শনিবার, ০৬ মার্চ ২০২১, ০৫:০৯ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড ১৫ লাখ টাকার ক্ষতি মাধবপুরে গাছ এবং বৈদ্যুতিক খুঁটি ॥ প্রাণ বাঁচাল শিশু ও বৃদ্ধসহ ৪০-৫০ জন বাস যাত্রীর চুনারুঘাটের স্ত্রী-বিজয়নগরের স্বামী বিপুল গাঁজাসহ ভৈরব রেলওয়ে পুলিশের খাঁচায় হবিগঞ্জে আরো ৭০৩ জন করোনা টিকা নিয়েছেন চুনারুঘাট এসোসিয়েশন ইউকে ও শায়েস্তাগঞ্জ সমিতি ইউকের ভার্চুয়াল শোক সভা ও দোয়া মাহফিল হবিগঞ্জে জাতীয় জীবন বীমা দিবস উপলক্ষে র‌্যালী নব নির্বাচিত মেয়র সেলিমের সাথে আইনজীবীদের শুভেচ্ছা বিনিময় শহরের মাদক ব্যবসায়ী সৈয়দ আলী কারাগারে ॥ রিমান্ডের আবেদন কাঁচা সুপারি দিয়ে পান খেয়ে এক ব্যক্তির মৃত্যু মাধবপুরে মাদক বিরোধী জনসচেতনতার লক্ষ্যে বিটং পুলিশিং এর সভা অনুষ্টিত
নবীগঞ্জের রুমেনা হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় সংবাদ সম্মেলন ॥ সিলেট মেডিকেল কলেজের মাধ্যমে রিপোর্ট তৈরীর দাবী

নবীগঞ্জের রুমেনা হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় সংবাদ সম্মেলন ॥ সিলেট মেডিকেল কলেজের মাধ্যমে রিপোর্ট তৈরীর দাবী

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নবীগঞ্জের আলোচিত রুমেনা বেমগ ও তার দুই সস্তানের হত্যার ঘটনায় লাশ পুনরায় সিলেট মেডিকেল কলেজে ময়না তদন্তের জন্য আহ্বান জানিয়েছেন নিহতের স্বজনরা। গতকাল বিকেলে হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ দাবী জানানো হয়।
নিহত রুমেনার চাচা আশুক মিয়া লিখিত বক্তব্যে জানান, গত ২২ মার্চ নবীগঞ্জ উপজেলার বড়ভাকৈর গ্রামে গৃহবধূ আমেনা খাতুন ও তার দুই সন্তান হত্যাকান্ডের শিকার হন। ২০০২ সালে একই গ্রামের ফরিদ মিয়ার নিকট বিয়ে দেই আমার ভাতিজি রুমেনার। বিয়ের পর থেকেই তার স্বামীর স্বভাব চরিত্র ভাল ছিল না। সে পরকিয়ায় জড়িয়ে পড়ে। এ নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে মনোমালিন্য সৃষ্টি হয়। ঘটনার দিন ভোরে রুমেনার দেবর সাহাব উদ্দিন আমাদেরকে ফোন করে জানায়, রুমেনা তার ছেলে ও মেয়েকে খুন করেছেন। খবর পেয়ে আমরা সেখানে গিয়ে দেখতে পাই আমার ভাতিজিল লাশ গাছে ঝুলে রয়েছে। আমাদের তখন সন্দেহ হয়। আমার বিশ্বাস তার স্বামীর অবৈধ কাজে বাধা দেয়ায় স্বামী তাকে ও সন্তাদের হত্যা করেছে।
এ ব্যাপারে আমি স্বামী ফরিদ মিয়া সহ ৬ জনের বিরুদ্ধে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করি।
তিনি বলেন, মামলার শুরু থেকেই তদন্তকারী কর্মকর্তা প্রতিপক্ষের নিকট থেকে ঘুষ গ্রহন করে মামলাটি ভিন্নখাতে দেয়ার জন্য অপচেষ্টা চালিয়ে আসছে। এ জন্য তদন্তকারী কর্মকর্তা থানার এসআই আশিকুল ইসলাম সুরুতহাল রিপোর্ট সঠিকভাবে করেনি। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা তড়িগড়ি করে ময়না তদন্তের রিপোর্ট সংগ্রহ করে মামলার চূড়ান্ত রিপোর্ট দেয়ার প্রন্তুতি গ্রহন করছে। উক্ত পরিস্থিতিতে আমি গত ২০ এপ্রিল জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মেডিকেল কলেজের মাধ্যমে পুনরায় ময়না তদন্তের আবেদন করি। এ প্রেক্ষিতে ২৬ এপ্রিল আদালত তা গ্রহন করে কবর থেকে লাশ উত্তোলন করে ভিন্ন ডাক্তার দিয়ে ময়না তদন্ত সম্পন্ন করার নির্দেশ প্রদান করেন। সে অনুযায়ী গত ২৭ মে রুমেনার লাশ কবর থেকে উত্তোলন করে হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। লাশটি সিভিল সার্জন সিলেটে প্রেরনের ব্যবস্থা নিলে হাসপাতালের আরএমও মহসিন করিম ও ডাঃ দেবাশীষ দাশ আপত্তি করেন। পরে পুনরায় তাদের মাধ্যমেই ময়না তদন্ত শেষে করেন যে কারনে মৃত্যুর সঠিক কারন জানা যায়নি।
সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তরে তিনি দাবী করেন সিলেট ময়না তদন্ত রিপোর্টে যা আসতে তিনি মাথা পেতে নিবেন। তার ধারনা আরএমও ও ডাঃ দেবাশীষ প্রতিপক্ষের কাছ থেকে ঘুষ গ্রহন করে সঠিক রিপোর্ট তৈরী করেননি। তিনি মামলার সুষ্ঠ তদন্তের স্বার্থে ময়না তদন্ত রিপোর্ট সিলেট মেডিকেল কলেজে করার জন্য দাবী জানান।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com