শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৯, ০৯:০৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
শায়েস্তাগঞ্জে চাঁন্দের গাড়ির চাপায় নিহত ১ ব্যাংকার্স এসোসিয়েশনের এজিএম সম্পন্ন ॥ সেলিম সিদ্দিকী সভাপতি ও আব্দুল্লাহ সম্পাদক পুন: নির্বাচিত নবীগঞ্জে ভুয়া কাগজ দিয়ে রেজেষ্ট্রি ॥ ২ দলিল লিখক বরখাস্ত ড.রেজা কিবরিয়ার হাতে ফুলের তোড়া দিয়ে গণফোরামে যোগদান করলেন নবীগঞ্জের সাবেক ছাত্রনেতা আবুল হোসেন জীবন হবিগঞ্জ জেলার সর্বোচ্চ আয়কর পরিশোধকারী আহছান কবীর তানজীম ও সাইদাতুন্নিছাকে ক্রেস্ট ও সম্মাননাপত্র প্রদান যুক্তরাষ্ট্র হবিগঞ্জ জেলা সমিতির কৃতি ছাত্র-ছাত্রীদের স্কলারশিপ এ্যাওয়ার্ড প্রদান নবীগঞ্জ পৌর আইডিয়াল স্কুলে বিদায় অনুষ্ঠান ও অভিভাবক সমাবেশ অনুষ্টিত হবিগঞ্জে বিশ্ব ডায়াবেটিক দিবস পালিত নবীগঞ্জে প্রতিপক্ষের হামলায় এক ব্যক্তি গুরুতর আহত মুজিব বর্ষ’ উদযাপনের লক্ষ্যে মেয়র মোঃ মিজানুর রহমানের মতবিনিময়
নবীগঞ্জে টাকার জন্য ভাতিজাকে নির্যাতনকারী চাচা স্বপন গ্রেফতার

নবীগঞ্জে টাকার জন্য ভাতিজাকে নির্যাতনকারী চাচা স্বপন গ্রেফতার

কিবরিয়া চৌধুরী/মোঃ আলমগীর মিয়া/ছনি চৌধুরী, নবীগঞ্জ থেকে ॥ নবীগঞ্জ উপজেলায় টাকার জন্য ৬ বছরের শিশু জিসানকে নগ্ন করে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করেছে তারই আপন চাচা স্বপন মিয়া। এমনকি নির্যাতনের ভিডিও ধঘারণ করে নির্যাতিত শিশু জিসানের মা সৌদি প্রবাসী সুমনা বেগমের মোবাইলে ইমুতে পাঠিয়ে টাকা দাবি করে স্বপন। নির্যাতনের এ দৃশ্য সইতে না পেরে সৌদি আরব থেকে ছুটে আসেন মা সুমনা। দৈনিক হবিগঞ্জের জনতার এক্সপ্রেস পত্রিকায় ঘটনার খবর প্রকাশ হলে গতকাল বুধবার সকালে নবীগঞ্জ থানার ওসি আজিজুর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশ শিশুর চাচা স্বপন মিয়াকে গ্রেফতার করেছে। এ ঘটনায় নির্যাতনের শিকার শিশুর মা সুমনা বেগম বাদী হয়ে নবীগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। গতকাল বিকেলে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্লাহ এক প্রেস ব্রিফিংয়ে ঘটনার বর্ণনা দেন। এ সময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শৈলেন চাকমা, রাজু আহমেদ, সহকারী পুলিশ সুপার পারভেজ আলম চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন।
নবীগঞ্জ পৌর এলাকার চরগাঁও গ্রামের সুফি মিয়ার সঙ্গে প্রায় ১০ বছর পূর্বে বিয়ে হয় হবিগঞ্জ পৌর এলাকার উমেদনগর গ্রামের সুমনা বেগমের। বিয়ের পর তাদের সংসারে জন্ম নেয় এক ছেলে ও এক মেয়ে। এর কিছু দিন পরই সুফি মিয়া মারা যান। তার মৃত্যুর পর সন্তানদের কথা চিন্তা করে জীবিকার তাগিদে সুমনা গৃহকর্মীর কাজ নিয়ে পাড়ি জমান সৌদি আরবে। যাবার সময় ছেলে জিসানকে রেখে যান দেবর স্বপন মিয়ার নিকট। তাকে ভরন পোষনের সুমনা নগদ প্রায় ৫০ হাজার টাকা, একটি ভ্যান গাড়ি কিনে দিয়ে যান দেবর স্বপনকে। এদিকে আরো টাকার জন্য ভাতিজা জিসানকে মারধর করে স্বপন। সর্বশেষ জিসানকে মধ্যযুগিয় কায়দায় নির্যাতন করে স্বপন। ওই নির্যাতনের চিত্র সে ভিডিও ধারণ করে। পরে ইন্টারনেটের মাধ্যমে সুমনার মোবাইলে জিসানকে নির্যাতনের ভিডিও প্রেরণ করে স্বপন। একমাত্র সন্তানকে নির্যাতনের দৃশ্য দেখে সুমনা দিশেহারা হয়ে পড়ে। পরে স্বপন মোবাইলে ফোন করে সুমনার নিকট টাকা দাবী করে। অন্যথায় তার ছেলেকে আরো নির্যাতন করবে বলে ফোনে জানায়। এ অবস্থায় সুমনা ছেলেকে নির্যাতন থেকে রক্ষায় স্বপনের নিকট কয়েক দফা টাকা প্রেরণ করে। এদিকে বিষয়টি এলাকাবাসীর নজরে গেলে স্থানীয় মুরুব্বিদের সহযোগিতায় শিশু জিসানকে নানা বাড়ি পাঠানো হয়। এদিকে সরেজমিনে চরগাঁও গ্রামে শিশুটির স্বজনরা জানান, বাবা হারা ছোট্ট দুই শিশুকে দাদা-দাদি আর চাচার কাছে রেখে জীবিকার তাগিদে গৃহকর্মী হিসেবে সৌদি আরব গিয়েছিলেন সুমনা বেগম। যাওয়ার আগে সন্তানদের দেখাশোনার জন্য তাদের চাচা স্বপনকে কিছু টাকাও দিয়ে গিয়েছিলেন তিনি। সৌদি আরব যাওয়ার দুই মাস যেতে না যেতেই তার সন্তানদের ওপর শুরু হয় নির্যাতন। টাকা দেয়ার জন্য ছয় বছর বয়সী আপন ভাতিজাকে নগ্ন করে নির্যাতন করে সেই ভিডিও তার মায়ের কাছে পাঠিয়েছিলেন চাচা স্বপন।
জিসানের মা সুমনা বেগম জানান, ‘কয়েক বছর আগে আমার স্বামী মারা গেলেও আমি শ্বশুড় বাড়িতেই থাকতাম। সুমাইয়া (৮) নামে আমার আরও একটি মেয়ে রয়েছে। গত দুই মাস আগে আমি শ্রমিক ভিসায় সৌদি আরব যাই। সৌদি আরব যাওয়ার আগে আমি আমার দুই শিশু সন্তানকে দেবর ও শ্বশুড়-শাশুড়ির কাছে রেখে যাই।’ তিনি বলেন, ‘বাচ্চাদের দেখাশোনা করার জন্য কিছু টাকাও দিয়ে গিয়ে ছিলাম। কিন্তু দুই মাস যেতে না যেতেই স্বপন আমার কাছে আরও টাকা দাবি করে। এরপর জিসানকে অমানুষিক নির্যাতন করে তা ভিডিও করে সৌদি আরবে আমার কাছে পাঠায় স্বপন। পরে এই ভিডিও দেখে আমি গত শুক্রবার দেশে ফিরে আসি।’ সুমনা বেগম জানান, এখন তিনি তার দুই সন্তানকে শ্বশুরবাড়ি থেকে নিয়ে তার বোনের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘সৌদি আরবে যাওয়ার আগে দেবর স্বপনকে একটি রিকশা কিনে দেন এবং নগদ ২০ হাজার টাকা দিয়ে যাই যাতে আমার সন্তানদের দেখে রাখার জন্য। বাচ্চাদের সঙ্গে কথা বলার জন্য স্বপনকে একটি স্মার্টফোনও দিয়েছিলাম। কিন্তু দুই মাস পার না হতেই আমার ছেলেকে মারধর করে সেই মোবাইল দিয়েই ভিডিও করে আমার কাছে পাঠায়। ভিডিও দেখে আমি সৌদি আরবে আমার মালিককেও দেখাই। আমার কান্নাকাটি দেখে চলতি মাসের বেতন দিয়ে মালিক আমাকে দ্রুত দেশে পাঠান।’
এদিকে এ ঘটনার খবর পেয়ে গতকাল বুধবার সকালে নবীগঞ্জ থানার ওসি আজিজুর রহমানের নেতৃত্বে ও ওসি (তদন্ত) উত্তম কুমার দাশ, সেকেন্ড অফিসার এস.আই শামসুল ইসলামসহ একদল পুলিশ বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে অবশেষে বানিয়াচং উপজেলার খাগাউরা গ্রাম থেকে নির্যাতনকারী স্বপন মিয়াকে গ্রেফতার করা হয়।
নির্যাতনের ভিডিও ক্লিপটি পর্যালোচনা করে দেখা যায়, একটি ঘরের মেঝেতে বসে হাউমাউ করে কাঁদছে গায়ে কোনো কাপড় ছাড়া ৬ বছরের শিশু জিসান। তার দিকে তেড়ে গিয়ে বাজে ভাষায় গালাগালি করতে করতে লাথি মারছেন অভিযুক্ত চাচা স্বপন। এতে আরও দেখা যায়, চড়-থাপ্পড় এবং লাথি-ঘুষি মারার পরে স্বপন শিশুটির গোপনাঙ্গ ধরেও টান দিচ্ছেন। এরপর ওই শিশুটির দুই পা ধরে তাকে উল্টো ঝুলিয়ে আছাড় মারার ভয় দেখাচ্ছিলেন। তখন শিশু জিসান বার বার ‘ও মা’, ‘ও মা’ বলে চিৎকার করছিল।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com