বৃহস্পতিবার, ০৪ Jun ২০২০, ০৫:২১ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জে ডাকাতের কবলে চেয়ারম্যান ও সাংবাদিক ॥ গ্রেফতার ৫ ॥ গুলিবিদ্ধ ১

নবীগঞ্জে ডাকাতের কবলে চেয়ারম্যান ও সাংবাদিক ॥ গ্রেফতার ৫ ॥ গুলিবিদ্ধ ১

এম এ বাছিত, নবীগঞ্জ থেকে ॥ নবীগঞ্জে পেট্রোল বোমা হামলার গুজবের রহস্য উদঘাটন এবং ডাকাতির চেষ্টা ভন্ডুল করেছে স্থানীয় পুলিশ ও জনতা। মঙ্গলবার গভীর রাতে কুর্শি ইউনিয়নের বাংলাবাজার নামকস্থানে এঘটনা ঘটে। এসময় ডাকাতের কবল থেকে অল্পের জন্য রক্ষা পান স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ খালেদুর রহমান খালেদ, মানবজমিন ষ্টাফ রিপোর্টার এম এ বাছিত ও যুগান্তর প্রতিনিধি সরওয়ার শিকদার। ঘটনার সাথে Nabiganj---dakat-18 copyজড়িত সন্দেহে হাবিবুর রহমান (২৪), আবদুল অজুদ (৩০), সোহেল মিয়া (২৫), শাকিল আহমদ (২৫) এবং রুপন আহমদ (২৬) নামের ৫ ডাকাতকে জনতার সহায়তায় আটক করে পুলিশ। এর মধ্যে পলাশ ও জজ মিয়া নামের ২ ডাকাত পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। পালানোর সময় আবদুল অজুদকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় গ্রেপ্তার করা হয়। গুরুতর আহত ওই ডাকাতকে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, মঙ্গলবার রাতে উপজেলার সালামতপুর বাস টার্মিনাল থেকে স্থানীয় একটি মিনিবাস গ্যাসের জন্য মহাসড়কের আউশকান্দি যাচ্ছিল। এসময় কুর্শি ইউনিয়নের বাংলাবাজারস্থ সৈয়দ আজিজ-হাবিব উচ্চ বিদ্যালয়ের নিকটবর্তী স্থানে ওই বাসে একটি বোতল ছুড়ে ডাকাতদল। বাসের ১টি গ্লাস ভেঙ্গে যায়। তবে কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। এসময় আতংকিত বাসের কয়েক যাত্রী এবং চালক পেট্রোল বোমার আতংকে শোর চিৎকার শুরু করে। খবর পেয়ে পুলিশ ও স্থানীয় জনতা ঘটনাস্থলে যান। এসময় গাড়ির ভেতর থেকে লাল স্কষ্টেপে মুড়ানো একটি কেরোসিনের বোতল উদ্ধার করে পুলিশ। সন্দেহজনক ওই ঘটনার রহস্য উদঘাটনে ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ খালেদ, মানবজমিন ষ্টাফ রিপোর্টার এম এ বাছিত, যুগান্তর প্রতিনিধি সরওয়ার শিকদার চেয়ারম্যানের পাজেরো গাড়ি নিয়ে বাংলাবাজার থেকে কুর্শির দিকে যাচ্ছিলেন। তাদের গাড়ি বাংলাবাজার ও কুর্শির মধ্যবর্তী স্থানে পৌছামাত্র দেখতে পান রাস্তায় ২টি গাছ ফেলে ডাকাতরা তাদের বেরিকেট দিয়েছে। এসময় ড্রাইভিং সীটে বসা চেয়ারম্যান সৈয়দ খালেদুর রহমান খালেদ গাড়ীটি বেক গেয়ার দিয়ে পিছনের দিকে চালিয়ে যান। ১০/১২ জনের ডাকাতাদল রাস্তার দু’দিক থেকে আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে গাড়িকে ধাওয়া করে। দ্রুতগতিতে গাড়ীটি নিয়ে স্থান ত্যাগ করায় তারা ডাকাতের কবল থেকে রক্ষা পান। পরে তাদের শোরচিৎকারে গ্রামের লোকজন এগিয়ে আসলে ডাকাতরা হাওড়াঞ্চল দিয়ে পালাবার চেষ্টা করে। পুলিশ ও জনতা চারদিকে ডাকাতদের বেরিকেট দেয়। এক পর্যায়ে মহাসড়কের বাইপাস ডেবনা-গোপলার বাজার সড়কের নিকটবর্তী পরিত্যাক্ত একটি বাড়ির নিকট থেকে গ্রাম পুলিশ ছবি মিয়া হাবিবুর রহমান (২৪) নমে এক ডাকাতকে আটক করে। সে বি-বাড়িয়া জেলার নাসির নগর উপজেলার পূর্ববাগ গ্রামের ছোয়াব মিয়ার পুত্র। খবর পেয়ে চেয়ারম্যান খালেদের নেতৃত্বে স্থানীয় জনতা ও সাংবাদিকরা ঘটনাস্থলে গিয়ে ডাকাতের পরিচয় সনাক্ত করেন। চেয়ারম্যান ও সাংবাদিকরা কৌশলে আটক ডাকাতকে দিয়ে তার সহযোগিদের অবস্থান নিশ্চিত হন। একপর্যায়ে মহাসড়কের আউশকান্দি থেকে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার বড় বহুলা গ্রামের মৃত আলাউদ্দিনের পুত্র শাকিল (২৫) এবং সদর উপজেলার মজলিশপুর গ্রামের মৃত দরবেশ আলীর পুত্র ছোহেল (২৫) কে আটক করে পুলিশের নিকট সোপর্দ করা হয়। পুলিশ আটক ডাকাতদের নিয়ে অভিযান পরিচালনা করে নবীগঞ্জ পৌর এলাকার সালামতপুর গ্রামে। এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে খালিক মিয়ার পুত্র ডাকাত আবদুল অজুদ পালানোর চেষ্টাকালে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় গ্রেপ্তার করা হয়। এসময় তার দুই সহযোগী হবিগঞ্জ সদর উপজেলার তেঘরিয়া গ্রামের পলাশ মিয়া এবং বানিয়াচং উপজেলার ইকরাম গ্রামের জজ মিয়া পালিয়ে যায়। থানায় আটক ডাকাতদের জিজ্ঞাসাবাদের ভিত্তিতে উপজেলার কুর্শি ইউনিয়নের কনকারী পাড়া গ্রামের সুজন মিয়ার পুত্র রুপন মিয়াকে গ্রেপ্তার করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে আটকৃতরা ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে।
এদিকে কতিথ পেট্রোল বোমা হামলার সাথে জড়িত সন্দেহে আটক ব্যবসায়ি যুবক অলিউর রহমানকে মুচলেখা রেখে ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ। পেট্রোল বোমার গুজব এবং ডাকাতির সাথে বিশেষ একটি মহল জড়িত থাকার অভিযোগ খতিয়ে দেখছে পুলিশ। সার্বিক বিষয়ে থানার ওসি মোঃ লিয়াকত আলী বলেন, সিরিজ ডাকাতির চেষ্টায় জড়িত ৫জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। পালাতে গিয়ে একজন গুলিবিদ্ধ হয়।
ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ খালেদ বলেন, পেট্রোল বোমার গুজব অনুসন্ধান করতে গিয়ে ডাকাত চক্রের কবলে আক্রান্ত হই। রহস্য উদঘাটনে স্বস্থি প্রকাশ করেন তিনি।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com