রবিবার, ০৯ অগাস্ট ২০২০, ০২:০১ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
বানিয়াচংয়ে মাছ ধরা নিয়ে দুই গ্রামবাসীর ভয়াবহ সংঘর্ষ নবীগঞ্জে রাতে নিখোঁজ ব্যক্তির সকালে ক্ষতবিক্ষত দেহ উদ্ধার বঙ্গমাতা ছিলেন বাঙালির মুক্তিসংগ্রামের অন্যতম অগ্রদূত ॥ এমপি আবু জাহির শহরে টমটমসহ যানবাহনের ডাবল ভাড়া কমানোর দাবি নবীগঞ্জে দুইটি বিদ্যালয়ের নাম নিয়ে হাস্যরস ॥ গন্ধা গ্রামের স্কুলের নাম ‘গনজা স:প্রা:বি’ খনকারিপাড়া গ্রামে ‘ঋণকারীপাড়া স:প্রা:বি’ বঙ্গমাতার জন্ম দিবসে হবিগঞ্জ জেলা আ.লীগের মিলাদ ও দোয়া মাহফিল বাহুবলে গৃহবধুর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট শরীফ উদ্দিন এর ২৪তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে স্মরণসভা নবীগঞ্জের দিলীপ ভট্টাচার্য্যের মৃত্যুতে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আ.লীগ সাধারণ সম্পাদকের শোক বাইপাস থেকে মোটর সাইকেলসহ এক মাদক বিক্রেতা আটক
নবীগঞ্জে আলোচনায় চেয়ারম্যান মুসা

নবীগঞ্জে আলোচনায় চেয়ারম্যান মুসা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নবীগঞ্জে কুর্শি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলী আহমেদ মুসার বিরুদ্ধে হতদরিদ্রদের সহায়তায় মাসিক ভিজিডির চাল আত্মসাত ও সঞ্চয়ের টাকা নিজের কাছে জমা রাখার অভিযোগ নিয়ে গঠিত তদন্ত প্রতিবেদন ফেরত পাঠিয়েছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। গত ৪ জুন ২৩৯ নং স্মারকে জেলা প্রশাসক কার্যালয় থেকে একটি প্রতিবেদন মন্ত্রণালয় প্রেরণ করা হয়। এরই প্রেক্ষিতে গত ৫ জুলাই মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মোহাম্মদ ইফতেখার আহমদ চৌধুরী স্বাক্ষরিত পত্রে তদন্ত প্রতিবেদন যাচাই পূর্বক মতামত দেয়ার জন্য হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক মেঃ কামরুল হাসানকে নির্দেশ দেয়া হয়।
চেয়ারম্যান আলী আহমেদ মুসা ইংল্যান্ড যান ছুটি নিয়ে। এ সময় ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন পরিষদের সদস্য ফারছু মিয়া। মার্চে মাসের প্রথম দিকে ১০ মার্চ যখন গুদাম থেকে চাল উত্তোলন করা হয় তখনও ফারছু মিয়া ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান। বিধি মোতাবেক চাল উত্তোলনের খাতায় স্বাক্ষর দেয়ার কথা ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হিসেবে ফারছু মিয়ার।
কিন্তু পাশ কাটিয়ে আরী আহমেদ মুসা দায়িত্ব গ্রহণ না করেই ছুটিতে থেকেও আলী আহমেদ মুসা কিভাবে উপজেলা খাদ্য গুদাম থেকে চাল উত্তোলন খাতায় স্বাক্ষর দেন। এঘটনাটি প্রতিবেদনে আড়াল করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা।
তাছাড়াও বেআইনী ভাবে প্রায় দেড় বছরের সঞ্চয়ের টাকা নিজের নিকট গচ্ছিত রাখেন চেয়ারম্যান আলী আহমদ মুসা। এনিয়েও ধুম্রজাল তৈরী হয়। বিধি মোতাবেক এনজিও কর্মী সঞ্চয় উত্তোলনের কাজে নিয়োজিত থাকাবস্থায় চেয়ারম্যান টাকা নিজের কাছে গচ্ছিত রাখার কোন বিধান নেই।
উল্লেখ্য, বিগত মার্চ মাসের ভিজিডির চাল ও সঞ্চয়ের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে ১৯ এপ্রিল উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট একটি অভিযোগ দায়ের করেন ৬নং কুর্শি ইউনিয়নের সমরগাও গ্রামের মোঃ শরীয়ত উল্লাহ। অভিযোগটি তদন্তের জন্য দায়িত্ব দেয়া হয় উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা নুছরাত ফেরদৌসীকে।
সূত্র মতে, চেয়ারম্যান আলী আহমেদ মুসা গত মার্চ মাসের চাল গুদাম থেকে উত্তোলন করেন ১০ মার্চ, আর বিতরণ করেন ৪০ দিন পর ২০ এপ্রিল। ৪০দিন ওই চাল কোথায় ছিল এর কোন সদুত্তর নেই চেয়ারম্যান মুসার নিকট। এবং এপ্রিল মাসের চাল উত্তোলন করেন ৮ এপ্রিল আর বিতরণ করেন ২২ এপ্রিল। গুদাম থেকে উত্তোলন থেকে বিতরণ পর্যন্ত ১৪দিন ওই চাল কোথায় ছিল তাওর কোন সদোত্তর নেই চেয়ারম্যানের নিকট। তবে চেয়ারম্যান জানান চাল গুদামেই ছিল। তবে পর্যালোচনায় তদন্ত কমিটি এর কোন সত্যতা পাননি বলে সূত্র জানায়। ভিজিডির এপ্রিল মাসের চাল বিতরণের জন্য ২২ এপ্রিল ট্রাক বোঝাই করে নিয়ে ইউনিয়ন পরিষদে নিয়ে আসলে জনতা প্রবেশে বাধা প্রদান করে। পরে উপজেলা ও পুলিশ প্রশাসনের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।
উল্লেখ্য, উপজেলার কুর্শি ইউনিয়নে ১৭৫ জন ভিজিডি সুবিধাভোগী হতদরিদ্র লোকজনের মধ্যে চাল বিতরনে অনিয়মের অভিযোগ নিয়ে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে উত্তপ্ত হয় উপজেলার জনপদ। চাল উত্তোলনের পর বিলম্বে বিতরণ নিয়ে সদোত্তর দিতে ব্যর্থ হন চেয়ারম্যান মুসা। আত্মসাতের খবর ছড়িয়ে পড়লে তড়িঘড়ি করে চাল বিতরণের ব্যবস্থা করেন। ভোরে অজ্ঞাত স্থান থেকে চাল নিয়ে ইউনিয়ন অফিসে প্রবেশকালে জনতার বাধার মুখে পড়েন চেয়ারম্যান মুসা। সরকারি গুদাম থেকে চাল নিয়ে আসার কথা বলে প্রশাসনের সহায়তায় মুক্ত হন চেয়ারম্যান মুসা। বাস্তবে ওই দিন খাদ্যগুদাম থেকে চাল নিয়ে আসা হয়নি। খাদ্য কর্মকর্তা নিজেই এখবর নিশ্চিত করেন। দৃশ্যমান ওই দুর্নীতি নিয়ে প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া সরব হয়। সার্বিক বিষয়ে ১২ মে ইউনিয়ন পরিষদ আইন ২০২০ এর ৩৪ (৩৪) (খ) (ঘ) ধারায় দৃশ্যমান দুর্নীতি নিয়ে কেন চেয়ারম্যান আলী আহমদ মুসাকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হবে না জানতে চায় স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com