সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১, ০৮:১০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
রাত পোহালেই পবিত্র ঈদুল আজহা স্বাস্থ্যবিধি মেনে মসজিদে জামাত নবীগঞ্জে ইউপি চেয়ারম্যানসহ ৩ জনের বিরুদ্ধে গণধর্ষণের অভিযোগ এনে মামলা মাধবপুরে আরো একজনের মৃত্যু জেলায় নতুন করে ৪০ জন করোনায় ভাইরাসে আক্রান্ত মাধবপুরের পিয়াইম গ্রামে সংঘর্ষে ২৫ জন আহত লায়ন্স ক্লাব অব হবিগঞ্জের ঈদখাদ্য সামগ্রী বিতরণে এমপি আবু জাহির পইলে মানসিক রোগী বড় বোনের আঘাতে ছোট বোন নিহত হবিগঞ্জ জেলা বিএনপির উদ্যোগে করোনা হেলপ সেল এর উদ্বোধন ফ্রেন্ডস সোসাইটি হবিগঞ্জের অক্সিজেন সিলিন্ডার সেবা কার্যক্রমের উদ্বোধন ও মাস্ক বিতরণ নবীগঞ্জের বাউসা ইউনিয়নবাসীকে ছাদিকুর রহমান শিশু’র ঈদ শুভেচ্ছা সুস্থ হয়েই অস্বচ্চল মানুষের মাঝে সহায়তা দিলেন এমপি আবু জাহির

তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে শায়েস্তানগর ও মোহনপুর গ্রামবাসীর সংঘর্ষ ॥ আহত অর্ধশতাধিক ॥ আটক ২ ॥ গুলি ও কাদানের গ্যাস নিক্ষেপ

  • আপডেট টাইম বৃহস্পতিবার, ৫ নভেম্বর, ২০১৫
  • ২৪১ বা পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ শহরের শায়েস্তানগরে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শায়েস্তানগর ও মোহনপুর এলাকাবাসীর সংঘর্ষে হবিগঞ্জ সদর থানার ওসি নাজিম উদ্দিনসহ অর্ধশত লোক আহত হয়েছে। এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ  ৭০ রাউন্ড রাবার বুলেট ও ৬ রাউন্ড টিয়ারসেল নিক্ষেপ করে। ঘটনার সাথে জড়িত থাকার সন্দেহে দুই জনকে আটক করা হয়।
ওসি আহত হবার ঘটনার পর পুলিশ ক্ষিপ্ত হয়ে শায়েস্তানগর এলাকার সর্দার লাল মিয়া সহ কয়েকটি বাড়িতে তল্লাসী চালায়। এ সময় বাসা-বাড়িতে লোকজনকে মারধর ও জিনিসপত্র ভাংচুরের অভিযোগ করেছেন।
এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গতকাল বুধবার দুপুর ১২ টার শায়েস্তানগর ট্রাফিক পয়েন্টে শায়েস্তানগর ও মোহনপুর গ্রামের দু’যুবকের কথা কাটাকাটি হয়। এর জের ধরে শায়েস্তানগর ও মোহনপুর এলাকার লোকজন সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। সংঘর্ষে উভয় পক্ষ দেশীয় অস্ত্র ব্যবহার করে। এ সময় শায়েস্তানগর এলাকা রণক্ষেত্রে পরিনত হয়। এ সময় যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। প্রায় ১ ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষ চলাকালে পুলিশ ৭০ রাউন্ড রাবার বুলেট ও ৫ রাউন্ড টিয়ারসেল নিক্ষেপ করে সংঘর্ষকারীদের ছত্রভঙ্গ করে। এক পর্যায়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। সংঘর্ষে ওসি নাজিম উদ্দিন, পুলিশ সদস্য জাকির, আলমগীর, মোজাম্মেল হক, ইয়াসিন, আব্দুল লতিফসহ অর্ধশতাধিক আহত হয়। পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে লাউছ মিয়া (২০) ও সোহেল মিয়া (১৮) নামে দুই জনকে আটক করে। গুরুতর আহত সামছু মিয়াকে সিলেট এম এ জি ওসমানী হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। রমজান, নোমান, জসিম, রাজু আলী, জাবেদ, মাসুম, রুকন ও নয়নসহ ১৮ জনকে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে চিকিৎসা প্রদান করা হয়েছে। সংঘর্ষ চলাকালে শায়েস্তানগর এলাকায় অবস্থিত মোহনপুর ও শায়েস্তানগর এলাকার লোকজনের মালিকানাধিন বেশ কয়েকটি দোকান ভাংচুর করা হয়।
শায়েস্তানগর এলাকাবাসীর অভিযোগ, সংঘর্ষে ওসি নাজিম উদ্দিন আহত হবার ঘটনার পর পুলিশ ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। এপুলিশ শায়েস্তানগর এলাকার তল্লাসী চালায়। এ সময় শায়েস্তানগরের সর্দার লাল মিয়া, মুক্তিযোদ্ধা আলতা মিয়া ও হাজী মোঃ জিতু মিয়ার বাড়িতে মহিলা, শিশুসহ লোকজনকে মারধর করা হয়েছে বলে লোকজন অভিযোগ করেন। পুলিশের মারধরে মুক্তিযোদ্ধা আলতা মিয়া (৮৫), হাজী মোঃ জিতু মিয়া (৯০), তার  পত্রবধূ রাশেদা বেগম (৩৫), মেয়ে লাভলী আক্তার (২২), মজিদ মিয়ার স্ত্রী, মেয়ে নোহা (৭) আহত হয়েছে।
এ ঘটনার প্রতিবাদে গতকাল বিকেলে শায়েস্তানগরস্থ গাউছিয়া একাডেমীতে এলাকাবাসীর প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সর্দার লাল মিয়ার সভাপতিত্বে সভায় কাউন্সিলর মাহবুবুর রহমান হেলাল, ফারুব মিয়া, সিতু মিয়া, ওয়াহিদ মিয়া, উম্মেদ আলী শামীম, সৈয়দ তোফায়েল ইসলাম কামাল, বাচ্চু মিয়া, ফুল মিয়া, আব্দুল আজিজ, রজব আলী, জি কে গাফ্ফার, মাওঃ গোলাম সরোয়ার, নুর মিয়া, ফেরদৌস আহমেদ, মাওঃ আব্দুল আলীম, মাওঃ নাসির উদ্দিন প্রমুখ। বক্তারা ওসি নাজিম উদ্দিনের নেতৃত্বে পুলিশী হামলার দৃষ্টান্তমুল শাস্তির দাবী জানান। অন্যথায় ১২ নভেম্বর শায়েস্তানগর এলাকায় রাস্তা অবরোধসহ পরবর্তী কর্মসুচি ঘোষনা করা হবে।
খবর পেয়ে সহকারী পুলিশ সুপার (সদর) মাসুদুর রহমান মনির, জেলা যুবলীগ সভাপতি মোঃ আতাউর রহমান সেলিম, পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি নিলাদ্রী শেখর পুরকায়স্থ টিটু, সাধারণ সম্পাদক মোতাচ্ছিরুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান মিজান সভাস্থলে উপস্থিত হয়ে বক্তব্য রাখেন।
এ সময় সহকারী পুলিশ সুপার (সদর) মাসুদুর রহমান মনির জানান, সৃষ্ট ঘটনা তদন্তে কমিটি গঠন করা হয়েছে। উক্ত কমিটি ৩ দিনের মধ্যে রিপোর্ট প্রদান করলে দোষীদের বিরুদ্ধে শাস্তিমুলক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com