রবিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২১, ০৫:০৯ অপরাহ্ন

আজ মহান মে দিবস

আজ মহান মে দিবস

বরুন সিকদার ॥ মে দিবসকে কেন্দ্র করে নানা আয়োজনে ব্যস্ত গোটা জেলা। সরকারী ও বেসরকরী ভাবেও দিনটিকে ঘিরে নেয়া হয়েছে নানা প্রস্তুতি। এগুলোর মধ্যে বিভিন্ন সংগঠনের উদ্যোগে থাকছে র‌্যালী, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানমালা। সার্বিক নিরাপত্তা বিধানে তৎপর থাকবে প্রশাসন। ঐতিহাসিক সূত্র মতে জানা যায়, এমন এক যুগ ছিল যখন শ্রমিকরা তাদের ন্যায্য অধিকার ও দাবি দাওয়ার কথা মন খুলে ও মুখ ফুটে বলতে পারত না মালিক সমাজকে। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত দিনে রাতে ১৬-১৮ ঘন্টা কাজ করত । তাদের ছিল না কোন ছুটি, ছিল না কোন সুযোগ সুবিধা না কোন স্বাধীনতা। তারা দু:খ-কষ্টে জীবিকা নির্বাহ করত। দাবি দাওয়ার কথা উঠলে মালিকরা তাদের উপর ক্ষেপে যেতো, এমনকি মালিকদের ভাড়াটে সন্ত্রাসী দিয়ে তাদের উপর জুলুম করত। মালিকরা শ্রমিকদের ওপর অতিরিক্ত কাজ চাপিয়ে দিতো। এমন অত্যাচারে যখন তাদের ওপর চলছিল তখন শ্রমিকরা প্রতিবাদী হয়ে উঠে। প্রথম দিকে তাদের প্রতিবাদের তেমন সাহস ছিল না। ধীরে ধীরে শ্রমিকরা সব শ্রেনীর শ্রমিকদের ঐক্যবদ্ধ করতে শুরু করল। তারা ঐক্যবদ্ধ হয়ে প্রথমে দশ ঘন্টা কাজের দাবীতে ও ন্যায্য অধিকার জন্য আন্দোলন করলো। বিশ্বের মধ্যে ১ম ট্রেড ইউনিয়ন ফিলাডেলফিয়ার মেকানিক ইউনিয়ন ১৮২৭ সালে আন্দোলন সূত্রপাত ঘটায়। তাদের এ দাবী মালিক পক্ষ মেনে নেয়। কিন্তু মুখ দিয়ে মেনে নিলেও বাস্তবে শ্রমিকদের উপর নির্যাতন অব্যাহতই রাখে। ১৮৮৬ সালের কথা ৬৭ টি ট্রেড ইউনিয়নের শ্রমিকরা ঐক্যবদ্ধ হলো এবং কাজের সময় ৮ ঘন্টার জন্য আবারোও দাবি করে । কিন্তু দাবি তুলতেই মালিক পক্ষ মেনে নিতে পারে নি। ঐ সময় শ্রমিক সমাজ তাদের দাবি আদায়ের লক্ষে ধর্মঘটের ডাক দিল। তাদের ধর্মঘটের আহব্বান শুনে মালিক পক্ষ ক্ষেপে গেল। পাশাপশি বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় শ্রমিকদের বিরুদ্ধে রিপোর্ট লেখা হলো। এ অবস্থায় মালিক ও শ্রমিক পক্ষ উভয়েই সংঘর্ষে লিপ্ত হলো। উত্তাল হয়ে উঠল জনপদ। একদিকে শ্রমিকরা তাদের দাবি ছেড়ে দিতে নারাজ অন্যদিকে মালিক পক্ষ তাদের দাবি মানতে নারাজ। অবস্থা অত্যান্ত নাজুক হয়ে দাড়ালো। ১৮৮৬ সালের পহেলা মে শ্রমিকরা আবারো তাদের দাবি আদায়ের লক্ষে ধারাবাহিক শ্রমিক ধর্মঘটের আহ্বান করলো। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো শহরে হে মার্কেটে স্কোয়ারে ধর্মঘট পালন করলো। শ্রমিকরা তাদের কল কারখানা ও সব কাজ বাদ দিয়ে স্বেচ্ছায় মিছিলে মিছিলে ধর্মঘটে শরিক হলো। শ্রমিকরা শিকাগো শহর দখল করে নিলো এবং পুলিশরা তাদের ঘিরে রাখলো। সে দিন ধর্মঘটে তেমন কোন অ্যাকশন ও বাধা দেয়নি পুলিশ। কিন্তু এ দিনও যখন মালিক পক্ষ শ্রমিকদের দাবি দওয়া মেনে নেয়নি, তাই তারা পরের দিন আবারোও ধর্মঘট পালন করলো। মালিক পক্ষ পুলিশ এবং মালিকদের ভাড়াটে সন্ত্রাসীরা শ্রমিকদের উপর চড়াও হলো। পুলিশের গুলিতে নিহত হলো সাত জন শ্রমিক। এ অবস্থায় শ্রমিক নেতা অগাস্ট স্পাইজ তার কর্মচারীদের নিহতদের প্রতিশোধ এবং শ্রমিকদের দাবি আদায়ের জন্য ৪ মে প্রতিবাদ সভা অহ্বান করেন। শিকাগো মার্কেট স্কোয়ারে প্রতিবাদ কর্মসূচি শুরু হলো। তাদের কর্মসূচি শুরুর কিছুক্ষনের মধ্যে পুলিশ তাদের বাহিনী নিয়ে সভা স্থলে উপস্থিত হলো এবং কর্মসূচী বন্ধ রাখার আদেশ দেয়। কিন্তু শ্রমিকরা তাদের প্রতিবাদ বন্ধ না করে সভা চালিয়ে গেলো। এমন সময় অতর্কিত পুলিশ এবং সন্ত্রাসী হামলা শ্রমিকদের উপর চলতে লাগলো। শুরু হলো আবারও তাণ্ডব যজ্ঞ, নিহত হলো আরোও চার জন শ্রমিক নেতা। হতাহত হলো শতাধিক নেতা কর্মী। নেয়া হলো তাদের কারাগারে। শুরু হলো তাদের বিচার। ১৮৮৬ সালের ৯ অক্টোবর তাদের বিচারের রায় দেয়া হলো মৃত্যুদণ্ড। কিন্তু এ রায় মেনে নিতে পারেনি শ্রমিক নেতাদের পরিবার। তারা রায়ের প্রতিবাদ করল। শুরু হলো মিছিল, মিটিং, বক্তৃতা, সমাবেশ। দেশ Ñবিদেশের সরকারে কাছে সাহায্য চাইলো। কিন্তু তাদের প্রতিবাদ কোন কাজে আসলো না। শ্রমিক নেতাদের মৃত্যুদণ্ডের মওকুফের আবেদন জানানো হলো। আবেদন অগৃহীত হলো, ফাসির রায় রয়ে গেলো। শ্রমিক নেতাদের দেখার কোন সুযোগ দেয়া হলে না তাদের পরিবারকে। ১৮৮৭ সালের ১১ নভেম্বর ফাঁসি হয়ে গেলো শ্রমিক নেতাদের। পরবর্তীতে ১৮৮৯ সালের ১৪ জুলাই অনুষ্ঠিত ইন্টারন্যাশনাল সোশালিস্ট কংগ্রেসে পহেলা মে শ্রমিক দিবস হিসাবে ঘোষনা দেয়া হলো। বিভিন্ন দেশে পালিত হলো এ দিবস। পরবর্তিতে ১৮৯০ সালের পহেলা মে তারিখে ঘোষনা করা হলো এখন থেকে এ দিবসটি আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস হিসেবে পালন করা হবে। আর সে দিন থেকে পহেলা মে মে দিবস হিসেবে সারা বিশ্বে উদযাপন করা হয়। এ দিন শ্রমিকের রক্তে রঞ্জিত হয়েছিল শিকাগো শহর। তাদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে এ দিবসটিকে আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস হিসেবে পালন করা হয়।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com