শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ০৭:১২ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
চুনারুঘাটে দুই সহোদরসহ ৩ জন গ্রেফতার ॥ ২০ কেজি গাঁজা উদ্ধার শায়েস্তাগঞ্জে চেয়ারম্যান পদে স্বামী-স্ত্রীর মনোনয়নপত্র দাখিল আজ শায়েস্তাগঞ্জ থানা উদ্বোধন করবেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের আউশকান্দি এলাকা থেকে মহিলার লাশ উদ্ধার আন্দোলনের মুখে শেখ হাসিনা পালানোর পথ খুঁজে পাবেনা-শেখ সুজাত মিয়া সৌদি আরবে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত চুনারুঘাটের সোহাগের মরদেহ ২৮ দিন পর দেশে ॥ দাফন সম্পন্ন বানিয়াচঙ্গে পুলিশের অভিযানে গাঁজাসহ এক ব্যাক্তি আটক শায়েস্তাগঞ্জ রেলওয়ের জংশন গাড়ির স্ট্যান্ডে পরিণত আজমিরীগঞ্জের কৃতি সন্তান আনিসুল ইসলাম জুয়েল কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মনোনীত জুমার খুৎবায় মাওলানা গোলাম মোস্তফা নবীনগরী ॥ রাত জেগে খেলা দেখে উল্লাস করে ঘুমন্ত মানুষকে ডিস্টার্ব করছে তাদের জন্য দোযকের বার্তা রয়েছে

নবীগঞ্জের ঘোলডুবা গ্রামে পিতা পুত্রের বিপরীতমুখী অবস্থান ॥ প্রবাসীদের অর্থায়নে কবরস্থানের উন্নয়ন কাজ বন্ধ ॥ বিক্ষুদ্ধ জনগণ

  • আপডেট টাইম রবিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ৫৭ বা পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নবীগঞ্জ উপজেলার ঘোলডুবা গ্রামের বড় কবরস্থানটি যুগ যুগ ধরে ঘোলডুবা, শ্যামলী আর কাদমা- এই তিন গ্রামের প্রায় আট শতাধিক পরিবার নিজেদের কবরস্থান হিসেবে ব্যবহার ও এর রক্ষণাবেক্ষণ করে আসছেন। সরেজমিনে দেখা যায়, প্রায় সাড়ে ৩ একর সরকারি মালিকানাধীন জমি নিয়ে এই কবরস্থানটি পূর্ব, পশ্চিম ও দক্ষিণ দিকে সরকারী আঞ্চলিক পাকা সড়ক ও উত্তরে গ্রামের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ ও উচ্চ বিদ্যালয় দ্বারা পরিবেষ্টিত। এ কবরস্থান ছাড়াও গ্রামে আরও দুটি কবরস্থান রয়েছে।
স্থানীয় লোকজনের সাথে আলাপ করে জানা যায় যে, তাঁদের পূর্বপুরুষগণ প্রায় ৪০/৫০ বছর পূর্বে কবরস্থানের পবিত্রতা রক্ষা করতে নিজেদের অর্থায়নে এর চতুর্দিকে সীমানা প্রাচীর নির্মাণ করেন। কালের ব্যবধানে সীমানা প্রাচীর কোনো কোনো স্থানে ভেঙ্গে যায় এবং ধারাবাহিক উন্নয়নের ফলে সড়ক উঁচু হয়ে উঠলে প্রাচীরটি তুলনামূলকভাবে নিচু হয়ে পড়ায় গরু-ছাগল দেয়ালের ভাঙা অংশ দিয়ে এমনকি দেয়াল টপকে কবরস্থানে প্রবেশ করে অবাধে বিচরণ করে। এর ফলে কবরস্থানের পবিত্রতা রক্ষা করতে জরুরি ভিত্তিতে দেয়ালটি পূনঃনির্মাণের প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়।
স্থানীয় জনগণের অনুরোধে বিলেত প্রবাসী বিশিষ্ট সমাজসেবক ও কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব মহিব উল্লাহ ও ফয়জুল হকের উদ্যোগে প্রবাসী অধ্যুষিত এই এলাকার রেমিটেন্স যোদ্ধা প্রবাসীগণ নিজেরা কবরস্থানের সীমানা প্রাচীর নির্মাণে এগিয়ে আসেন।
এবছর এপ্রিল মাসে জনাব ফজলুল হক এলাকার গন্যমান্য বিশিষ্টজন ও মুসল্লীগণের সম্মতি নিয়ে ও তাঁদের উপস্থিতিতে ১৩ এপ্রিল সীমানা প্রাচীর পুনঃনির্মাণ কাজ শুরু করেন। এতে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন গ্রামের প্রবীণ মুরুব্বি ও পঞ্চায়েত ব্যক্তিত্ব সাজ্জাদুর রহমান, ঘোলডুবা জামে মসজিদের মুতাওয়াল্লী আবুল কালাম, ইয়ান উদ্দিন, আতাউর রহমান মেম্বার, সাবেক মেম্বার ছানাওর মিয়া, জিলাল মিয়া, ব্যবসায়ী বাবুল মিয়া, আরজ মিয়া, এলেমান মিয়া প্রমূখ। দেয়ালটি পুনঃ নির্মাণের খবরটি ছবিসহকারে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রচার হবার ফলে দেশে-বিদেশে অবস্থানরতরা এ মহৎ উদ্যোগের প্রশংসা এবং সমর্থন কুড়ায়।
এদিকে গত ১৬ আগষ্ট ঘোলডুবা গ্রামের জনৈক সাজ্জাদুর রহমানের ছেলে আবু আহমদ মোঃ হাম্মাদ বাদী হয়ে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট, হবিগঞ্জ এর আদালতে কবরস্থানের দেয়াল পুনঃনির্মাণ কাজের অন্যতম উদ্যোক্তা জনাব মহিব উল্লাকে পক্ষ করে তাঁর বিরুদ্ধে দল, বল ও লাঠিয়াল বাহিনী নিয়ে জোরপূর্বক দেয়াল নির্মাণ করে কবরস্থান দখল করার অভিযোগ আনেন এবং ফৌজদারি কার্যবিধির ১৪৪ ধারার অধীনে আইন-শৃঙ্খলা অবনতি হবার মিথ্যা অজুহাতে কবরস্থানের দেয়াল পুনঃনির্মাণে অস্থায়ী নিষেধজ্ঞা জারির আবেদন করেন। মামলা নাম্বার ৪৫৯/২২ নবী। বিজ্ঞ আদালত কোন আদেশ না দিয়ে তদন্ত পূর্বক একটি প্রতিবেদন দাখিল করার জন্য সহকারী কমিশনার ভূমি, নবীগঞ্জকে নির্দেশনা প্রদান করেন এবং আগামী ২০ সেপ্টেম্বর পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য্য করেন। সহকারী কমিশনারের নির্দেশে নবীগঞ্জ ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার মোঃ হাবিবুর রহমান ইতোমধ্যে কবরস্থান পরিদর্শন এবং বাদী ও বিবাদী পক্ষের লোকজনের সাথে আলাপ করেছেন। আগামী ২০ সেপ্টেম্বর পূর্বে তিনি তদন্ত প্রতিবেদন আদালতে জমা দিবেন বলে জানিয়েছেন।
স্থানীয় লোকজন বিজ্ঞ আদালতের প্রতি সম্মান দেখিয়ে দেয়াল পুনঃনির্মাণের কাজ সাময়িকভাবে বন্ধ রেখেছেন এবং আদালতের নির্দেশনার আলোকে পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন বলে জানান। একই সাথে জনস্বার্থবিরোধী, মিথ্যা ও বানোয়াট এই মামলার আবেদন করে সমাজে বিবেধ সৃষ্টি ও উন্নয়ন কাজ ব্যাহত করার জন্য সাজ্জাদুর রহমান ও তার ছেলে মোঃ হাম্মাদের নিন্দা করেন এবং আইনি প্রক্রিয়ায় এমন হীন কাজের উপযুক্ত জবাব দেয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।
কবরস্থানের দেয়াল নির্মাণ কাজ বন্ধ করার পরপরই ঘোলডুবা গ্রামের বাসিন্দা ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান নাজমুল হোসেনের একটি ফোনালাপের একটি রেকর্ড সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। এতে জনৈক সাজ্জাদ মিয়া টেকা (টাকা) খাইয়া কাম করে বলতে শোনা যায়। কোন ব্যক্তি বিশেষের কাছ থেকে সুবিদা নিয়ে সাজ্জাদ মিয়া তার ছেলেকে দিয়ে কবরস্থানের উন্নয়ন কাজ বন্ধ করতে আদালতে মামলা করিয়েছেন বলে এলাকাবাসীর ধারণা। এছাড়াও পোস্টটিতে অনেকে সাজ্জাদ মিয়া ও নজমুল চেয়ারম্যানকে নিয়ে অনেক তীর্যক ও রসালো মন্তব্য লিখেছেন দেখা যায়।
এ ব্যাপারে মামলার বিবাদী বিলেত প্রবাসী বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজসেবক মহিব উল্লাহ বলেন, এলাকাবাসীর অনুরোধের প্রেক্ষিতে আমরা প্রবাসীগণ কবরস্থানের সীমানা প্রাচীর পুনঃনির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করি এবং বাদীর বাবা সাজ্জাদ মিয়াসহ এলাকার মুরুব্বীগণকে নিয়ে নির্মাণ কাজ শুরু করি।
একটি অসৎ উদ্দেশ্য নিয়ে সাজ্জাদ মিয়া তাঁর ছেলেকে দিয়ে মিথ্যা অজুহাতে কবরস্থানের কাজ বন্ধে আদালতে মামলার আবেদন করেছেন। বিজ্ঞ আদালতের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে আমরা সাময়িকভাবে নির্মাণ কাজ বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছি ও বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশনার আলোকে আমরা পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করবো বলে তিনি জানান। তিনি বলেন, সজ্জাদ মিয়ার এমন হীন আচরণে এলাকাবাসীর সাথে আমরা প্রবাসীগণও আহত হয়েছি এবং আমার ধারণা এধরণের নোংরা আচরণ অব্যাহত থাকলে প্রবাসীগণ এলাকার উন্নয়ন কর্মকান্ড থেকে নিজেদের মুখ ফিরিয়ে নেবেন। ফলে নিজ নিজ এলাকা এমনকি পুরো দেশ বিদেশী অর্থ সহায়তা থেকে বঞ্চিত হবে।
এব্যাপারে অপর উদ্যোক্তা নবীগঞ্জ বাজারের আদি ব্যবসায়ী ও বর্তমানে বিলেত প্রবাসী ফয়জুল হক জানান, আমি নিজে মহিব উল্লাহকে নিয়ে সাজ্জাদ মিয়ার বাড়িতে গিয়েছি এবং সকলের সম্মতি নিয়ে সাজ্জাদ মিয়া সহ স্থানীয় মুরুব্বীদের উপস্থিতিতে নির্মাণ কাজ শুরু করি। সাজ্জাদ মিয়া একদিকে সকলের সাথে উপস্থিত থেকে নির্মাণ কাজ শুরু করলেন আর বাড়িতে গিয়ে ছেলেকে দিয়ে কাজ বন্ধের মামলা করে হীনমন্যতার পরিচয় দিয়েছেন। আমি এর তীব্র নিন্দা করি উপরন্তু, দেশের প্রচলিত আইনের অপব্যবহার করে আদালতের সময় অপচয় ও সামাজিক উন্নয়ন কাজ ব্যাহত করার দায়ে এই মামলার বাদী আবু আহমদ মোঃ হাম্মাদকে বিচারের আওয়তায় এনে তার উপযুক্ত শাস্তি দাবি করছি।
এব্যাপারে ঘোলডুবা গ্রামের প্রবীণ মুরুব্বী ও ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নের ৩ বারের নির্বাচিত সাবেক মেম্বার ছানাওয়ার মিয়া বলেন, ঘোলডুবা গ্রামে এ কবরস্থান ছাড়াও আরও দু’টি ছোট কবরস্থান রয়েছে। ঘোলডুবা গ্রামের প্রাইমারি স্কুলের পশ্চিমের কবরস্থানে আমাদের নিজেদের পরিবারসহ সাজ্জাদ মিয়া ও তার গোষ্ঠীর লোকজনকে দাফন করা হয়। আমরা ইতোমধ্যে এই কবরস্থানের দেয়াল পুনঃনির্মাণ করেছি এবং প্রবাসী আত্মীয়স্বজনের সহায়তায় বড় কবরস্থানের দেয়াল পুনঃ নির্মাণের কাজ শুরু করেছি। এলাকার উন্নয়নে এই কাজ বন্ধ করতে মামলা দায়ের করার এখতিয়ার বা নৈতিক অধিকার সাজ্জাদ মিয়া বা তার ছেলের নেই। কবরস্থানটি সরকারি ১ নম্বর খতিয়ানের জায়গার উপর অবস্থিত, কারো পৈত্রিক সম্পত্তি নয়। এই কবরে অত্র এলাকার সর্বসাধারণের সমান অধিকার রয়েছে।
মামলার ব্যাপারে মন্তব্য করতে গিয়ে ঘোলডুবা গ্রামের বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব, কুর্শি ইউনিয়নের ৩ বারের নির্বাচিত মেম্বার ও বিভিন্ন সময়ে দীর্ঘ মেয়াদে চলতি দায়িত্ব পালনকারী চেয়াম্যান ফারছু মিয়া জানান, সাজ্জাদ মিয়া একজন বহুল আলোচিত-সমালোচিত ব্যক্তি। তিনি ও তাঁর ছেলের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগে ফৌজদারি মামলা আদালতে চলমান রয়েছে। সমাজের গুণীজনের সমালোচনা ও ভাল কাজে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে সমাজে ফিতনা-ফ্যাসাদের জন্ম দিয়ে নিজেদের জাহির করার একটা মানুষিকতা তার রয়েছে। আমরা সম্মিলিত ভাবে পিতা-পুত্রের এই অপকর্মের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।
এব্যাপারে বাদী আবু আহমদ মোঃ হাম্মাদকে মোবাইল ফোনে পাওয়া যায়নি। তবে, তাঁর পিতা সাজ্জাদুর রহমান স্বীকার করেছেন যে, এলাকার সর্বস্তরের মুরুব্বিয়ানদের সাথে তিনি নির্মাণ কাজের শুরুতে কবরস্থানে উপস্থিত ছিলেন। পরবর্তীতে প্রবাসীদের কেউ কেউ “তাদের সাথে যোগাযোগ করা হয়নি” বলে অভিযোগ দিলে তিনি তার ছেলেকে দিয়ে কবরস্থানের দেয়াল নির্মাণের কাজে নিষেধজ্ঞা প্রদান করতে আদালতে মামলা দায়ের করান। তিনি বলেন, কাদমা গ্রামের লোকজন নয়, ঘোলডুবা গ্রামের লোকজন কবরস্থানের নির্মাণ কাজে নেতৃত্ব দিলে কাজ করাতে আমাদের কোন আপত্তি থাকবে না বলে তিনি জানান।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com