সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১১:২৮ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
লাখাই উপজেলায় চেয়ারম্যান প্রার্থী আজাদ ও মাহফুজের সমর্থকদের সংঘর্ষে আহত ২০ উচ্চ আদালতের আদেশ উপেক্ষা করে চুনারুঘাটে পণ্য উঠানামা ও টোল আদায় করছে ইজারাদার শহরে আধঘন্টা বৃষ্টিতে বিদ্যুৎ থাকে না ১০ ঘন্টা ॥ ত্রুটিপূর্ণ লাইন নিয়ে কর্মচারিদের গাফিলতি নবীগঞ্জে অর্ধলক্ষাধিক শিশুকে খাওয়ানো হবে ভিটামিন এ প্লাস পবিত্র ঈদুল আজহার সম্ভাব্য তারিখ জানাল মিসর সৈয়দ মোঃ শাহজাহান উপজেলাবাসীর কল্যাণে কাজ করেছে-সৈয়দ ফয়সল শহরের গেজেট দোকানে চুরির ঘটনায় বিপুল পরিমাণ মোবাইল উদ্ধার ॥ এক চোর আটক স্কুল শিক্ষিকা বিরন রূপা দাসের অস্বাভাবিক মৃত্যুতে আইনজীবি ঐক্য পরিষদের প্রতিবাদ সভা সৈয়দ মোঃ শাহজাহান কাজের বিনিময়ে কারু কাছ থেকে ১ টাকাও ঘুষ খায় না-সৈয়দ মোঃ ফয়সল সদর হাসপাতালে অজ্ঞাত নারীর খবর নিচ্ছে না কেউ?

বৈচিত্রপূর্ণ, বর্ণাঢ্য ও সংগ্রামী জীবনের অধিকারী ॥ জিকে গউছের ৫৭তম জন্মদিন আজ

  • আপডেট টাইম শনিবার, ২০ এপ্রিল, ২০২৪
  • ২১ বা পড়া হয়েছে

 

স্টাফ রিপোর্টার ॥ একটি বৈচিত্রপূর্ণ, বর্ণাঢ্য ও সংগ্রামী জীবনের অধিকারী হবিগঞ্জ পৌরসভার পদত্যাগকারী মেয়র আলহাজ্ব জি কে গউছের ৫৭তম জন্মদিন আজ।
১৯৬৮ সালের এই দিনে তিনি হবিগঞ্জ শহরের শায়েস্তানগর এলাকায় এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম গ্রহন করেন। তার পিতা বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মরহুম আলহাজ্ব গোলাম মর্তুজা লাল মিয়া ও মাতা মরহুমা আলহাজ্ব মঞ্জিলা বেগম। আলহাজ্ব জি কে গউছ একটি আন্দোলনের নাম, একটি সংগ্রামী চেতনার নাম। হবিগঞ্জের বহু চড়াই-উৎড়াইয়ের সাথে এই নামটি সম্পৃক্ত। জনসেবা আর উন্নয়ন দিয়ে তিনি মানুষের হৃদয় জয় করেছেন। হবিগঞ্জবাসীর হৃদয়ের মনিকোটায় স্থান করে নিয়েছেন। দীর্ঘ ৪০ বছর যাবত তিনি বিএনপির রাজনীতি করে আসছেন। আন্দোলন সংগ্রামে রাজপথ সরব রাখছেন। এই চলার পথ মুটেও তার জন্য মসৃণ ছিল না। অনেক প্রতিকুল পরিস্থিতি ও ঘাত-প্রতিঘাত অতিক্রম করতে হয়েছে। ২০টি রাজনৈতিক মামলায় আসামী হয়ে ১৫১৭ দিন কারাভোগ করেছেন। কারাগারে তাকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে। থামিয়ে দিতে দলের ভিতরে বাহিরে অনেক ষড়যন্ত্র হয়েছে। তবুও রাজপথে জি কে গউছকে থামানো যায়নি, থেমে থাকেননি। কখনো রাজপথ, কখনো কারাগার, এরমধ্যেই জি কে গউছের বিচরণ। রাজপথে জি কে গউছ ঃ ১৯৮৪ সালে তিনি এসএসসি পাশ করে ভর্তি হন হবিগঞ্জ বৃন্দাবন সরকারী কলেজে। একই কলেজ থেকে তিনি বিএ পাশ করেন। কলেজে ভর্তি হওয়ার পরপরই তার উপর জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল কলেজ শাখার সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব অর্পিত হয়। পরে তিনি বৃন্দাবন সরকারী কলেজ ছাত্রদলের সভাপতি নির্বাচিত হন। পড়াশোনার পাশাপাশি তখন জি কে গউছের মধ্যে ফুটে উঠে নেতৃত্বের প্রতিভা।
১৯৮৭ সালে তিনি জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল হবিগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি নির্বাচিত হন। টানা ৫ বছর তিনি ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৯৪ সালে তিনি হবিগঞ্জ পৌর যুবদলের সভাপতির দায়িত্ব গ্রহণ করেন। ১৯৯৫ সালে জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক এবং ১৯৯৬ সালে যুবদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন। ভলিষ্ট নেতৃত্বের মাধ্যমে তিনি হবিগঞ্জে যুবদলকে সু-সংগঠিত করেন। এরই ফলশ্রুতিতে তিনি হবিগঞ্জ জেলা যুবদলের সভাপতি নির্বাচিত হন। ২০০৩ সালে তিনি যুবদলের কেন্ত্রীয় সহ-সমবায় বিষয়ক সম্পাদক নির্বাচিত হন।
২০০৪ সালে বিএনপি’র তৎকালিন সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব তারেক রহমানের উপস্থিতিতে ঢাকাস্থ বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে হবিগঞ্জ জেলার অধীনস্থ বিএনপির সকল থানা ও পৌর কমিটির সভাপতি/সাধারণ সম্পাদকের গোপন ভোটে জি কে গউছ হবিগঞ্জ জেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ২০১১ সালে তিনি ২য় বারের মত হবিগঞ্জ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মনোনীত হন। পরে তিনি বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন। ২০১৬ সালে তিনি বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক মনোনীত হন। ২০১৯ সালে তিনি হবিগঞ্জ জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক নির্বাচিত হন। দলের পক্ষ থেকে যখনই এসব দায়িত্ব অর্পিত হয়েছে তিনি বিভিন্ন ঘাত প্রতিঘাতের মধ্য দিয়ে অত্যন্ত সফলতার সাথে এসব দায়িত্ব পালন করেছেন, করে আসছেন। এই রাজনীতির পাশাপাশি তিনি দৈনিক আজকের হবিগঞ্জ নামে একটি পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশকের দায়িত্ব পালন করছেন। ১৫১৭ দিন কারাভোগ ঃ আলহাজ্ব জি কে গউছ বিভিন্ন সময়ে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার হয়ে ২০টি মামলায় আসামী হয়েছেন। এসব মামলায় তিনি ১৫১৭ দিন কারাভোগ করেছেন। ১/১১ এর সময় কোনো মামলা ছাড়াই আলহাজ্ব জি কে গউছকে গ্রেফতার করে সেনাবাহিনী। পরবর্তিতে সম্পূর্ণ মিথ্যা অভিযোগে তার বিরুদ্ধে ৪টি মামলা দেয়া হয়। তৎকালিন একটি প্রভাবশালী মহলের ষড়যন্ত্রের শিকার হয়ে ৫শ ৯১ দিন কারাভোগের পর তিনি কারামুক্ত হন। এই মামলাগুলো আদালতে মিথ্যা প্রমাণিত হওয়ায় সবকটি মামলা থেকে তিনি বেকসুর খালাস পেয়েছেন। ২০১৪ সালে সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ্ এএমএস কিবরিয়া হত্যাকান্ডের ১২ বছর পর ৪র্থ সম্পূরক চার্জশীটে হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে দায়েরকৃত ২টি মামলায় জি কে গউছকে আসামী শ্রেণীভুক্ত করা হয়। অথচ ঘটনার সময় তিনি পবিত্র হজ্বব্রত পালনে তার পিতার সাথে পবিত্র মক্কা শরীফে অবস্থান করছিলেন। তিনি এই বছরের ২৮ ডিসেম্বর আদালতে আত্মসমর্পন করে কারাগারে যান। এই ২টি মামলায় কারাগারে থাকা অবস্থায় সুনামগঞ্জে সুরঞ্জিত সেন গুপ্তের জনসভায় বোমা হামলার ঘটনার ১২ বছর পর হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে দায়েরকৃত ২টি মামলায় জি কে গউছকে ২০১৫ সালে শ্যোন এরেস্ট দেখানো হয়। এই ৪টি মামলায় টানা ৭শ ৩৯ দিন কারাভোগের পর ২০১৭ সালের ৪ জানুয়ারী তিনি জামিনে মুক্তি পান। এসব মামলায় কারাগারে থাকা অবস্থায় ২০১৫ সালের ১৮ জুলাই হবিগঞ্জ কারাঅভ্যান্তরে পবিত্র ঈদুল ফিতরের নামাজ শেষে নিজ রুমে যাওয়ার সময় আলহাজ্ব জি কে গউছকে প্রাণে হত্যার উদ্দেশ্যে তার পিটে ছুরিকাঘাত করে শায়েস্তাগঞ্জের একাধিক হত্যা মামলার কুখ্যাত আসামী ইলিয়াছ নামে এক ব্যক্তি। এতে তিনি অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে যান। যার ত তিনি এখনও বয়ে বেড়াচ্ছেন।
২০১৮ সালে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে হবিগঞ্জ-৩ আসনে ধানের শীষ মার্কা নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন আলহাজ্ব জি কে গউছ। এই নির্বাচনের পর ভোট চুরির অভিযোগে জি কে গউছকে প্রধান আসামী করে ৪টি মামলা দেয়া হয়। এই মামলায় তিনি ১৬ দিন কারাভোগ করেন। ইতিমধ্যেই সবকটি মামলা আদালতে মিথ্যা প্রমাণিত হওয়ায় তিনি বেখসুর খালাস পেয়েছেন।
২০২১ সালের ২২ ডিসেম্বর বিএনপির চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও উন্নত চিকিৎসার দাবীতে সমাবেশের আয়োজন করে হবিগঞ্জ জেলা বিএনপি। এই সমাবেশে প্রায় ১২শ রাউন্ড গুলি নিক্ষেপ করে সমাবেশটি পন্ড করে দেয় পুলিশ। এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে আলহাজ্ব জি কে গউছকে প্রধান আসামী করে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের ২ হাজার নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে ২টি মামলা দায়ের করে। এই মামলায় তিনি ১৮ দিন কারাভোগ করেন। একই ঘটনায় জেলা পরিষদ রেষ্ট হাউজ ভাংচুরের অভিযোগে বিএনপির ৩/৪ শতাধিক নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে আরও একটি মামলা দায়ের করা হয়। এই মামলায় জিকে গউছকে শ্যোন এরেস্ট দেখানো হয়। পরে তিনি আদালত থেকে জামিন লাভ করেন। ২০২২ সালের ১৯ নভেম্বর বিএনপির সিলেট বিভাগীয় গণসমাবেশ সফল করার লক্ষ্যে লাখাই উপজেলা বিএনপির এক প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আলহাজ্ব জি কে গউছ। এই সভায় পুলিশ হামলা করে ব্যাপক লাঠিচার্জ, গুলিবর্ষণ ও চেয়ার ভাংচুর করে। এতে জি কে গউছ সহ অনেক নেতাকর্মী গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হন। এ ঘটনায় পুলিশ জি কে গউছকে প্রধান আসামী করে বিএনপির ২৪৫ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করে। এই মামলায় তিনি আদালত থেকে জামিন লাভ করেন। ২০২৩ সালের ১৯ আগস্ট হবিগঞ্জ জেলা বিএনপির পদযাত্রা কর্মসূচীতে পুলিশ ব্যাপক লাঠিচার্জ, টিয়ারশেল নিক্ষেপ ও গুলি বর্ষণ করে। এ সময় পুলিশের সাথে বিএনপি নেতাকর্মীদের সংঘর্ষ হয়। এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে জি কে গউছকে প্রধান আসামী করে বিএনপির ১২শ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে ২টি মিথ্যা মামলা দায়ের করে। এই মামলায় আগাম জামিন নিয়ে হাইকোর্ট থেকে বাসায় ফিরার পথে গত ২৯ আগস্ট জি কে গউছকে উঠিয়ে নিয়ে যায় ঢাকার ডিবি পুলিশ। পরদিন ৩০ আগষ্ট তাকে ৫৪ ধারায় গ্রেফতার দেখিয়ে ঢাকা সিএমএম কোর্টে হাজির করা হয় এবং ২ দিনের রিমান্ডে নেয় ঢাকার ডিবি পুলিশ। রিমান্ট শেষে তাকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে প্রেরণ করে ঢাকা সিএমএম কোর্ট। ৪ সেপ্টেম্বর জি কে গউছকে হবিগঞ্জ কারাগারে প্রেরণ করা হয়। ৫ সেপ্টেম্বর হবিগঞ্জের সিনিয়র জুুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত জিকে গউছকে হবিগঞ্জ কারাগারে ছুরিকাঘাতের দীর্ঘ ৮ বছর পর হবিগঞ্জ সদর থানা পুলিশের দায়েরকৃত একটি মামলায় শ্যোন এরেস্ট দেখানো হয়। এই মামলায় তিনি ২০২৩ সালের ৩ ডিসেম্বর হাইকোর্টে জামিন লাভ করেন। কিন্তু ১৯ আগষ্টের ঘটনায় পুলিশ এসল্ট মামলায় জামিন না হওয়ায় তিনি কারামুক্ত হতে পারেননি। এসব মামলায় টানা ১৫৪ দিন কারাভোগের পর হাইকোর্ট থেকে জামিন পেয়ে ২০২৪ সালের ২৯ জানুয়ারী জি কে গউছ কারামুক্ত হন। কারাগারে থাকা অবস্থায় তিনি একাধিকবার শারীরিক অসুস্থতায় ভোগেছেন। একজন ডিভিশনপ্রাপ্ত বন্দি হওয়ার পরও তিনি প্রাপ্ত সুযোগ-সুবিধা ও সু-চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত হন। এতে তার শারীরিক সমস্যা জটিল আকার ধারণ করে। তিনি কারামুক্ত হয়েই ঢাকায় এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি হয়ে প্রফেসর ডাক্তার সাহাব উদ্দিনের তত্বাবধানে চিকিৎসা নেন এবং তার হার্টে একটি রিং পড়ানো হয়। এখনও তিনি নিয়মিত চিকিৎসা নিচ্ছেন।
অপরদিকে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার হয়ে জি কে গউছ বার বার ক্ষত-বিক্ষত হলেও এখন বাদ যাচ্ছে না তার পরিবারও। রাজনীতিতে তার স্ত্রী, দুই সন্তান এবং দুই ভাইয়ের সম্পৃক্ততা না থাকলেও পুলিশ ও আওয়ামীলীগের দায়েরকৃত বিভিন্ন মিথ্যা মামলায় তাদেরকে আসামী করা হচ্ছে। জনপ্রতিনিধি নির্বাচনে জি কে গউছ ঃ ২০০৪ সালে আলহাজ্ব জি কে গউছ হবিগঞ্জ পৌরসভার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। জীবনের প্রথম এই নির্বাচনে অংশ নিয়েই তিনি জনগণের প্রত্য ভোটে হবিগঞ্জ পৌরসভার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। নির্বাচিত হওয়ার পর মাত্র ২ বছর মতায় ছিল তার রাজনৈতিক দল বিএনপি। এই দুই বছরে হবিগঞ্জ পৌর এলাকায় যে উন্নয়ন হয়েছিল তা যে পূর্বের ২৫ বছরেও হয়নি সে কথা স্বীকার করেন তার চরম বিরোধীতাকারী লোকেরাও। ২০১১ সালের ১৮ জানুয়ারী ২য় বারের মত হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র নির্বাচিত হন আলহাজ্ব জি কে গউছ। শত প্রতিকুলতার মধ্যেও বিপুল ভোটে তিনি মেয়র নির্বাচিত হয়ে জনগনের সেবায় নিজেকে উৎস্বর্গ করেন। দীর্ঘ দিনের অবহেলিত এবং পায়জামা শহর হিসেবে খ্যাত হবিগঞ্জ পৌরসভাকে একটি মডেল পৌরসভায় রূপান্তর করতে তিনি দিন রাত কাজ করেন। ব্যাপক উন্নয়ন কর্মকান্ডের মাধ্যমে তিনি হবিগঞ্জ শহরের চেহারা পাল্টিয়ে দেন।
২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবিগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে সিলেটে কারাগার থেকে অংশ গ্রহন করেন বিএনপির এই সংগ্রামী নেতা। এই নির্বাচনে অনেকটা অভিভাবকহীন অবস্থায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন তিনি। কিন্তু জনগনের ভালবাসার কাছে সকল রক্তচক্ষু ধুলিস্যাৎ হয়ে যায়। নির্বাচিত হন টানা ৩য় বারের মত মেয়র। তিনি হবিগঞ্জ পৌরসভার সর্বশেষ চেয়ারম্যান এবং প্রথম মেয়র। তিনি মিউনিসিপ্যাল এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ ম্যাব এর কেন্দ্রীয় কমিটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিবের দায়িত্ব পালন করেছেন। ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে হবিগঞ্জ-৩ আসন থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন আলহাজ্ব জি কে গউছ। এই নির্বাচনে অংশ নিতে দলীয় হাইকমান্ডের সিদ্ধান্তে পদত্যাগ করেন টানা ৩ বারের নির্বাচিত হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়রের পদ থেকে। হবিগঞ্জের উন্নয়নে জি কে গউছ ঃ বিএনপি’র বর্ষিয়ান রাজনীতিবিদ ৫ বারের সফল অর্থমন্ত্রী মরহুম এম সাইফুর রহমানের সাথে ছিল আলহাজ্ব জি কে গউছের অত্যন্ত ঘনিষ্ট সম্পর্ক। ফলে রাজনীতির পাশাপাশি হবিগঞ্জ জেলার উন্নয়নে তিনি মনোনিবেশ করেন। তিনি হবিগঞ্জ পৌরসভার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পূর্বেই হবিগঞ্জ সদর হাসপাতাল সহ হবিগঞ্জে ব্যাপক উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড বাস্তবায়ন করেন। শহরের প্রধান সড়কে রোড ডিভাইডার করা ছিল কঠিনতর একটি কাজ। বগলা বাজার ও চৌধুরী বাজার এলাকায় রাস্তা প্রশস্তকরণ ছিল আরও বেশি কঠিন কাজ। তারপরও আলহাজ্ব জি কে গউছের অনুরোধে সেখানকার ব্যবসায়ীরা নিজেদের দোকান ভিটা ভেঙ্গে দিয়েছেন রাস্তা প্রশস্থকরনের জন্য। যারা আলহাজ্ব জি কে গউছকে নির্বাচিত করতে প্রকাশ্যে বলিষ্ট ভূমিকা রেখেছেন তাদের দোকান ভাঙ্গা হয়েছে সবার আগে। তাতে আলহাজ্ব জি কে গউছের নিরপেক্ষতা, স্বচ্ছতা এবং ভালো কোনো কিছু করার জন্য সদিচ্ছাই যতেষ্ট, তারই প্রতিফলন ঘটে।
চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর দলমত ও ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সকল সম্প্রদায়ের উন্নয়ন ছিল তার চোখে পড়ার মতো। ভোটাররাও এর প্রতিদান দিয়েছেন। যেখানে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীরা কোনো ভোট আশাও করেন না, ঠিক সেখানে জি কে গউছ ভোট পেয়েছেন আওয়ামীলীগ প্রার্থীর চেয়ে দ্বিগুন।
জি কে গউছের প্রচেষ্টায় খোয়াই নদীর মাছুলিয়ায় এম সাইফুর রহমান ব্রীজ, শহরের কামড়াপুর থেকে নছরতপুর পর্যন্ত রেলটেকের উপর বাইপাস সড়ক নির্মাণ, নতুন বাস টার্মিনাল নির্মাণ, শহরের সৌন্দর্য্য বর্ধনে রোড ডিভাইডার নির্মাণ, জেলা পরিষদের সামনে পানির পোয়াড়া/মুক্তিযুদ্ধা চত্তর নির্মাণ, খোয়াই নদীর উপর জেনারেল এম এ রব ব্রীজ, শাহ এএমএস কিবরিয়া ব্রীজ, এম সাইফুর রহমান টাইন হল, বেবীস্ট্যান্ড এলাকায় পানির ২য় ট্রিটম্যান্ট প্লান স্থাপন, শহরের উত্তরে এবং দক্ষিণে প্রতিমা বিষর্জনের জন্য খোয়াই নদীতে ঘাটলা নির্মাণ, শহরে অসংখ্য ড্রেন ও রাস্তা নির্মাণ উল্লেখযোগ্য। পৌরসভায় দায়িত্ব পালনে জি কে গউছ কোন ধর্মীয় গন্ডির মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকেননি। তিনি সকল ধর্মের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত করেন। তিনি পৌরসভার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই নিজের সম্মানী ভাতার টাকা কন্যাদায়গ্রস্থ পরিবারের সাহায্যার্থে দান করেছেন। তিনি পৌরসভার তহবিল থেকে ব্যক্তিগত খরচের জন্য কোন অর্থ নেননি। তিনিই একমাত্র পৌরসভার মেয়র, দায়িত্ব নেয়ার পর প্রতি বছর পৌরসভার পক্ষ থেকে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধণা প্রদান, পবিত্র হজ্ব ও ওমরা বিষয়ক প্রশিণ প্রদান, কৃতি ছাত্র ছাত্রী ও তাদের অভিভাবকদের সংবর্ধণা প্রদান, বৈশাখী মেলা, বই মেলা, কর মেলা, পিঠা উৎসব, সুন্নতে খৎনা ও গণবিয়ের আয়োজন করেন। হবিগঞ্জ পৌর এলাকার সকল মসজিদের খতিব, ইমাম ও মোয়াজ্জিনদেরকে প্রতি ঈদে সম্মানী প্রদান করেছেন। তিনি প্রতি বছর পৌরসভার পক্ষ থেকে দুর্গাপূজায় প্রতিটি মন্ডপে নগদ অর্থ সহায়তা প্রদান করেন। আলহাজ্ব জি কে গউছ অত্যন্ত সাহসিকতার সাথে প্রতি বছর সরাসরি প্রশ্নোত্তর বিষয়ক পৌরবাসীর মুখোমুখি অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছেন। এসব ব্যতিক্রমধর্মী অনুষ্ঠানের মাধ্যমে তিনি স্থানীয় সরকার বিভাগে আলোড়ন সৃষ্টি করেন। ফলশ্রুতিতে তিনি ২ বার বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক গোল্ড মেডেল অর্জন করেন। তৎকালীন স্থানীয় সরকার মন্ত্রী আব্দুল মান্নান ভুইয়া, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত ও এডিবি’র সদর দপ্তর ফিলিপাইন থেকে আলহাজ্ব জি কে গউছ এই গোল্ড মেডেল গ্রহন করেন। বিদেশ সফরে জি কে গউছ ঃ ২০০৪ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত হবিগঞ্জ পৌরসভায় মেয়রের দায়িত্ব পালনকালে তিনি সরকারিভাবে ইতালী, ফ্রান্স, গ্রীস, সুইজারল্যান্ড, পুর্তগাল, ভিয়েতনাম, থাইল্যান্ড, তুরস্ক, বাহরাইন, ওমান, সিঙ্গাপুর, ইন্দোনেশিয়া ও ফিলিপাইন সফর করেন। এসব দেশ সফরকালে তিনি স্থানীয় সরকারের সাথে কেন্দ্রীয় সরকারের সম্পর্ক, তাদের উন্নয়মূলক কর্মকান্ড, শিক্ষাক্ষেত্রে অগ্রগতি, যোগাযোগ, স্বাস্থ্য, চিকিৎসা, বাসস্থান সহ নানাবিদ বিষয়ে অভিজ্ঞতা অর্জন করেন। এই অভিজ্ঞতার অংশ হিসেবেই তিনি হবিগঞ্জ পৌরসভায় নাগরিক সেবার মান বৃদ্ধির জন্য বাংলাদেশের পৌরসভা সমুহের মধ্যে হবিগঞ্জ পৌরসভায় ওয়ানস্টপ সার্ভিস চালু করেন। এর ফলশ্রুতিতে হবিগঞ্জ পৌরবাসী ভোগ করছেন উন্নত নাগরিক সুবিধা।
সামাজিক অঙ্গণে জি কে গউছ ঃ রাজনীতির পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনেরও দায়িত্ব পালন করেছেন আলহাজ্ব জি কে গউছ। তিনি হবিগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহ সভাপতি, জেলা রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক, শায়েস্তানগর গাউছিয়া জামে মসজিদের সভাপতি ও সন্ধানী সাংস্কৃতিক সংসদের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন। এসব সংগঠনের মাধ্যমে তিনি সামাজিক উন্নয়নে কাজ করেছেন। যুব সমাজকে দেখিয়েছেন আলোর পথ। দাঁড়িয়েছেন আর্তপীড়িত মানুষের পাশে।
ব্যক্তিগত জীবনে জি কে গউছ ঃ ব্যক্তিগত জীবনে আলহাজ্ব জি কে গউছ ১৯৯৩ সালে সাবেক সংসদ সদস্য মরহুম এডভোকেট মোঃ আতিক উল্লাহ’র দ্বিতীয় কন্যা আলহাজ্ব ফারহানা হ্যাপীর সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। তিনি দুই পুত্র সন্তানের জনক।
প্রথম পুত্র আলহাজ্ব মো: মনজুরুল কিবরিয়া প্রিতম কানাডায় লীগাল টেকনোলজি কোম্পানী এ্যপেরার সাথে কাজ করছেন। এর আগে তিনি ৬ বছর লন্ডনে অবস্থান করে ডিপ্লোমা ইন “ল” (ইউনিভার্সিটি অফ লন্ডন), এলএলবি অনার্স (ব্যাচেলার’স অফ “ল”) (ইউনিভার্সিটি অফ সেন্ট্রাল ল্যান্কাশায়ার), এলএলএম ইন কমার্শিয়াল “ল” (বিপিপি ইউনিভার্সিটি লন্ডন), বার প্রোফেশনাল ট্রেইনিং কোর্স (বিপিপি ইউনিভার্সিটি লন্ডন) এবং ২০২২ সালে কানাডার সেনেকা থেকে পিজিডিপ (“ল”) সম্পন্ন করেন।
দ্বিতীয় পুত্র আলহাজ্ব মো: মাজহারুল কিবরিয়া পুলক বিখ্যাত মাল্টিনেশনাল কোম্পানি এ্যমাজনে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে কাজ করছেন। এর আগে তিনি ব্যাচেলার’স ইন কম্পিউটার সায়েন্স (সি.ই) (মিনেসোটা স্টেট ইউনিভার্সিটি) এবং মাস্টার্স ইন কম্পিউটার সায়েন্স (কেলিফোর্নিয়া স্টেট ইউনিভার্সিটি) সম্পন্ন করেছেন। বর্তমানে তিনি বিভিন্ন জন সেবামূলক কাজের সাথে জড়িত আছেন।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com