বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯, ০৯:৩৬ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
শহরে হাইব্রিড হীরা-২ নকল ধান বীজ তৈরির কারখানা আবিস্কার ॥ বিপুল পরিমাণ ক্যামিকেল, নকল বীজ ও প্যাকেট জব্ধ ॥ গুদাম সীলগালা হবিগঞ্জে সেমিনারে সিটিটিসি কর্মকর্তা ॥ জঙ্গীদের পরিবারের দুর্দশার চিত্র তুলে ধরলেও সচেতনতা আসতে পারে নবীগঞ্জে যুবতি অপহরণের অভিযোগে ১৪ বছর জেল লবন নৈরাজ্য ॥ হবিগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে ২০ ব্যবসায়ীকে জরিমানা সমাপনী পরীক্ষা দিয়ে বাড়ি ফেরা হলো না নবীগঞ্জে ইয়াসমিনের নবীগঞ্জে ফরিদ গাজীর নবম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল বাহুবলে ইজিবাইক উল্টে ১ জনের মৃত্যু নবীগঞ্জে গণফোরামের প্রথম সভায় বক্তারা ॥ ড. রেজা কিবরিয়া সিলেট বিভাগের গর্ব তারেক রহমানের জন্ম বার্ষিকী উপলক্ষ্যে সদর উপজেলা বিএনপির মিলাদ মাহফিল সাংবাদিক সলিল এর পিতার পরলোকগমন ॥ শোক প্রকাশ
নবীগঞ্জে আপন দু’বোনের প্রেমের বলি প্রেমিক রুমনের লাশ দাফন ॥ দুই প্রেমিকাসহ ৫ জনকে আসামী করে মামলা ॥ প্রেমিকার মা জেল হাজতে

নবীগঞ্জে আপন দু’বোনের প্রেমের বলি প্রেমিক রুমনের লাশ দাফন ॥ দুই প্রেমিকাসহ ৫ জনকে আসামী করে মামলা ॥ প্রেমিকার মা জেল হাজতে

এটিএম সালাম/কিবরিয়া চৌধুরী, নবীগঞ্জ থেকে  ॥ নবীগঞ্জে আপন দু’বোনের প্রেমের বলি হয়ে প্রেমিক রুমন হত্যাকান্ডের ঘটনায় ৫ জনকে আসামী করে হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। গতকাল রাত ১১টার দিকে নিহত’র মা জাহানারা বেগম বাদী হয়ে নবীগঞ্জ থানায় এ মামলাটি দায়ের করেন।
মামলার আসামীরা হলেন, গজনাইপুর ইউপির শংকরসেনা গ্রামের তৌলদ মিয়ার মেয়ে ও নিহত রুমন মিয়ার প্রেমিকা সুলতানা বেগম (২০) তার মা হাজেরা বেগম (৪৫) বাবা তৌলদ মিয়া (৫২) অপর প্রেমিকা বেদানা বেগম (২৩) ভাই  শিমুল মিয়া (২০)।
গতকালই নিহত প্রেমিক সিএনজি চালক রুমন মিয়ার জানাযা শেষে তার গ্রামের বাড়ি আউশকান্দির বেতাপুর গ্রামে দাফন সম্পন্ন করা হয়েছে।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, নবীগঞ্জ উপজেলার আউশকান্দি ইউনিয়নের বেতাপুর গ্রামের জামাল মিয়ার পুত্র রুমন মিয়া অটোরিক্সা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতো। গত শুক্রবার দুপুরে শংকরসেনা গ্রামের তৌলদ  মিয়ার বাড়ির পাশে একটি আম গাছে গামছা দিয়ে ঝুলানো অবস্থায় তার লাশ পাওয়া যায়। খবর পেয়ে গোপলার বাজার পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আরিফ উল্লাহর নেতৃত্বে একদল পুলিশ লাশ উদ্ধার করে। মামলার আসামীরা হলো রুমনের প্রেমিকা সুলতানা বেগম (২০) তার মা হাজেরা বেগম (৪৫) বাবা তৌলদ মিয়া (৫২) বোন বেদানা বেগম (২৩) ভাই শিমুল মিয়া (২০)।
মামলার এজাহারটি হুবহুব তোলে ধরা হলো ঃ-
মামলার বাদী জাহানারা বেগম বলেছেন তার ছেলে রুমান মিয়া পেশায় একজন সিএনজি চালিত অটো রিক্সা চালক ছিল। কিছু দিন পূর্বে ১নং বিবাদী সুলতানা বেগমের সহিত আমার ছেলে মৃতঃ রুমান মিয়ার প্রেমের সম্পর্ক গড়িয়া উঠে। মাঝে মাঝে ১নং বিবাদী আমার ছেলে রুমান মিয়াকে তাঁহার মোবাইল ফোনে কল করিয়া তাঁহাদের বাড়িতে নিয়া যাইত। ঘটনার তারিখে মৃতঃ রুমান মিয়া, সিএনজি চালিত অটো রিক্সা রাত অনুমান ৯ঃ৩০ ঘটিকার সময় মালিকের গ্যারেজে রাখিয়া আউশকান্দি বাজারে যায়। আউশকাান্দি বাজারে যাওয়ার পর স্বাক্ষী সাসুম মিয়ার সহিত দেখা হয়। ঐ সময় আমার ছেলের মোবাইল ফোনে কল আসিলে সে কলটি কাটিয়া দিয়া দ্রুত ফ্লেক্সি লোডের দোকানে যায়। ফ্লেক্সি লোডের দোকানে যাওয়ার পর হইতে তাহার কোন খোঁজ খবর পাওয়া যায় নাই। পরদিন সকাল অনুমান ৮ঘটিকার সময় লোকজনের নিকট হইতে জানিতে পারি আমার ছেলে রুমান মিয়ার লাশ ঘটনাস্থলে শংকরসেনা গ্রামে পাওয়া গিয়াছে। এই সংবাদ পাইয়া আমি সাথে সাথে কোন কোন স্বাক্ষী সহ ঘটনাস্থলে গিয়া বিবাদীগণের বসত বাড়ীর পশ্চিম দিকে পুকুরের পশ্চিম পাড়ের একটি আম গাছে আমার ছেলে রুমান মিয়ার লাশ ঐ আম গাছের একটি ডালে দুই পা দিয়া বসা অবস্থায় এবং সামান্য একটু উপড়ে অন্য একটি ডালে ও লাশের গলায় একটি মেয়েদের কামিজ দিয়া পেছানো আছে। ঐ সময় বিবাদীগণের বসত ঘরটি তালা বন্ধ দেখা যায়। বেলা ১১ ঘটিকার সময় পুলিশ আসিয়া আম গাছ হইতে আমার ছেলে রুমান মিয়ার লাশ নিচে নামায়। লাশের সুরতহাল তৈরীর সময় দেখা যায় মৃত রুমান মিয়ার ঘাড়ের দিকে কালো জখম ডান পাশের উরুতে লাল চটকানো জখমের দাগ আছে। এছাড়া মৃত রুমান মিয়ার অন্ডকোষে ছোট ছোট ছিদ্র রক্তাক্ত জখম পাওয়া যায়। আশপাশের লোকজন জানায় বিবাদীগণ অজ্ঞাত বিবাদীগণকে নিয়া আমার ছেলেকে খুন করিয়া ভোর বেলা পালাইয়া যায়। আত্মগোপনে থাকা ২নং আসামী পালাইয়া যাইতে থাকিলে স্থানীয় জনগণ তাহাকে আটক করিয়া পুলিশে সোপার্দ করেন। বিবাদীগণ অজ্ঞাত বিবাদীগণকে সাথে নিয়া আমার ছেলেকে খুন করিয়া আম গাছে ঝুলাইয়া রাখিয়াছিল। আমার স্বাক্ষী আছে বিচার চাই। ব্যক্ত থাকা আবশ্যক যে, হুজুর আমার ছেলে মৃতঃ রুমান মিয়ার দাফন কাফনে ব্যস্ত থাকায় অদ্য সামান্য বিলম্বে মামলা দায়ের করি। এ ব্যাপারে গোপলার বাজার পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আরিফ উল্লাহ জানান, মামলার মুল রহস্য উদঘাটন ও অভিযুক্ত সন্দেহ ভাজন আসামীদের ধরতে আমরা বিভিন্নস্থানে অভিযান চালিয়ে যাচ্ছি। আসা করছি খুব দ্রুততম সময়ের মধ্যেই সন্দেহভাজন আসামীদের ধরতে সক্ষম হব।
এদিকে নবীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল বাতেন খান বলেন, লাশের সুরতহালে একাধিক আঘাতের চিহ্ন পাওয়ার কারনে হত্যা মামলা হিসাবে রের্কড করা হয়েছে। এছাড়া সুলতানার মা হাজেরা বেগমকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।
অপর দিকে গতকাল বিকালে নিহত রুমনের হত্যাকারীদের ফাঁসি দাবি করে অটোরিক্সা মালিক ও শ্রমিক সমিতি প্রতিবাদ সভা করে। সভায় আগামী ৭ দিনের মধ্যে মামলার রহস্য উদঘাটনসহ আসামীদের গ্রেফতারের দাবি জানিয়ে আল্টিমেটাম দেয়া হয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com