সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:০২ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
সিলেট এমসি কলেজে স্বামীকে বেধে স্ত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় ॥ হবিগঞ্জ থেকে ধর্ষক অর্জুন রনি ও রবিউল গ্রেফতার মাধবপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় চালক ও হেলপার নিহত নবীগঞ্জের প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সাইফুলের অনিয়মের তদন্ত শুরু নবীগঞ্জে ৭ মামলার পলাতক আসামী ইয়াহিয়া অধরা বানিয়াচঙ্গের নয়াপাথারিয়া গ্রামের ডাবল মার্ডার মামলার আসামী যুবদল নেতা কুহিনুর আলম কারাগারে ডাঃ মুশফিক হুসেন চৌধুরীকে সংবর্ধনা সিলেট বিভাগের শ্রেষ্ট উপজেলা চেয়ারম্যান মোতাচ্ছিরুল ইসলামকে গণসংবর্ধনা প্রদান হবিগঞ্জ জীবন বীমা কর্পোরেশন সেলস অফিসের ব্যবসা উন্নয়ন সভা অনুষ্ঠিত শহরে নাম্বার প্লেইটের দাবিতে শ্রমিকের বিক্ষোভ ও সমাবেশ দাবী আদায়ে অনশনের হুমকি লাখাইয়ে মেম্বারের বিরুদ্ধে চাল আত্নসাতের অভিযোগ
হবিগঞ্জ শহরে পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে ১ ডাকাত নিহত

হবিগঞ্জ শহরে পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে ১ ডাকাত নিহত

মোঃ ছানু মিয়া ॥
হবিগঞ্জ শহরে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে ডাকাত-পুলিশ বন্দুকযুদ্ধে এক ডাকাত নিহত হয়েছে। এ সময় ডাকাতদের আক্রমনে এসআই সহ ৫ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। নিহত ডাকাতের নাম আলাল মিয়া (৩০)। সে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার সুলতানশী গ্রামের রহমত আলীর ছেলে। তার বিরুদ্ধে ডাকাতি ও অস্ত্র মামলাসহ ১০টি মামলা রয়েছে। মঙ্গলবার দিবাগত রাত সাড়ে ৩টার দিকে মাছুলিয়া এলাকার শীতল বাবুর বাড়ির পূর্ব পার্শ্বে খোয়াই নদীর তীর সংলগ্ন লেবু বাগানে এ ঘটনাটি ঘটেছে। এদিকে পুলিশের গুলিতে ডাকাত নিহত হওয়ার খবর শহরে ছড়িয়ে পড়লে সাধারণ মানুষের মাঝে স্বস্তি ফিরে আসে। তারা হবিগঞ্জের পুলিশ সুপার জয়দেব কুমার ভদ্র, সহকারী পুলিশ সুপার সুদ্বীপ্ত রায়, রাসেলুর রহমান, সদর থানার ওসি ইয়াছিনুল হক, এসআই আব্দুল্লাহ জাহিদ, অরুপ কুমার চৌধুরী, এসআই মিজানুর রহমানসহ পুলিশ প্রশাসনের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। শহরবাসী আশা করেন খুব শীঘ্রই ডাকাতির মূলহুতাদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনবে পুলিশ।
পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ওই রাতে হবিগঞ্জ থানার ওসি ইয়াছিনুল হকের নেতৃত্বে একদল পুলিশ টহল দিচ্ছিল। এ সময় শীতল বাবুর বাড়ির পূর্ব পার্শ্বে ১০/১২ জন লোকের উপস্থিতি টের পেয়ে পুলিশের সন্দেহ হয়। পুলিশ তাদেরকে চ্যালেঞ্জ করলে ডাকাতরা ধারালো অস্ত্র দিয়ে পুলিশের উপর হামলা চালায়। পুলিশ এ সময় প্রতিহত করার চেষ্টা করলে ডাকাতরা এক পর্যায়ে গুলি চালায়। জবাবে পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। গোলাগুলির এক পর্যায়ে অন্যান্য ডাকাতরা পিছু হটে খোয়াই নদী সাতরে ওপার দিয়ে পালিয়ে যেতে সক্ষম হলেও গুলিবিদ্ধ অবস্থায় আলালকে আটক করা হয়। আহত অবস্থায় তাকে হবিগঞ্জ হাসপাতালে নিয়ে আসার পর ডাক্তার মৃত ঘোষণা করেন। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ডাকাতির কাজে ব্যবহৃত রামদা, গ্রীল কাটার মেশিন, অত্যাধুনিক চাইনিজ চাকুসহ বিপুল পরিমাণ সরঞ্জাম উদ্ধার করে। ডাকাতদের আক্রমনে সদর মডেল থানার এসআই মিজানুর রহমান, এসআই অরূপ কুমার চৌধুরী, কনস্টেবল ইয়াসির ও কনস্টেবল কর্ণমনিকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ ১১ রাউন্ড চাইনিজ রাইফেল ও ২৭ রাউন্ড শর্টগানের গুলি নিক্ষেপ করে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।
হবিগঞ্জ সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইয়াসিনুল হক বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, এক ডাকাত নিহত হয়েছে। নিহত ডাকাতের বিরুদ্ধে হবিগঞ্জ জেলার বিভিন্ন থানায় ডাকাতি ও অস্ত্র মামলাসহ ১০টি মামলা রয়েছে।
গতকাল বিকেলে ময়না তদন্ত শেষে আলালের লাশ গ্রহণ করেন তার বড় ভাই জালাল উদ্দিন। জালাল উদ্দিনের সাথে আলাপ হলে তিনি জানান, মাস ছয় মাস ধরে আলাল তার শ্বশুর বাড়ি যমুনাবাদ গ্রামে স্বপরিবারে বসবাস করছিল। নিহত আলালের স্ত্রী এবং ২ছেলে ও ২ মেয়ে রয়েছে।
এ ব্যাপারে লস্করপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আমজদ আলী জানান, আলাল এলাকার একজন কুখ্যাত ডাকাত ছিলেন। তাকে আমি নিজে কয়েকবার ধরে পুলিশে দিয়েছি। তার নিহত হওয়ার খবর শুনে এলাকাবাসী খুশী এবং প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানিয়েছে বলে তিনি জানান।
এদিকে ওই এলাকার জনৈক মহিলার সাথে আলাপ হলে তিনি জানান, রাতে গোলাগুলির শব্দ শুনে ঘুম থেকে জেগে উঠি। প্রথমে এলাকার লোকজন চরম ভয় পেয়ে গিয়েছিলাম। পরে পুলিশের গাড়ি দেখে আমরা সাহস পাই।
অপরদিকে পুলিশের গুলিতে ডাকাত নিহত হওয়ার ঘটনাটি ছিল গতকাল ‘টক অব দ্য টাউন’। এ ব্যাপারে শহরের কয়েকজনের সাথে আলাপ হলে প্রতিক্রিয়ায় তারা জানান, একটি জেলা শহরে একের পর এক ডাকাতির ঘটনায় শহরবাসী আতঙ্কিত ছিল। এ ঘটনায় ডাকাতদের মধ্যে ভীতির সঞ্চার হবে এবং জনমনে অনেকটা স্বস্তি ফিরে আসবে বলে তারা মন্তব্য করেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com