বৃহস্পতিবার, ০৪ মার্চ ২০২১, ০৬:০৬ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
সাতছড়িতে বিজিবির অভিযান রকেট লাঞ্চারের ১৮টি গোলা উদ্ধার হবিগঞ্জে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ম্যারাথন এর উদ্বোধন সাতছড়ি উদ্যানে পূর্বের ৬ অভিযানে যা যা মিলেছে উদ্ধার হওয়া রকেট লাঞ্চারের গোলাগুলো খুব বিপজ্জনক আলোচনায় কাহালু ও চট্টগ্রামের ১০ ট্রাক অস্ত্র নোয়া হাটি সংবর্ধনা সভায় মেয়র সেলিম ॥ আমি হবিগঞ্জ পৌরবাসীর ভালবাসা কুড়িয়ে নিতে চাই হবিগঞ্জ পৌরসভার নব-নির্বাচিত ২ কাউন্সিলরকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী নবীগঞ্জে মাদকাসক্ত স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা ॥ হুমকির মুখে নিরিহ পরিবার পৌরসভার নবনির্বাচিত মেয়রের সঙ্গে ব্যাংকারদের শুভেচ্ছা বিনিময় নবীগঞ্জে শেখ মুজিব ঢাকা ম্যারাথন ২০২১ প্রতিযোগীতায় ॥ ২৩ বিজয়ী
নবীগঞ্জের আলোচিত জ্যোস্না হত্যা মামলা \ দাখিলকৃত চার্জশীটের বিরুদ্ধে বাদীর নারাজী

নবীগঞ্জের আলোচিত জ্যোস্না হত্যা মামলা \ দাখিলকৃত চার্জশীটের বিরুদ্ধে বাদীর নারাজী

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি \ নবীগঞ্জ পৌর শহরতলীর গন্ধ্যা গ্রামের তৎকালীন কাউন্সিলর মিজানুর রহমান মিজানের বাড়ির আঙ্গিনা থেকে হবিগঞ্জের উচাইল গ্রামের জ্যোস্না আক্তারের লাশ উদ্ধার মামলার চার্জশীট আদালতে দাখিল করা হয়েছে। দাখিলকৃত চার্জশীট থেকে এজাহারভুক্ত আসামীদের বাদ দিয়ে বর্তমান কাউন্সিলর জাকির হোসেনসহ কয়েক জনকে চার্জশীটে অভিযুক্ত করায় বিরূপ প্রতিক্রিয়ার দেখা দিয়েছে। এছাড়া মামলার বাদী নিহত জ্যোস্নার ভাই বিজ্ঞ আদালতে চার্জশীটের বিরুদ্ধে নারাজি আবেদন দাখিল করেছেন। তবে ঘটনার পর থেকেই এলাকাবাসী জ্যোস্নœা হত্যার ঘটনায় দায়েরী মামলার ১নং আসামী মিজানুর রহমান মিজানকে বাদ দিয়ে এবং নিরাপরাধ কাউন্সিলর জাকির হোসেনসহ সাধারন মানুষের বিরুদ্ধে চার্জশীট দাখিল করার অভিযোগ রয়েছে।
উলে­খ্য, ২০১৪ সনের ১০ ডিসেম্বর নবীগঞ্জ পৌর এলাকার গন্ধা গ্রামের বাসিন্দা সাবেক কাউন্সিলর মিজানুর রহমান মিজানের বাড়ির সীমানা প্রাচীরের ভ্যালেন্টারের সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় হবিগঞ্জ সদর উপজেলার উচাইল গ্রামের মৃত মরম আলীর মেয়ে জোৎস্না আক্তারের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ঘটনার পর পরই পুলিশের গ্রেফতার এড়াতে মিজান আত্মগোপনে যান। পরদিন জোৎস্না আক্তারের বড় ভাই বাদি হয়ে মিজানকে প্রধান আসামী করে ৫ জনের বিরুদ্ধে নবীগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলায় উলে­খ করা হয়, জোৎস্নœা আক্তারকে চাকুরীর প্রলোভন দেখিয়ে তার বাড়ি থেকে নিয়ে মামলার আসামীরা নির্মমভাবে হত্যা করে। মামলাটি একাধীক কর্মকর্তা তদন্ত করেন এবং এর অনেক রহস্য উদঘাটন হয়। এছাড়াও মামলার তদন্ত কর্মকর্তারা ও উর্ধŸতন কর্তৃপক্ষ এর সত্যতা পান। মামলার তদন্তের দায়িত্বভার গ্রহন করেন হবিগঞ্জের গোয়েন্দা পুলিশ। কিন্তু মামলার এজাহারভ‚ক্ত সকল আসামীদের বাদ দিয়ে নতুন লোকদের অন্তর্ভূক্ত করে কাল্পনিক ভাবে চার্জশীট দাখিল করা হয়। উক্ত চার্জশীটে মিজানের সাথে নির্বাচনী প্রতিদ্ব›িদ্ব উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহŸায়ক ও ১নং ওয়ার্ডের নব-নির্বাচিত কাউন্সিলর জাকির হোসেন, লন্ডন প্রবাসী সুফি মিয়া, আকবর উদ্দিন এবং প্রতিবন্ধি জামির হোসেনসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে চার্জশীট দাখিল করেন। মামলার বাদি রজব ফকির আলী বিজ্ঞ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমল-৫ আদালতে একটি নারাজি দেন। এতে তিনি দাবী করেন, ঘটনার মূল হুতা মিজানসহ মামলার এজহারভ‚ক্ত আসামীদের বাদ দিয়ে চার্জশীট দাখিল করা হয়েছে। এবং গ্রামের সাধারণ ও নিরাপরাধ মানুষদের জড়িত করে মনগড়া, বানোয়াট চার্জশীট দাখিল করা হয়েছে। এতে মামলার বাদী তার বোন হত্যার ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলেও উলে­খ করেন।
সচেতন মহলের ধারনা, মামলার মুল আসামী বহুল আলোচিত আগ্নেয়াস্ত্র মামলাসহ একাধিক মামলার আসামী মিজানুর রহমান মামলার তদন্ত কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করে নির্বাচনী প্রতিদ্ব›িদ্ব ও তার প্রতিপক্ষের লোকদের বিরুদ্ধে চার্জশীট দাখিল করায়।
মামলার বাদির সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি চার্জশীটের বিরুদ্ধে নারাজী দাখিলের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, মামলার প্রধান আসামী মিজান তাকে নারাজি না দেয়ার জন্য বড় অংকের টাকার অফার দেন।
আলোচিত মামলাবাজ মিজান ২০০৭ সালের ২২ নভেম্বর তার আপন চাচাতো ভাই উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাক আহমেদ মিলুর বাড়ির পানির ট্যাংকে একটি রিভলবার রেখে ফাঁসাতে গিয়ে নিজেই র‌্যাবের হাতে আটক হয়।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com