রবিবার, ০৯ অগাস্ট ২০২০, ০২:৩৬ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
বানিয়াচংয়ে মাছ ধরা নিয়ে দুই গ্রামবাসীর ভয়াবহ সংঘর্ষ নবীগঞ্জে রাতে নিখোঁজ ব্যক্তির সকালে ক্ষতবিক্ষত দেহ উদ্ধার বঙ্গমাতা ছিলেন বাঙালির মুক্তিসংগ্রামের অন্যতম অগ্রদূত ॥ এমপি আবু জাহির শহরে টমটমসহ যানবাহনের ডাবল ভাড়া কমানোর দাবি নবীগঞ্জে দুইটি বিদ্যালয়ের নাম নিয়ে হাস্যরস ॥ গন্ধা গ্রামের স্কুলের নাম ‘গনজা স:প্রা:বি’ খনকারিপাড়া গ্রামে ‘ঋণকারীপাড়া স:প্রা:বি’ বঙ্গমাতার জন্ম দিবসে হবিগঞ্জ জেলা আ.লীগের মিলাদ ও দোয়া মাহফিল বাহুবলে গৃহবধুর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট শরীফ উদ্দিন এর ২৪তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে স্মরণসভা নবীগঞ্জের দিলীপ ভট্টাচার্য্যের মৃত্যুতে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আ.লীগ সাধারণ সম্পাদকের শোক বাইপাস থেকে মোটর সাইকেলসহ এক মাদক বিক্রেতা আটক
করোনায় কর্মহীন ঃ শুণ্যহাতে শহর ছাড়ছেন মানুষ খালি হয়ে যাচ্ছে শত শত ঘর বাড়ি ও দোকানপাঠ

করোনায় কর্মহীন ঃ শুণ্যহাতে শহর ছাড়ছেন মানুষ খালি হয়ে যাচ্ছে শত শত ঘর বাড়ি ও দোকানপাঠ

পাবেল খান চৌধুরী ॥ করোনায় কর্মহীন হয়ে শুণ্যহাতে শহর ছাড়ছেন মানুষ। খালি হচ্ছে শহরের শত শত আবাসিক বাড়ি, দোকান ঘর এমনকি বস্তিও। যে মানুষগুলো এক বুক আশা নিয়ে হবিগঞ্জ শহরে এসেছিলেন তাদের অধিকাংশই কর্মহীন হয়ে ফিরে যাচ্ছেন নিজ গ্রামে। অনেকেই সহায় সম্ভল সব কিছ বিক্রি করে দিয়ে ফিরে যাচ্ছেন নিড়ে।
জেলার আজমিরীগঞ্জ উপজেলার বাসিন্দা আবুল হোসেন ও তার স্ত্রী রহিমা বেগম। তিন সন্তানকে নিয়ে ভালোই যাচ্ছিল তাদের দিন। কিন্তু করোনা ভাইরাসের থাবায় তছনছ হয়ে গেছে তাদের সব স্বপ্ন। গত কয়েক মাস বসে খেতে খেতে হাত খালি। ঘরের মালামাল বিক্রি করে বাড়ি ফিরে গেছেন আবুল হোসেন।
লাখাই উপজেলার বুল্লা গ্রামের বাসিন্দা রতন চন্দ্র মোদক দীর্ঘদিন ধরে শহরের অনন্তপুরে বসবাস করে আসছিলেন। সেখানে তিনি বসবাসের পাশাপাশি হবিগঞ্জ সদর হাসপাতাল এলাকায় ফ্লাক্সে চা বিক্রি করে জিবীকা নির্বাহ করতনে। কিন্তু মার্চের শুরুও দিকে সারাদেশের ন্যায় হবিগঞ্জেও লকডাউন শুরু হলে তিনি বেকার হয়ে পড়েন। বাধ্য হয়েই অনন্তপুরের ভাড়া করা বাসা ছেড়ে দিয়ে কম ভাড়ায় শহরের ফায়ার সার্ভিস সংলগ্ন মোহনপুরে একটি বস্তিতে বাড়ি ভাড়া নেন। এরই ম্েযধ গত সপ্তাহে অনেক ধারদেনা করে কোনো আনুষ্টানিকতা ছাড়াই নিজের একমাত্র ছোট বোনের বিয়েও দেন তিনি।
আজমিরীগঞ্জ উপজেলার কাকাইলছেও গ্রামের বাসিন্দা তৈয়বুর রহমান ১০ বছরের বেশি সময় ধরে থাকেন হবিগঞ্জ শহরের একটি আবাসিক এলাকায়। কাপড়ের ব্যবসা করতেন। চার মাস ধরে স্কুল, কলেজ, দোকানপাট বন্ধ, তাই বেচাকিনিও বন্ধ। ব্যবসার কাপড়, ঘরের টিভি-ফ্রিজ বিক্রি করে ধারদেনা শোধ করে ফিরে গেছেন গ্রামে।
টিউশিনির পাশাপাশি ফলের দোকান চালাতেন কলেজ ছাত্র রায়হান (ছদ্ধ নাম)। করোনায় টিউশনি গেছে, তিন মাস বন্ধের পর দোকান খুললেও বেচাবিক্রি নেই। দোকান আর বাসার সব মালামাল বিক্রি করে দেনা-পাওনা চুকিয়েছেন। তিনিও গত শুক্রবার ফিরে যান নিজের বাড়ি কিশোরগঞ্জ জেলার পশ্চিম বাজুকা গ্রামে।
বৈশ্বিক মহামারি করোনার এই দুরবিপাকে চাকরি, ব্যবসা হারিয়ে তাদের মতো বহু মানুষ ইতিমধ্যে হবিগঞ্জ ছেড়েছেন সপরিবারে। তাদের অনেকে ফিরে গেছেন শূন্য হাতে অনিশ্চিত এক জীবন মোকাবিলা করতে। আর যাদের কিছু জায়গা-জমি আছে, তাতে কিছু একটা করে জীবন নির্বাহের কথা ভেবেছেন কেউ।
আজমিরীগঞ্জ উপজেলার শফিউল আলম (ছদ্ধ নাম) প্রায় ১০ বছর ধরে হবিগঞ্জ আদালতে মুহুরীর কাজ করে সংসান চালাতেন। লকডাউন শুরুর পর সরকার আদালত বন্ধ ঘোষণা করেন। আর এতে করে তিনিও বেকার হয়ে পড়েন। দীর্ঘতিন মাস নিজের জমানো টাকা আর মানুষজনের কাছ থেকে ধারদেনা করে কোন রকম সংসার খরচ চালালেও বাড়িভাড়া দিতে না পাড়ায় অবশেষে সব কিছু বিক্রি করে শহর ছাড়তেই হলো। এতো গেলো নিম্নভিত্তদের কথা। তাদের চেয়ে আরো করোণ অবস্থায় আছেন মধ্যভিত্ত পরিবারগুলা। তারা না পারছেন নতুন চাকুরী যোগাতে না পাড়ছেন বাড়িওয়ালাদের বাড়িভাড়া মেটাতে। এতসবের মাঝে ঋণের বুঝা মাথায় নিয়ে সহায় সহায়-সম্ভলহীন হয়ে ফিরে যাচ্ছেন তারা। প্রথম দিকে সরকারের পাশাপাশি বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্টান খাদ্য সংকটে পড়া মানুষের বাড়ি বাড়ি খাবার সামগ্রী পৌছে দিলেও বর্তমানে এসব কার্যক্রম এখন প্রায় বন্ধ। এতে করে অনেকে আবারো পড়েছেন খাদ্য সংকটে।
প্রতিবেদনের শুরুতে যে আবুল হোসেন এর কথা এসেছে, তিনি বছর পাঁেচক আগে হবিগঞ্জ এসেছিলেন। প্রাইভেটকার চালানো শেখার পর একটি চাকরি জুটে যায় তার। সংসারের উপার্জনে আবুল হোসেনের স্ত্রীও শামিল হন। অন্যের বাসায় কাজ করে তিনিও মাসে আয় করতেন হাজার তিনেক টাকা। দু’জনের আয়ে স্বপ্ন ছিল দুই সন্তানকে লেখাপড়া করাবেন।
সম্প্রতি করোনা সংক্রমণ শুরু হলে মার্চ মাসের মাঝামাঝি থেকে স্ত্রীর উপার্জন বন্ধ। গত এপ্রিলে চাকরি চলে যায় আবুল হোসেনের। দুই মাস ঘুরে অন্য কোথাও চাকরির ব্যবস্থা হয়নি। জমানো টাকা দিয়ে দুই মাস চলার পর শূন্য হাত আবুলের।
গত ১ জুলাই সাজানো সংসারটা বিক্রি করে দিয়ে স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে গ্রামে ফিরে গেছেন তিনি। কণ্ঠে চাপাকান্না নিয়ে হোসেন বলেন, ‘অনেক ইচ্ছা ছিল, পোলাপানরে পড়াশোনা করাইমু। শহরের স্কুল-কলেজে পড়াইয়া বড় মানুষ বানাইমু। এদের যেন আমরার মতো কষ্ট করা না লাগে। কিন্তু কিছুই হইলো না। হোসেন বলেন, ‘অনেক কষ্ট কইরা, খাইয়া না খাইয়া সংসারের এক-একটা জিনিস জুটাইছলাম। কিচ্ছু নিতে পারলাম না। এই জিনিসগুলা বাড়িতে নিয়া যাইতে যে খরচ, সেই টাকা আমার কাছে নাই। আবার কোনভাবে বাড়ি নিলেও সেগুলো বাড়িতে রাখার মতো জাযগাও নেই। তাই সব এইখানে যে দাম পাইছি বিক্রি করে দিছি। এখন খালি হাতে বাড়ি যাইতাছি।’ চোখ ছলছল করে আবুল হোসেন এর।
করোনা ভাইরাসের কারণে উপার্জন বন্ধ হয়ে গিয়েছিল লাখাইয়ের ইউনুস মিয়ার। গত জুনের শেষ দিকে সপরিবারে হবিগঞ্জ ছেড়ে যাওয়া ইউনুস জানান, ৫ বছরের বেশি সময় এই শহরে বসবাস করেন সপরিবারে। মাসের আয়ের ওপর চলত তার সংসার। চাকরি হারানোর পর দুই মাস কোনো রকমে চলেছেন সামান্য জমানো টাকায়। যে বাসায় ভাড়া থাকতেন, সে বাড়ির মালিক এক মাসের জন্য তার সমস্যাটা দেখেননি। বাধ্য হয়ে ঘরের মালামাল বিক্রি করে ঘর ভাড়া পরিশোধ করে হবিগঞ্জ ছাড়েন তিনি।
বানিয়াচং উপজেলার মাখনিয়া গ্রামের বাসিন্দা বর্তমানে শহরের কামড়াপুর এলাকার বস্তিতে বসবাস করা অটোরিক্সা চালক ছালেক মিয়া। দীর্ঘদিন ধরে শহরের অটোরিক্সা চালিয়ে জিবীকা নির্বাহ করে আসছিলেন। লকডাউনের পর বন্ধ হয়ে তার জিবীকা নির্বাহের একমাত্র পথ। মাঝে মধ্যে লুকিয়ে রিক্সা চালালেও পুলিশ গাড়ি আটকিয়ে মামলা দিয়ে দেয়। একে গুণতে হয় হাজার টাকার উপরে জড়িমানা। একদিকে ামরোজগার বন্ধ। অন্যদিকে পুলিশের দেয়া মামলার জড়িমানায় দিশেহারা হয়ে পড়েন ছালেক। বাধ্য হয়ে বন্ধ করে দেন রিক্সা চালানোর কাজ। আর এতে করে একেবারেই বেকার হয়ে পরে সে।
শহরের জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে ফুটপাতে কাপড় বিক্রি করতেন প্রতিবন্ধী তৈয়বুর রহমান। শহরের অনন্তপুর এলাকার বাড়াটিয়া তৈয়বুর এর সংসার চলত সেই আয় দিয়ে। গত ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা ভাইরাসের রোগী শনাক্তের পর বন্ধ রয়েছে দেশের আর সব প্রতিষ্ঠানের মতো জেলা প্রশাসক কার্যালয়কে ঘিরে চলা সকল কার্যক্রম। এর প্রভাব পড়েছে তার ব্যবসায়। চার মাস ধরে আয় নেই। পরিবারের খরচ চালাতে করতে হয়েছে ধারদেনা।
চার মাস পরও পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার লক্ষণ নেই। দেনা আরও বাড়লে শোধ দিতে পারবেন না। জুনের শেষ দিকে তৈয়বুর সিদ্ধান্ত নেন সপরিবারে শহর ছাড়ার। ব্যবসায়ের মালামাল, ঘরের ফ্রিজ, ছোট একটি টিভি বিক্রি করে ধারদেনা আর বাসা ভাড়া শোধ করেন এই ব্যবসায়ী। ঘরের বাকি মালামাল নিয়ে এই মাসের শুরুতে পরিবারের সবাইকে পাঠিয়ে দিয়েছেন গ্রামের বাড়ি।
তৈয়বুর বলেন, ’১০ বছরের বেশি হবিগঞ্জে। আমার ছোট ব্যবসা দিয়া থাকা-খাওয়া, বাচ্চাদের পড়াশোনা করাতাম। জমানো টাকা বলতে তেমন কিছু ছিল না। এই পাঁচ মাসে অনেক টাকা ঋণ করছি। হবিগঞ্জে থাকলে চলার মতো আর ব্যবস্থা নাই। এমন একটা অবস্থায় এখন ধার দেওয়ার মতোও কেউ নাই। তাই বাধ্য হয়ে সবাইকে গ্রামে পাঠিয়ে দিয়েছি।
করোনাভাইরাস স্বপ্ন কেড়ে নিয়েছে রায়হান মিয়ার। বড় হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে শহরে এসেছিলেন তিনি। টিউশনি করে কিছু টাকা জমিয়ে ছিলেন। সেই টাকা দিয়ে শহরের চৌধুরী বাজারে একটা ছোট ফল বিক্রির দোকান দিয়েছিলেন। দোকানের পাশাপাশি দুটি টিউশনিও করতেন। ধীরে ধীরে এগোচ্ছিলেন স্বপ্নের দিকে।
হঠাৎই থমকে গেল রায়হানের স্বপ্নযাত্রা। শুধু থামা নয়, করোনাভাইরাস তাকে সেই সফলতার সিঁড়ি থেকে টেনে নামিয়ে আনল। মার্চ মাস থেকে টিউশনি বন্ধ। তিন মাস পর দোকান খুলতে পারলেও নেই ক্রেতা।
রায়হান বলেন, ‘টেউশনি তো লকডাউনের শুরু থেকেই বন্ধ। পুরো লকডাউনে দোকান বন্ধ ছিল। গত মাসে দোকান খুললাম। কিন্তু কাস্টমার নাই। বিভিন্ন এলাকা থেকে যারা শহরে আসেন, তাদের একটি অংশ মূলত আমার কাস্টমার। তাই কাস্টমারও নাই। পাঁচ মাস বসে বসে ঘর ভাড়া দিচ্ছি।
আয়ের পথ বন্ধ হওয়ায় বাধ্য হয়ে গ্রামের পথ ধরেছেন রায়হান। এরই মধ্যে দোকানের সব মালামাল অন্যত্র বিক্রি করে দিয়েছেন নামমাত্র মুল্যে। বিক্রি করেছেন বাসার আসবাবপত্র। সবার দেনা-পাওনা চুকিয়ে শুক্রবার চলে যান নিজ বাড়ি লাখাইয়ে।
গ্রামে গিয়ে কী করবেন, এমন প্রশ্নের জবাবে রায়হান বলেন, ‘গ্রামে বড় হয়েছি। পড়াশোনা করেছি। চেয়েছিলাম শহরে থেকে নিজের পায়ে দাঁড়াব। সবকিছু গুছিয়েও নিয়েছিলাম। কিন্তু ভাগ্যে সইল না। এখন গ্রামে গিয়ে সবজি চাষ করার প্লান আছে। নিজেদের কিছুটা জমি আছে, সেখানেই কিছু করার চেষ্টা করব।
কথা হয় শহরের একটি প্রাইভেট কিন্ডার গার্টেন স্কুলের শিক্ষিকা তামান্ন ইসলাম (ছদ্ধনাম) এর সাথে। তিনি কলেজে পড়াশোনার পাশাপাশি একটি কিন্ডার গার্টেন স্কুলে শিক্ষকতা করে চালাতেন নিজের লেখাপড়ার খরচ। কিন্তু স্কুল বন্ধ হওয়ায় তার চাকুরী চলে যায়। এতে করে বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয় তার নিজের লেখপড়া চালিয়ে যাওয়ার। তাদের মতো হাজারো মানুষ এরই মধ্যে চাকুরী হারিয়ে বেকার হয়ে পড়েন। অনেকেই শহর ছেড়ে চলে গেছেন গ্রামের বাড়ি।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com