শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ০১:২৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
চুনারুঘাটে দুই সহোদরসহ ৩ জন গ্রেফতার ॥ ২০ কেজি গাঁজা উদ্ধার শায়েস্তাগঞ্জে চেয়ারম্যান পদে স্বামী-স্ত্রীর মনোনয়নপত্র দাখিল আজ শায়েস্তাগঞ্জ থানা উদ্বোধন করবেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের আউশকান্দি এলাকা থেকে মহিলার লাশ উদ্ধার আন্দোলনের মুখে শেখ হাসিনা পালানোর পথ খুঁজে পাবেনা-শেখ সুজাত মিয়া সৌদি আরবে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত চুনারুঘাটের সোহাগের মরদেহ ২৮ দিন পর দেশে ॥ দাফন সম্পন্ন বানিয়াচঙ্গে পুলিশের অভিযানে গাঁজাসহ এক ব্যাক্তি আটক শায়েস্তাগঞ্জ রেলওয়ের জংশন গাড়ির স্ট্যান্ডে পরিণত আজমিরীগঞ্জের কৃতি সন্তান আনিসুল ইসলাম জুয়েল কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মনোনীত জুমার খুৎবায় মাওলানা গোলাম মোস্তফা নবীনগরী ॥ রাত জেগে খেলা দেখে উল্লাস করে ঘুমন্ত মানুষকে ডিস্টার্ব করছে তাদের জন্য দোযকের বার্তা রয়েছে

নবীগঞ্জে চোখ উঠেছে হাজারো মানুষের ॥ ওষুধ ও ড্রপ’র সংকট

  • আপডেট টাইম বুধবার, ৫ অক্টোবর, ২০২২
  • ২০ বা পড়া হয়েছে

কিবরিয়া চৌধুরী, নবীগঞ্জ থেকে ॥ নবীগঞ্জ উপজেলায় ঘরে ঘরে বাড়ছে চোখ ওঠা রোগীর সংখ্যা। বলা যায় হঠাৎ করেই বেড়েছে এ রোগের প্রকোপ। চোখ ফোলা, লাল হয়ে যাওয়া, পানি পড়া, চুলকানো ও ব্যথাসহ নানা যন্ত্রণায় ভুগছেন এই রোগে আক্রান্তরা। গত এক সপ্তাহে এ রোগে আক্রান্ত হয়েছেন উপজেলার হাজার হাজার মানুষ।
আক্রান্ত এক রোগী বলেন, ‘হঠাৎ দেখি চোখ লাল হয়ে গেছে, পানি পড়ছে। ভাবলাম চোখে ময়লা পড়েছে, তাই চোখে পানি দিলাম। কিন্তু কোনো লাভ হয়নি। পরের দিন দেখি চোখ পুরো লাল হয়ে আছে। তখন ডাক্তারকে দেখালাম। তিনি বললেন, আমার চোখ ওঠেছে। কিছু নিয়ম মানতে হবে। সঙ্গে ব্যবহার করতে হবে ওষুধ ও ড্রপ।
এদিকে চোখ ওঠা রোগের প্রকোপ দেখা দেওয়ার পর উপজেলার বিভিন্ন ফার্মেসিতে ওষুধ পাওয়া যাচ্ছে না। উপজেলার বিভিন্ন বাজারে যেমন, নবীগঞ্জ বাজার, আউশকান্দি বাজার, গোপলা বাজার, সৈয়দপুর ও ইনাতগঞ্জ বাজারের ফার্মেসি মালিকদের সঙ্গে আলাপকালে জানা যায়, গত কয়েকদিন ধরে ফার্মেসিতে প্রচুর চোখ ওঠা রোগী ভিড় করছেন। আক্রান্তদের অধিকাংশই ড্রপ নিতে আসছেন। জটিল কোনো রোগী দেখলে তাদের চক্ষু চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে বলছেন তারা।
নবীগঞ্জ পৌর শহরের বাসিন্দা জাকির হোসেন বলেন, ‘আমার যখন এই সমস্যা দেখা দেয় তখনই ডাক্তারের পরামর্শ নিই। ডাক্তার কিছু পরামর্শ ও ড্রপ ব্যবহার করতে বলে। তবে দুঃখের বিষয় হলো নবীগঞ্জ বাজারে ওষুধের দোকান গুলো ঘুরতে ঘুরতে শেষ একটি ফার্মেসীতে ড্রপ পেয়েছি।
নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ আব্দুস ছামাদ বলেন, ‘এই রোগটির নাম হচ্ছে কনজাংটিভা ভাইরাস, যা সারাদেশের ন্যায় নবীগঞ্জেও দেখা যাচ্ছে। তবে এতে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। আক্রান্ত ব্যক্তিকে সাবান পানি দিয়ে কিছুক্ষণ পর পরই হাত পরিস্কার করতে হবে। কোনো কারণে চোখ ভেজা থাকলে টিস্যু পেপার দিয়ে মুছে নিতে হবে। ব্যবহারের পর টিস্যু পেপারটি অবশ্যই ময়লার ঝুড়িতে ফেলে দিতে হবে। এ ছাড়া চোখ ওঠলে কালো চশমা ব্যবহার করতে হবে। এতে একজনের চোখ অন্য জনকে স্পর্শ করা কমবে এবং ধুলাবালু, ধোঁয়া থেকে চোখ রক্ষা পাবে। এ ছাড়া চিকিৎসকের পরামর্শে ড্রপ ও ওষুধ ব্যবহার করতে হবে। তিনি জানান, একসাথে প্রচুর চোখ ওঠা রোগের প্রকোপ দেখা দেওয়ায় ড্রপ-ঔষধ ফার্মেসিতে সাময়িক সংকট দেখা দিয়েছে। শীগ্রই ঠিক হয়ে যাবে।

 

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com