সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৭:৪৭ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
মাধবপুরে র‌্যাবের অভিযানে ৩০ কেজি গাঁজাসহ যুবক গ্রেপ্তার বানিয়াচং ডাকাত সোহাগ গ্রেপ্তার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান হবিগঞ্জে জালিয়াতি করে ভূয়া এক্সরে রিপোর্ট ॥ আদালতে মামলা দায়ের বানিয়াচং বর্ধিত সভায় এমপি আবু জাহির ॥ সকল নেতাকর্মীকে ঐক্যবদ্ধভাবে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে হবে সিলেট-ঢাকা রেল পথে ডাবল লাইন স্থাপনের দাবী মিলাদ গাজী এমপির হবিগঞ্জে মাদক বিরোধী প্রীতি ভলিবল ও ফুটবল প্রতিযোগীতা নবীগঞ্জে বক্তারপুর স্কুলের দশম শ্রেণীর মেধাবী ছাত্র অমিতের মৃত্যুতে শোকসভা অনুষ্টিত বহুলা থেকে মাদক মামলার সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার চুনারুঘাটে বর্ধিত সভায় এমপি আবু জাহির ॥ বিএনপি পেছনের দরজা দিয়ে ক্ষমতায় আসতে চায় আজ বানিয়াচং উপজেলা আ.লীগের বর্ধিত সভা

লাখাই উপজেলার কৃষ্ণপুর গণহত্যা দিবস পালিত

  • আপডেট টাইম রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ২৫ বা পড়া হয়েছে

আবুল কাসেম, লাখাই থেকে ॥ লাখাই উপজেলায় কৃষ্ণপুর গ্রামে ১৯৭১ সালে ১৮ সেপ্টেম্বর রাজাকারের সহযোগিতায় পাকহানাদার বাহিনী ১২৭ জন গ্রামবাসীকে হত্যা করে। এই দিবসটি উপলক্ষে যথাযোগ্য মর্যাদায় বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে গতকাল শনিবার ঐতিহাসিক কৃষ্ণপুর গণহত্যা দিবস পালিত হয়েছে। জাতীয় সংগীতের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের শুরু হয়। পরে কৃষ্ণপুর বধ্যভূমিতে সকল শহীদের স্মরণে পুষ্পাঞ্জলি অর্পণ করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন লাখাই উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মুশফিউল আলম আজাদ, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) রুহুল আমিন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আমিরুল ইসলাম আলম, লাখাই থানার ওসি সাইদুল ইসলাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা, সাংবাদিক ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গসহ কৃষ্ণপুর কমলাময়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীবৃন্দ। প্রসঙ্গত ১৯৭১ সালে এই দিনে একসঙ্গে লাইনে দাঁড় করিয়ে রাজাকারের সহযোগিতায় ১২৭ জন গ্রামবাসীকে হত্যা করেছিল পাকহানাদার বাহিনী। আহত হয়েছিলেন শতাধিক নারী-পুরুষ। সেই সময় এতো মরদেহ এক সঙ্গে সৎকারের কোনো ব্যবস্থা না থাকায় পাশের নদীতে মরদেহগুলো ভাসিয়ে দিয়েছিলেন স্থানীয় নারীরা। সেই বিভীষিকাময় দিনের কথা মনে করে আজও কেঁপে ওঠেন অনেকে। লাখাই উপজেলার লাখাই ইউনিয়নের কৃষ্ণপুর গ্রামটি জেলার শেষ প্রান্তে অবস্থিত। যোগাযোগের তেমন ভালো মাধ্যম নেই। বর্ষায় নৌকা আর শুকনো মৌসুমে পায়ে হেটে চলাচল করতে হয়। গ্রামে শতকরা ৯৫ ভাগ লোকই হিন্দু-ধর্মাবলী। ১৯৭১ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর স্থানীয় রাজাকারের সাহায্যে পাকহানাদার বাহিনী ভোর বেলায় হঠাৎ আক্রমণ চালায় ওই গ্রামে। এ সময় গ্রামের শতশত নারী-পুরুষ স্থানীয় একটি পুকুরের পানিতে ডুব দিয়ে আত্মরক্ষার চেষ্টা করেন। তবুও রক্ষা পাননি দুই শতাধিক নিরীহ গ্রামবাসী। পাক হানাদার বাহিনীর হাতে পালিয়ে থাকা গ্রামবাসীর মধ্যে ১২৭ জন ধরা পড়ে। এদের সবাইকে ব্রাশ ফায়ার করে মেরে ফেলা হয়।
প্রতি বছর ১৮ সেপ্টেম্বর আসলেই যুদ্ধাহত শহীদ মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের সন্তানরা স্থানীয় বিদ্যালয় প্রাঙ্গণের স্মৃতিস্তম্ভে ফুল দিয়ে দিনটি পালন করে থাকেন।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com