মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০১:৫০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
হবিগঞ্জে বহু কাঙ্খিত পুরোনো খোয়াই নদীর অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ শুরু শারদীয় দুর্গাপুজাকালে মন্ডপগুলোতে ডিজে বন্ধ থাকবে-এসপি মোহাম্মদ উল্লাহ কয়েন বিভ্রাটে জেলাবাসী বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বিধি থাকলেও প্রয়োগ নেই প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে জাতীসংঘের অধিবেশনে যোগ দিতে যুক্তরাষ্ট্র যাচ্ছেন হবিগঞ্জ চেম্বার প্রেসিডেন্ট মোতাচ্ছিরুল হবিগঞ্জ পৌর যুবলীগের আহবায়ক কমিটি গঠন নবীগঞ্জে ঢাকাইয়া নারীসহ আটক ৪ বেগম জিয়ার মুক্তির দাবিতে নবীগঞ্জে পোষ্টার লাগলেন মেয়র ছাবির চৌধুরী বাহুবলে সিএনজিকে জরিমানা করায় শ্রমিকদের মহাসড়ক অবরোধ বিকেজিসি স্কুলে রচনা প্রতিযোগিতায় পুলিশ সুপার ॥ মোবাইলের অপব্যবহারে সামাজিক বন্ধন নষ্ট হচ্ছে নবীগঞ্জে সর্বদলীয় উলামা পরিষদের জরুরী সভা
সাবেক অর্থমন্ত্রী কিবরিয়া হত্যা মামলা ॥ শিগগিরই সম্পূরক চার্জশিট-স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

সাবেক অর্থমন্ত্রী কিবরিয়া হত্যা মামলা ॥ শিগগিরই সম্পূরক চার্জশিট-স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

আব্দুল হালীম ॥ সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়া হত্যা মামলার শিগগিরই সম্পূরক চার্জশিট দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। গতকাল বুধবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে মনিটরিং সেলের পর্যালোচনা সভা শেষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহীউদ্দীন খান আলমগীর এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, “কিবরিয়া হত্যা মামলায় সম্পূরক অভিযোগপত্র দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। এতে আসামি করা হয়েছে ২৮ জনকে।”

২০০৫ সালের ২৭ জানুয়ারি হবিগঞ্জের সদর উপজেলার বৈদ্যের বাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে গ্রেনেড হামলায় শাহ এ এম এস কিবরিয়া, তার ভাতিজা শাহ মঞ্জুরুল হুদা, স্থানীয় আওয়ামী লীগ কর্মী আব্দুর রহিম, সিদ্দিক আলী ও আবুল হোসেন নিহত হন। হামলার পরদিন ২৮ জানুয়ারি হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের তৎকালীন সাংগঠনিক সম্পাদক ও বর্তমানে হবিগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য এডভোকেট আব্দুল মজিদ খান বাদী হয়ে হবিগঞ্জ সদর থানায় একটি হত্যা ও একটি বিস্ফোরক মামলা দায়ের করেন। পরে মামলা দুটি সিআইডিতে হস্তান্তর করা হয়। তদন্ত শেষে ২০০৫ সালে মার্চের শেষ দিকে সিআইডি সিনিয়র এএসপি মুন্সি আতিকুর রহমান শহীদ জিয়া স্মৃতি ও গবেষণা পরিষদের কেন্দ”ীয় সভাপতিসহ ১০ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে একটি অভিযোগপত্র দিলেও এতে আদালতে নারাজি আবেদন দেন বাদী আব্দুল মজিদ খান। ২০০৭ সালে মামলাটি পুনতদন্তের জন্য আবারো সিআইডিকে দায়িত্ব দেয়া হয়। আগের অভিযোগপত্রের ১০ আসামি হলেন- শহীদ জিয়া স্মৃতি ও গবেষণা পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি একেএম আব্দুল কাইয়ূম, যুবদল নেতা জয়নাল আবেদীন জালাল, জমির আলী, তাজুল ইসলাম, জয়নাল আবেদীন মুমিন, সাহেদ আলী, সেলিম আহমেদ, আয়াত আলী, মুহিবুর রহমান ও কাজল মিয়া।

ক্ষমতার পট পরিবর্তনের পর বিএনপির আমলের চার্জশীটের বিরুদ্ধে নারাজি আবেদন করা হলে আদালত অধিকতর তদন্তের আদেশ প্রদান করে। মামলার তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয় সিআইডির সহকারী পুলিশ সুপার রফিকুল ইসলামকে। তিনি সাড়ে ৩ বছরের তদন্ত শেষে ২০১১ সালের ২৪ জানুয়ারী সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, সাবেক প্রতিমন্ত্রী আব্দুস সালাম পিন্টুর ভাই মাওলানা তাজ উদ্দিন, হরকাতুল জেহাদ নেতা মুফতি আব্দুল হান্নানসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে সম্পূরক চার্জশীট দাখিল করেছে। অভিযুক্ত ১৪ জন হচ্ছে, নড়াইল জেলার লোহাপাড়া উপজেলার আমজাংগা গ্রামের নুরুল ইসলামের পুত্র হরকাতুল জিহাদের সদস্য মইনুদ্দিন শেখ ওরফে আবু জান্দাল ওরফে মাসুম বিল্লাহ, গোপালগঞ্জ জেলার কোটালীপাড়া উপজেলার হিরন গ্রামের মুফতি আব্দুল হান্নান, তার ভাই মহিব উল্লা অভি, চাঁদপুর জেলার শৈশাদি গ্রামের হেমায়েত উদ্দিন পাটোয়ারীর পুত্র শরীফ শাহেদুল আলম বিপুল, সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার সাহারপাড়-সৈয়দপুর গ্রামের সৈয়দ আবুল কালামের পুত্র হাফেজ সৈয়দ নাঈম আহমেদ আরিফ, হবিগঞ্জ শহরের চৌধুরী বাজার এলাকার মৃত ফজর আলীর মুন্সীর পুত্র বদরুল আলম মিজান ওরফে বাবরী মিজান, সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলার সিকন্দরপুর গ্রামের গোলাম মোস্তফার পুত্র মিজানুর রহমান মিঠু, পাকিস্তানের ইসলামাবাদের আব্দুর রহমান ভাটের পুত্র আব্দুল মাজেদ ভাট, সাবেক উপমন্ত্রী আব্দুস সালাম পিন্টুর ভাই টাঙ্গাইলের গোপালপুর উপজেলার গুলিপেচা গ্রামের ডাঃ মহিউদ্দিন মিয়ার পুত্র তাজউদ্দিন, কিশোরগঞ্জের ভৈরব উপজেলার বাশগাড়ি গ্রামের নুরুল ইসলামের পুত্র মুফতি সফিকুর রহমান, কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার নয়ানগর গ্রামের মুজাফফর হোসেনের পুত্র মুফতি আব্দুল হাই, হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলার নোয়াগাও কৃষ্ণপুর গ্রামের আব্দুল বারিকের পুত্র মোহাম্মদ আলী ও হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার কালিয়ারভাঙ্গা গ্রামের আব্দুল বারিকের পুত্র বদর”ল মিয়া। এর মধ্যে প্রথমোক্ত ৯জনকে গ্রেফতার করা হলেও অপর ৫ জন পলাতক রয়েছে। গ্রেফতারকৃত আসামীদের কয়েকজন স্বীকারাক্তিমুলক জবানবন্দি প্রদান করেছে। মামলায় পূর্বের চার্জশীটভূক্ত বিএনপি নেতা আব্দুল কাইয়ূমসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ প্রমাণিত না হলেও আইনী বাধ্যবাদকতার কারণে তাদেরকেও অভিযুক্ত করা হয়েছে। এদিকে চার্জশীটের বিরুদ্ধে আসমা কিবরিয়ার পক্ষে তার নিযুক্ত আইনজীবী এডভোকেট আলমগীর ভূইয়া বাবুল হবিগঞ্জ আদালতে ২০১১ সালের ২৮ জুন চার্জশীটের বিরুদ্ধে নারাজী পিটিশন দেন। এর প্রেেিত আদালত ২০১২ সালের ৫ জানুয়ারী অধিকতর তদন্তের আদেশ প্রদান করে। দায়িত্ব দেয়া হয় সিআইডির সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার তদন্তকারী কর্মকর্তা মেহেরুন্নেছা পারুলকে। কিন্তু ২ বছর অতিবাহিত হবার পরও মামলার তদন্ত কাজ শেষ হয়নি। এ ব্যাপারে তদন্তকারী কর্মকর্তা মেহেরুন্নেছা পারুলের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, তদন্ত চলছে। তদন্ত শেষ হলেই চার্জশীট দেয়া হবে।

উল্লেখ্য, ২০০৫ সালের ২৭ জানুয়ারী হবিগঞ্জ সদর উপজেলার বৈদ্যের বাজারে জনসভা শেষে গাড়িতে উঠার সময় গ্রেনেড হামলায় সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়া নিহত হন। এ সময় শাহ কিবরিয়ার সাথে তার ভাতিজা শাহ মঞ্জুরুল হুদা, স্থানীয় আওয়ামীলীগ কর্মী আব্দুর রহিম, ছিদ্দিক আলী ও আবুল হোসেনও প্রাণ হারান। এছাড়া হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এডভোকেট আবু জাহির এমপি, এডভোকেট আব্দুল আহাদ ফারুক, আব্দুল্লাহ সর্দার, সাংবাদিক সুহাইল আহমেদসহ আহত হন ৭০ জন আওয়ামীলীগ নেতাকর্মী।

জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত ১৯ সেপ্টেম্বরের জনসভা স্থগিত

প্রেস বিজ্ঞপ্তি ॥ হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত ১৯ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিতব্য পৌরসভা মাঠের জনসভা অনিবার্য কারণে স্থগিত করা হয়েছে। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট মো. আবু জাহির এমপি এবং সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আব্দুল মজিদ খান এমপি এক যুক্ত বিবৃতিতে এ সিদ্ধান্তের কথা জানান।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com