বুধবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ০১:৩৬ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
করোনা ভাইরাস ॥ চীন ফেরত শিক্ষার্থী নিয়ে হবিগঞ্জে স্বাস্থ্য বিভাগের লুকোচুরি চাঁদাবাজির কারণে থমকে গেছে গুঙ্গিয়াজুরী হাওরে ৪০ হাজার মন ধান উৎপাদন ্॥ কৃষকদের ৪ কোটি টাকা ক্ষতির আশংকা ৯ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে জ্বিনের বাদশা ! ॥ সর্বস্ব খুইয়ে ওই ব্যক্তি পাগল প্রায় ॥ আতঙ্ক গ্রস্থ পরিবার বহুলায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভবন নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেছেন এমপি আবু জাহির শহরের বদরুন্নেছা (প্রাঃ) হাসপাতালের মালিক দাবিদার বদরুন্নেছার বিরুদ্ধে এন্তার অভিযোগ নবীগঞ্জে স্বাস্থ্য সহকারী ও স্বাস্থ্য পরিদর্শক এসোসিয়েশনের কেন্দ্রীয় দাবী আদায়ের লক্ষ্যে হাম-রুবেলা ক্যাম্পেইনের প্রশিক্ষন বর্জন হবিগঞ্জ শহরে কিশোরকে ছুরিকাঘাত করেছে যুবতী কালিয়ারভাঙ্গা ইউনিয়নে গণফোরামের ৫ নং পুরানগাঁও ওয়ার্ড কমিটি গঠিত বাহুবলে জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান ॥ অমর একুশে বইমেলা মহান ভাষা আন্দোলনের স্মৃতিকে জাগ্রত রাখছে শায়েস্তাগঞ্জ জিয়াখাল রেল ব্রীজটি হুমকির মুখে
নবীগঞ্জের কথিত সেই জিন্দাপীর এবার পানিতে ভেসে কেরামতি

নবীগঞ্জের কথিত সেই জিন্দাপীর এবার পানিতে ভেসে কেরামতি

মোঃ আলমগীর মিয়া, নবীগঞ্জ থেকে ॥ ৩দিন কবরবাসের পর নবীগঞ্জের কথিত সেই জিন্দাপীর জিতু মিয়া এবার হাত-পা বাধা অবস্থায় পানিতে ভেসে কেরামতি দেখিয়েছেন। এভাবে ভেসে থাকাকে তার ভাষায় এটা পানি চিল্লা। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পুকুরে চিল্লায় যান তিনি।
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, জিতু মিয়া পুকুরের ঘাটে যান। এসময় একজনকে দিয়ে দুইটি নতুন গামছা কিনে আনা হয়। ওই গামছা দিয়ে তার হাত-পা বাধার পর লোকজনকে পুকুরে নামিয়ে দিতে বলেন জিতু মিয়া। কিন্তু কোন ব্যক্তি তাকে পুকুরে নামিয়ে দিতে সাহস করেনি। অতপর জিতু মিয়ার পায়ের বাধন খুলে দিলে তিনি নিজেই ঘাটের পানির সিড়িতে গিয়ে পা বেধে দিতে বলেন। লোকজন তার পা বেধে দেয়ার পর তিনি বাবা মাহবুব রাজা বলে নিজেই পুকুরের পানিতে নেমে প্রথমে ডুবে যান এবং মূহুর্তেই ভেসে উঠেন। দুপুর দেড়টার দিকে তাকে পুকুর থেকে উঠানো হয়। পানিতে ভাসমান অবস্থায় তাকে দেখতে পুকুর পাড়ে উৎসুক জনতা ভীড় জমায়। তার এসব  কর্মকাণ্ড নিয়ে এলাকার সর্বত্র আলোচনা ঝড় বইছে।
পানিতে নামার আগে তিনি দৈনিক হবিগঞ্জের জনতার এক্সপ্রেসকে বলেন, আমার দয়াল মুর্শীদ, পীর, আধ্যাতিক জগতের সাধক বাবা মাহবুব রাজা আমাকে স্বপ্নযোগে বলেছেন, আমি যেন কবর চিল্লা, পানি চিল্লা, আগুন চিল্লা দেয়ার পর দয়ালের নামে ওরস করি। দয়ালের আদেশ পাইয়া আমি গত শনিবার রাতে আমার বাড়ি পৌর এলাকার পূর্ব তিমিরপুর গ্রামে শনিবার রাত ৩টায় কবরবাসে যাই এবং মঙ্গলবার দুপুর ১২টায় কবরবাস থেকে উঠে আসি। দয়ালের কথামতে আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা থেকে বিকাল ২টা পর্যন্ত হাত পা বাধা অবস্থায় পানিতে ভেসে থাকব। এরপর আমি কিছুদিনের মধ্যে অগ্নি  চিল্লায় যাবো। কোথায় কখন অগ্নি চিল্লায় যাবেন, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন-আমি ভক্ত, আশেকান ও মুরিদানদের কাছে ৭০ মন লাকড়ি  চেয়েছি। লাকড়ী যোগাড় হলেই অগ্নি চিল্লা করার পর বাবা মাহবুব রাজার নামে আমি ওরস করবো।
স্থানীয়রা জানান, কথিত এই জিন্দাপীর জিতু মিয়ার এমন ঘটনা নতুন কিছু নয়। পানি ভেসে যাওয়া ও কবরে বসবাস এসব কর্মকাণ্ড তিনি এর আগেও অনেক জায়গায় করেছেন। কিন্তু এবারেই প্রথম তিনি অগ্নি চিল্লা দিবেন বলে জানায়।
কথিত জিন্দা শাহ বলেন, তিনি ৪৫ বছর ধরে বিভিন্ন মাজারে গিয়ে ওলী, আউলীয়া ও পীরের সান্নিধ্য নিলেও তার পীর মাহবুব রাজা। আর তার পীরের আদেশে তিনি এসব কর্মকাণ্ড করে যাচ্ছেন বলে জানান।
কথিত জিন্দা বাবা ওরপে জিতু মিয়ার মূল বাড়ি সুনামগঞ্জ জেলার শাল্লা উপজেলার ইসলামপুর গ্রামে। স্বাধীনতা সংগ্রামের সময় পৌর এলাকার তিমিরপুর গ্রামের মনর মিয়ার কন্যা জাহেদা বিবিকে বিয়ে করেন। তিনি ৩ ছেলে ও ২ মেয়ের জনক। বিগত ২০ বছর আগে লন্ডনী এক ভক্তের দেয়া ৪ লক্ষ  টাকা জায়গা কিনে বাড়ী করে ওই বাড়িতে পরিবারের লোকজন নিয়ে বসবাস করছেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com