রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০২:৫৫ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
চুনারুঘাট সীমান্তের মাদক সম্রাট দুলন গ্রেফতার ॥ এলাকায় উল্লাস, মিষ্টি বিতরণ শহরের চাঞ্চাল্যকর মা ও মেয়েকে হত্যার দায়ে তাজুল গ্রেফতার হবিগঞ্জে কনফারেন্সে ড. বোরহান উদ্দিন ॥ ভারত উপমহাদেশে আ’লা হযরত ছিলেন আশির্বাদ স্বরূপ বাহুবলে দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে চালক ও হেলপার নিহত খেলাধূলার উন্নয়নে আন্তরিকতা অব্যাহত থাকবে-এমপি আবু জাহির বাহুবলে ৭ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতি হবিগঞ্জ জেলা শাখার বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত ঈদে মিলাদুন্নবী (দঃ) উপলক্ষে বিশেষ পরামর্শ সভা অনুষ্টিত বানিয়াচঙ্গের এক গৃহবধূ সাপের কামড়ে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে বাইপাস সড়কে অবৈধভাবে আবারো জায়গা দখল চলছে
হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালের বিতর্কিত কর্মচারী জাহির দালালদের গডফাদার

হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালের বিতর্কিত কর্মচারী জাহির দালালদের গডফাদার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ সদর হাসপাতাল ক্যাম্পাসে প্রবেশ করলেই চোখে পড়বে বিশাল দুটি বিল বোর্ড। এগুলো হল এই হাসপাতালের ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারী শেখ মোঃ জাহির মিয়ার। একটিতে আছে বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী এমপি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ডাঃ মুশফিক হোসেন চৌধুরীর ছবি। অন্যটিতে সে ব্যবহার করেছে হবিগঞ্জ-৩ আসনের এমপি ও জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি এডভোকেট মোঃ আবু জাহিরের ছবি। জেলায় আওয়ামীলীগের দুটি মেরুকরণ হওয়ায় এক সাথে সকল ছবি ব্যবহার না করে সে কৌশলের আশ্রয় গ্রহণ করেছে। নামের সাথে শেখ থাকায় সহজেই সে সরকারী দলের লোক বলে পরিচয় দিতে পারছে। আর এই পরিচয় দিয়ে সে হাসপাতালে প্রকাশ্যে দালালী করে বড় অংকের টাকা উপার্জন করলেও কেউ মুখ খুলে প্রতিবাদ করতে পারছেন না। শুধু তাই নয়, হাসপাতালের একটি সঙ্গবদ্ধ দালাল চক্রের সিন্ডিকেটের মূল হোতা এই শেখ জাহির। অভিযোগে জানা যায়, শেখ মোঃ জাহির মিয়া ঝাড়ুদার হিসাবে স্বাস্থ্য বিভাগে চাকুরী নেয়। দীর্ঘদিন চুনারুঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চাকুরী করলেও পরে সে হবিগঞ্জ আধুনিক জেলা সদর হাসপাতালে অফিস সহায়ক হিসাবে যোগদান করে। হাসপাতালে নিজেকে সরকারী দলের বড় নেতার আত্মীয় পরিচয় দিয়ে আধিপত্য বিস্তারের চেষ্টা করে। এক পর্যায়ে সে হাসপাতালের বহির্বিভাগের অফিস সহায়কের দায়িত্ব ভাগিয়ে নেয়। এখানে মহিলা রোগীরা আসলে সে তাদের সাথে খারাপ আচরণ করে। এমনকি গায়েও হাত দেয়ার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। রোগী যখন ডাক্তারের রুমে প্রবেশ করে তখন সেও সেখানে উপস্থিত থাকে। ডাক্তার রোগীকে দেখার পর যদি কোন পরীক্ষা-নিরীক্ষা না দেন তখন সে ডাক্তারকে চাপ প্রয়োগ করে আল্ট্রাসনোগ্রামসহ বিভিন্ন পরীক্ষা দেয়ার জন্য। যদি তার কথা চিকিৎসক না শুনেন তাহলে সে তাদের সাথে অকথ্য ভাষা ব্যবহার করে। হুমকি দিয়ে বলে পরীক্ষা না দিলে এখান থেকে বদলী করে দিব। তার এই অত্যাচারে অতীতে অনেক চিকিৎসক হাসপাতাল ছেড়েছেন। বর্তমানে যারা আছেন তারাও এ ব্যাপারে মুখ খুলতে সাহস পাননা।
এদিকে, ডাক্তার রোগীকে যখন দেখে ব্যবস্থাপত্র দেন তখন জাহির সেটি হাতে নিয়ে দেখে পরীক্ষা আছে কি না। পরীক্ষা থাকলে সে হাসপাতালের বাহিরে থাকা তার নিজস্ব লোক দিয়ে বিভিন্ন ক্লিনিকে প্রেরণ করে মোবাইলে জানিয়ে দেয়। অনেক সময় সে নিজেই রোগীকে নিয়ে যায় প্রাইভেট ক্লিনিকে। দিনের বেলা কাজ করার পর বিকেলে গিয়ে সে তার কমিশন বুঝে আনে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হাসপাতালের এক কর্মচারী বলেন, জাহিরের মোবাইল নাম্বারের কল লিস্ট পরীক্ষা করলেই পাওয়া যাবে সে প্রতিদিন কোন কোন ক্লিনিকে ফোন করে এবং তার নিজস্ব ২ জন দালালেরও তথ্য পাওয়া যাবে।
হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালকে দালালমুক্ত করতে সম্প্রতি ২৮ জনের একটি তালিকা প্রকাশ করা হয়। ২/১জনকে বিভিন্ন সময় গ্রেফতার করা হয়। কিন্তু যারা তালিকা প্রণয়ন করেছেন তারা জানার পরও ভয়ে শেখ মোঃ জাহিরের নাম তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করেননি। হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির বর্তমান সভাপতি বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট মাহবুব আলী সম্প্রতি হাসপাতালের একটি সভায় বলেছেন, ‘হাসপাতালের কোন কর্মচারী যদি দালালীর সাথে সম্পৃক্ত থাকে তাহলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে’। কিন্তু শেখ মোঃ জাহির মিয়া কর্তৃপক্ষের পৃষ্টপোষকতা পাওয়ায় যখন কোন মন্ত্রী বা এমপি হাসপাতালে আসেন তখন সে গিয়ে ফুল দেয়। আবার বক্তৃতাও দেয়। এ নিয়ে চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীদের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে।
হাসপাতালের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক চিকিৎসক জানান, এই হাসপাতালে অনেক মহিলা কর্মচারী আছেন। তাদেরকে গাইনী বুথে ডিউটি না দিয়ে কেন জাহিরকে ডিউটি দিচ্ছেন তা সবাই জানে। কারণ জাহিরকে সবাই ভয় পায়। এখানে যারা চিকিৎসা নিতে আসেন তাদের অধিকাংশই দরিদ্র। কিন্তু জাহিরের জন্য এই রোগীদের অপ্রয়োজনে অনেক ব্যয় করতে হয়।
হাসপাতাল থেকে আরও জানা গেছে, শেখ মোঃ জাহিরের বাড়ী লাখাই উপজেলার ভরপূর্ণি গ্রামে। চাকুরীর পাশাপাশি দালালীর মাধ্যমে উপার্জিত অর্থে সে গ্রামে ও শহরে অনেক জমি ক্রয় করেছে। গ্রামের বাড়িতে নির্মাণ করেছে অট্টালিকা। সে পুরাতন হাসপাতাল কোয়ার্টারে একটি বাসাও বরাদ্দ নিয়েছে। তাকে ভয় পেয়ে কেউ কোন প্রতিবাদ করেন না। ডাক্তাররা অতীতে তার বিরুদ্ধে বিচার দিলে তত্ববাধায়ক কোন বিচার না করায় এখন সবাই তার অত্যাচার মুখ বুঝে সহ্য করেন। এমনকি হাসপাতালের অধিকাংশ কর্মচারী তার কাছে জিম্মি।
এ ব্যাপারে শেখ মোঃ জাহির এর সাথে যোগাযোগ করা হলে সে দালালীর কথা অস্বীকার করে। মহিলাদের বুথে দায়িত্ব পালনের বিষয়ে সে বলে বেশী রোগীকে সামাল দিতে তাকে দায়িত্ব প্রদান করা হয়েছে। পুরাতন হাসপাতালের বাসাটি এখনও সে ঠিক করেনি, এবং সেখানে উঠেনি বলেও জানায় সে।
হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডাঃ রথীন্দ্র চন্দ্র দেব বলেন, ‘জাহির ঝাড়ুদার হিসেবে চাকরি নেয়ার পর বর্তমানে তাকে এমএলএসএস-এ পদোন্নতি লাভ করেছে। সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা নেয়া হবে’।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com