মঙ্গলবার, ০৯ অগাস্ট ২০২২, ১০:১৮ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
পবিত্র আশুরা আজ বঙ্গমাতা ছিলেন বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক সহযোদ্ধা-এমপি আবু জাহির বানিয়াচঙ্গে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থদের তথ্য প্রেরণে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ ॥ তালিকায় রয়েছে একই পরিবারের ৪ জন আছে মিঠামইন ও অষ্টগ্রাম উপজেলার লোক ক্যান্সারসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত ৯ জনের মাঝে অনুদানের চেক বিতরণ দুর্দিনে বঙ্গবন্ধুকে অনুপ্রেরণা দিয়েছেন বঙ্গমাতা-মিজানুর রহমান শামীম জালালাবাদ এসোসিয়েশনের পুনর্বাসন কার্যক্রমে ১০ লাখ টাকা অনুদান দিয়েছেন সায়হাম গ্রুপের পরিচালক সৈয়দ ইশতিয়াক ও সৈয়দ শাফকাত হবিগঞ্জ-১ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী দুলাল আহমদ তালুকদার নিজামপুর ইউনিয়ন জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক কমিটি অনুমোদন ॥ আহ্বায়ক আসগর আলী, যুগ্ম আহ্বায়ক ফরিদ মিয়া থানা পুলিশের নাম ভাঙ্গিয়ে সোর্স ও দালালদের অপকর্ম জ্বালানি তেল ও সারের দাম কমানোর দাবিতে হবিগঞ্জে বাসদের বিক্ষোভ

২৬ বছর পর চাঞ্চল্যকর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ চৌধুরী হত্যা মামলার রায় ॥ ৩১ আসামীর মধ্যে ১৭ জন খালাস ॥ ১৪ জন মারা গেছেন

  • আপডেট টাইম মঙ্গলবার, ২ আগস্ট, ২০২২
  • ১১ বা পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বানিয়াচং উপজেলার বান্ডা বিলকে কেন্দ্র করে আলোচিত সুজাতপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান এডভোকেট আব্দুল্লাহ চৌধুরী হত্যা মামলায় দীর্ঘ ২৬ বছর পর রায় ঘোষণা করা হয়েছে। দুইজন আসামীর ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি থাকার পরও সাবেক চেয়ারম্যান এনাম খান ফরিদসহ ১৭ আসামী বেখসুর খালাস পেয়েছেন। অপর ১৪ আসামী বিচার চলাকালে মৃত্যুবরণ করে। সোমবার দুপুরে হবিগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ এস এম নাসিম রেজা এই রায় ঘোষণা করেন।
আদালত সূত্রে জানা যায়, ১৯৯৭ সালের ৪ জানুয়ারী সকালে বানিয়াচং উপজেলার সুজাতপুর ইউনিয়নের দত্তপাড়া গ্রামের দক্ষিণ দিকে খোয়াই নদীতে ভাসমান অবস্থায় শতমুখা গ্রামের বাসিন্দা ইউপি চেয়ারম্যান এডভোকেট আব্দুল্লাহ চৌধুরীর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এর তিনদিন পূর্বে ১ জানুয়ারী রাত ১১টার পর থেকে তিনি নিখোঁজ ছিলেন। এই ঘটনায় লাশ উদ্ধারের দিনই চেয়ারম্যান আব্দুল্লার স্ত্রী সাহিনা চৌধুরী অজ্ঞাত আসামীর বিরুদ্ধে বানিয়াচং থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। বানিয়াচং থানার তখনকার এসআই বাবুল চন্দ্র বণিক ও পরবর্তীতে সহকারী পুলিশ সুপার ছিদ্দিকুর রহমান মামলাটি তদন্ত করে ১৯৯৮ সালের ১৫ জুন আদালতে চার্জশীট প্রদান করেন। চার্জশীটে শতমুখা গ্রামের বাসিন্দা সুজাতপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান এনাম খান ফরিদ, আব্দাল মিয়া চৌধুরী ও হাজী আলকাছ মিয়াসহ ৩১ জনকে অভিযুক্ত করা হয়। তদন্তকালে অনেক সন্দেহভাজন আসামীকে গ্রেফতার করা হয়। এর মাঝে আবেদ আলী ও আব্দুল হাই (মৃত) নামে দুইজন আসামী গ্রেফতারের পর তখনকার ১ম শ্রেণীর ম্যাজিস্ট্রেট তপন চন্দ্র বণিকের নিকট ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি প্রদান করে হত্যার দায় স্বীকার এবং সহযোগীদের নাম প্রকাশ করেন। আদালত ১২ জনের স্বাক্ষ্যগ্রহণ করে। ২০১৩ সালের ২৯ জানুয়ারী সর্বশেষ স্বাক্ষ্যগ্রহণ হয়। কিন্তু বাদী পক্ষ বিভিন্ন সময় মামলাটি হাইকোর্টে আবেদন করে বিচারকাজ স্থগিত রাখলে দীর্ঘদিন পর সোমবার মামলার রায় ঘোষণা করেন বিচারক। রায় ঘোষণাকালে বাদী সাহিনা চৌধুরী উপস্থিত না থাকলেও আসামীরা ও তাদের আত্মীয় স্বজন উপস্থিত ছিলেন।
রায় ঘোষণার পর রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অতিরিক্ত পিপি এডভোকেট সালেহ আহমদ ও এডভোকেট আবু বক্কর ছিদ্দিকী বলেন, এই রায়ে তারা অসন্তুষ্ট। দুইজন আসামীর ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি ও ১২জনের স্বাক্ষ্য গ্রহণের পর অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ার পরও আসামীরা খালাস পাওয়ায় তারা ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত হয়েছেন।
আসামী পক্ষের আইনজীবী এডভোকেট চৌধুরী আশরাফুল বারী নোমান ও এডভোকেট সুফি মিয়া এই রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, এই আদেশে ন্যায় বিচার প্রতিষ্টিত হয়েছে। মামলার এজাহারে কোন আসামী না থাকলেও হয়রানীমূলকভাবে এই আসামীদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয় এবং তারা দীর্ঘদিন আদালতে আসা যাওয়া করতে হয়েছে।
মামলার রায় ঘোষণাকালে আদালতে উপস্থিত ছিলেন শতমুখা গ্রামের ৮৫ বছর বৃদ্ধ মামলার অভিযুক্ত হাজী আলকাছ মিয়া। তার একটি পা না থাকায় হুইল চেয়ারে বসে আদালতের নিচেই অবস্থান করেন। রায় প্রকাশের পর আনন্দ প্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘আমি এই বৃদ্ধ বয়সে অতি কষ্টে আদালতে এসেছি। ২৬টি বছর এভাবে আমাকে কষ্ট করতে হয়েছে। আমি ২ মাস জেলও কেটেছি। আমার পরিবার অনেক কষ্ট করেছে। এই রায়ে আমি আনন্দিত’।

 

 

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com