শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ০৮:৫২ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
বাউসা শাহ্ বাড়ি ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ৮ শতাধিক অসহায় ও হতদরিদ্র পরিবারের মাঝে নতুন শাড়ি, লুঙ্গি ও থ্রি-পিস বিতরণ নাজিরপুরে কমিউনিটি ইনিশিয়েটিভ সোসাইটি’র উদ্যোগে ”নারীর ক্ষমতায়ন ও সক্ষমতা বৃদ্ধির প্রশিক্ষন” প্রদান শায়েস্তাগঞ্জে ১২০ পিস ইয়াবাসহ বিক্রেতা আটক নিউইয়র্কে বাহুবল এসোসিয়েশন অব ইউএসএ’র নয়া কমিটি গঠন ॥ সভাপতি দেলোয়ার সাধারণ সম্পাদক মকছুদ শহরে জলাবদ্ধতা ॥ থানা-সার্কিট হাউজসহ বিভিন্ন অফিসে পানি শিক্ষিকা রিবন রূপা দাশের মৃত্যুর রহস্য উদ্ঘাটন ও অভিযুক্তদের গ্রেফতারের দাবীতে মানববন্ধন ঈদে বাড়ী-বাড়ী বর্জ্য সংগ্রহ কার্যক্রমকে আরো জোরদার করতে হবিগঞ্জ পৌর কর্তৃপক্ষের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হাসপাতালের প্রধান ফটকসহ ফুটপাতের দোকান উচ্ছেদ সিগন্যাল অমান্য করে ক্রসিংয়ে প্রবেশ ॥ লস্করপুরে ট্রেনের ধাক্কায় সিএনজি যাত্রী নিহত বানিয়াচং হাসপাতালে সরকারি নিয়ম ভঙ্গ করে রোগীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত অর্থ আদায়

মাধবপুরে কবিরাজ রোগীদের থেকে গরু-ছাগল উপহার নেন

  • আপডেট টাইম শনিবার, ৪ নভেম্বর, ২০২৩
  • ১৪১ বা পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ মাধবপুর উপজেলার মেহেরগাঁও গ্রামে কবিরাজ দাবিকারি শহিদ মিয়া নামে এক ব্যক্তি দুরারোগ্য বিভিন্ন ব্যাধির চিকিৎসা করছেন। তাঁকে দেখাতে এসে অনেক রোগীই দিচ্ছেন গরু-ছাগল, হাঁস-মোরগ। কেউ কেউ নগদ টাকাও দিচ্ছেন। যাদের অনেকেই হবিগঞ্জ, সিলেট ও আশপাশের বিভিন্ন জেলা থেকে এসেছেন।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, কবিরাজ দাবিকারী শহিদ মিয়া ৫/৬ বছর আগে ভূমি অফিসে দলিল লেখার কাজ করতেন। ৫ বছর আগে হঠাৎ করে তিনি তাঁর বাড়িতে কবিরাজি শুরু করেন। তাঁর চিকিৎসায় অনেক জটিল রোগে আক্রান্ত রোগীরা ভালো হয়েছেন এমন খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে দিন দিন শহিদ মিয়ার বাড়িতে রোগীর ভিড় বাড়তে থাকে। রোগীদের চিকিৎসার বিনিময়ে শহিদ মিয়া কিছু দাবি করেন না।
রোগীরা সুস্থ হলে, খুশি হয়ে তাঁকে কেউ কিছু দিলে তা তিনি নিয়ে থাকেন। তবে গরু-ছাগল জবাই করে শিরনি বানিয়ে সবাইকে খাইয়ে থাকেন।
কবিরাজ শহিদ মিয়া দাবি করেন, তার চিকিৎসায় অনেক রোগী সুস্থ হয়েছেন। তিনি কোনো রোগীর থেকে কিছু চেয়ে নেন না। যেসব রোগী থেকে গরু-ছাগল নেন এগুলো জবাই করে তাঁর কাছে আসা রোগী ও তাদের স্বজন এবং আশপাশের বাসিন্দাদের খাইয়ে থাকেন।
মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. ইশতিয়াক আল মামুন জানান, এ ধরনের চিকিৎসার বৈজ্ঞানিক কোনো সূত্র নেই। এগুলো সম্পূর্ণ অপচিকিৎসা। কবিরাজি চিকিৎসায় কোনো অবস্থাতেই জটিল কঠিন রোগে আক্রান্ত রোগীরা ভালো হয় না। গ্রামের সহজ-সরল মানুষের আবেগকে পুঁজি করে এসব অপচিকিৎসা চলছে।
মাধবপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মনজুর আহসান বলেন, যারা এ ধরনের অপচিকিৎসা করে সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করছে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com