রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:৫৩ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
সাতছড়ি উদ্যান পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব লাখাই উপজেলার কৃষ্ণপুর গণহত্যা দিবস পালিত শিবপাশা নবদম্পতির আত্মহত্যার চেষ্টা আজমিরীগঞ্জের কাকাইলছেও ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রের নার্স ও সহকারীর বিরুদ্ধে এন্তার অভিযোগ দূর্গাপূজা উপলক্ষ্যে নতুন শাড়ি ও মাস্ক বিতরণ করেছেন গিরেন্দ্র চন্দ্র রায় চুনারুঘাট উপজেলা যুবলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত নবীগঞ্জে সিএনজি চোর চক্রের সদস্য গ্রেফতার ॥ সিএনজি ফিরিয়ে দেয়ার নামে ১ লাখ টাকাও হাতিয়ে নেয় নবীগঞ্জ প্রেসক্লাবের কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় সাংবাদিক সরওয়ার ও মুজিবের উপর মিথ্যা মামলা দায়েরে নিন্দা হবিগঞ্জে ৯/১১ ব্যাচের বন্ধুদের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে মিলন মেলা বিএনপির মতবিনিময় সভায় জিকে গউছ ॥ মানুষের ভোটাধিকার ছিনতাই করে আ.লীগ গণতন্ত্র ধ্বংস করেছে

হবিগঞ্জে শতাধিক কিন্ডারগার্টেন বন্ধ হওয়ার আশংকা

  • আপডেট টাইম বুধবার, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৩ বা পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জে শতাধিক কিন্ডারগার্টেন বন্ধ হওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে। অনলাইন ক্লাসে শিক্ষার্থীদের সারা না পাওয়া, শিক্ষার্থীদের অধিকাংশই সরকারি প্রাইমারী স্কুলে চলে যাওয়া, অনেকে আবার বছরের শেষ সময় ধরে শিক্ষার্থী স্কুলে পাঠাতে অনিহা প্রকাশ, শিক্ষকদের বেতন দিতে না পারা, বাড়িভাড়া মেটাতে না পারাসহ বেশ কয়েকটি কারণে এসব স্কুল বন্ধ হওয়ার উপক্রম দেখা দিয়েছে। ইতিমধ্যে অন্তত ৩০টি স্কুল বন্ধ হয়ে গেছে। কোথাও প্রতিষ্ঠা পেয়েছে মাদ্রাসা। আবার কোথাও বন্ধ থেকে ঝোপঝাড় সৃষ্টি হয়েছে।
এ বিষয়ে জেলা কিন্ডারগার্টে এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক বাড্স কিন্ডারগার্টেন ও হাইস্কুলের অধ্যক্ষ নূর উদ্দিন জাহাঙ্গীর জানান, প্রাইভেট স্কুল চালাতে অর্থনৈতিক বিষয় জড়িত থাকে। এ ক্ষেত্রে গত প্রায় দেড় বছর বন্ধ থাকা মানে ২টি বছর বন্ধ থাকা। এ সময়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর আয় একেবারে বন্ধ ছিল। কিন্তু খরচ থেমে নেই। প্রায় সবাই বাড়ি ভাড়া নিয়ে স্কুল পরিচালনা করেন। করোনাকালে তারা অনেকেই হয়তো স্কুল খোলার পর ভাড়া পরিশোধ করবেন বলে মালিককে জানিয়েছিলেন। কিন্তু দেখা যাচ্ছে এখন শিক্ষার্থী পাওয়া যাচ্ছেনা। অনেকেই সরকারি প্রাইমারী স্কুলে চলে গেছে। অনেকেই আবার মাত্র ১ মাসের জন্য শিশুদের স্কুলে পাঠাতে চাচ্ছেন না। এ অবস্থায় অর্থনৈতিক সংকট চরম আকার ধারণ করেছে। শিক্ষকদের বেতন দিতে পারছেনা। অনেকে অনলাইন ক্লাসও করাতে পারেনি। অনেকে আবার শিক্ষার্থীদের সারা পায়নি। তবে এ বছর অন্তত ১শ’ স্কুল জেলায় বন্ধ হওয়ার আশংকা রয়েছে। এসোসিয়েশনের সভাপতি সাইনিং স্টার কেজি এন্ড হাইস্কুলের প্রতিষ্ঠাতা সৈয়দ এবাদুল হাসান জানান, স্কুল খোলার পর দেখা যাচ্ছে অবস্থা অত্যন্ত করুণ। শিক্ষার্থী আসছেনা। বছরের শেষ সময় বলেই এ সমস্যা দেখা দিচ্ছে। তবে আশা করা যাচ্ছে নতুন বছরে কিছু শিক্ষার্থী পাওয়া যাবে। তিনি বলেন, অনেক শিক্ষার্থী সরকারি প্রাইমারী স্কুলে চলে গেছে। অনেকে আবার বছরের শেষ সময় এসে টাকা দেয়ার ভয়ে স্কুলে পাঠাতে চাচ্ছেন না। এ অবস্থায় কিন্ডারগার্টেনগুলোর টিকে থাকা বেশ কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে। তিনি বলেন, আমার যেখানে ২ বছরে ৪ লাখ আয় হওয়ার কথা সেখানে ক্ষতি হয়েছে ৫ লাখ টাকা। ম্যাক কিন্ডারগার্টেনের প্রতিষ্ঠাতা অপর একটি এসোসিয়েশনের সভাপতি সাদত হোসেন জানান, করোনা আসার পর থেকেই মূলত তার প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। এখন শিক্ষার্থী আসেনা। ভাড়া মেটানো। শিক্ষকদের বেতন দেয়া। সর্বোপরি মূলত অর্থনৈতিক কারণেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ হচ্ছে। সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, শহরের নিউ মুসলিম কোয়ার্টার এলাকায় প্রতিষ্ঠিত ম্যাক কিন্ডারগার্টেন গত বছর করোনা শুরু হওয়ার পর থেকেই বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এ স্থানে এখন ভাড়া দেয়া হয়েছে একটি হাফিজিয়া মাদ্রাসাকে। মুসলিম কোয়ার্টার এলাকায় নিয়াস মডেল স্কুলে তালা ঝুলছে। ভেতরে ঝোপঝাড় তৈরী হয়েছে। ভেঙ্গে যাচ্ছে জানালাগুলো। এটিও দীর্ঘদিন ধরেই বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।
জেলা শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, জেলায় মোট ৪৩৩টি কিন্ডারগার্টেন স্কুল রয়েছে। এর মধ্যে সদর উপজেলায় ১২২টি, বাহুবলে ৩৯টি, লাখাইয়ে ১১টি, আজমিরীগঞ্জে ৮টি, শায়েস্তাগঞ্জে ২৪টি, মাধবপুরে ৬৭টি, নবীগঞ্জে ৬৩টি, বানিয়াচংয়ে ২৭টি এবং চুনারুঘাটে ৭২টি বিদ্যালয় রয়েছে। এর মধ্যে বেশ কিছু বিদ্যালয় বন্ধ হয়ে গেছে। তবে কতগুলো বন্ধ হয়েছে তার সঠিক হিসাব পাওয়া যাবে যখন তারা নতুন বছরে বই নিতে আসবে।

 

 

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com