্পর্কে মামা। পরবর্তীতে আদালতে সেলু মিয়া স্বীকারোক্তি মুলক জবানবন্দি প্রদান করে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com