মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০২:১২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
উচ্ছেদ ঃ আজ থেকে দখলমুক্ত হচ্ছে পুরাতন খোয়াই নদী চুনারুঘাটে ৩ হাজার ৪শ পিছ ইয়াবাসহ আটক ৩ নবীগঞ্জে রাজনৈতিক সিন্ডিকেটের মাধ্যমে শেষ হলো সরকারি ধান ক্রয়ের কার্যক্রম ॥ বঞ্চিত হলো সাধারণ কৃষক পুরাতন খোয়াই নীদতে ২ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হবে “খোয়াই রিভার সিস্টেম” নদী রক্ষা কমিশনের তালিকায় হবিগঞ্জে ৬শ’ অবৈধ দখলদার সরকারি সফরে যুক্তরাষ্ট্র গেছেন এডঃ মোঃ আবু জাহির এমপি সংবাদ প্রকাশের পর হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালের কর্মচারী জাহিরের দৌড়ঝাপ মাধবপুরে মাদকসেবীর ভ্রাম্যমান আদালতে তিন মাসের জেল জেলা সাংবাদিক ফোরামের নির্বাচনে আরো ৪ বিনা প্রতিন্দ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ফুটবল বাংলাদেশের অত্যন্ত জনপ্রিয় খেলা-এমপি মিলাদ গাজী
জাফলংয়ে পাথর কোয়ারিতে মাটি চাপায় ॥ বানিয়াচঙ্গের বাবা-ছেলে মেয়েসহ ৫ জন নিহত

জাফলংয়ে পাথর কোয়ারিতে মাটি চাপায় ॥ বানিয়াচঙ্গের বাবা-ছেলে মেয়েসহ ৫ জন নিহত

মখলিছ মিয়া, বানিয়াচং থেকে ॥ সিলেটের জাফলং পাথর কোয়ারি মৃত্যুকূপে পরিণত হয়েছে। পাথর উত্তোলন করতে গিয়ে মাটি ধ্বসে প্রায়ই মৃত্যুর ঘটনা ঘটছে। এরপর থামছেনা পাথর উত্তোলন। মৃত্যুর ঝুঁকি নিয়ে সেখানে বিভিন্ন স্থান থেকে পাথর উত্তোলন করতে যাচ্ছেন খেটে খাওয়া নারী ও পুরুষ। বানিয়াচং সদরের বানেশ্বর বিশ্বাসের পাড়া গ্রামের জহুর আলী (৬৫), তার ছেলে মুজাহিদ মিয়া (২২) ও মেয়ে সাকিরুন বেগম (২৬) এবং একই উপজেলার জামালপুর গ্রামের মৃত তাজ উল্লাহর ছেলে সাদেক মিয়া (৩৫) গিয়েছিলেন পাথর উত্তোলন করতে। পাথর উত্তোলন করতে গিয়ে মাটি চাপা পড়ে তাদেরকে লাশ হতে হয়েছে। এছাড়া সুনামগঞ্জ জেলার জগন্নাথপুর উপজেলার মিরপুর গ্রামের মফিজ উল্লাহর ছেলে নুর মিয়া (৫০)কেও একই ভাগ্যবরণ করতে হয়েছে।
গত মঙ্গলবার বিকেলে জাফলংয়ের মন্দিরের জুম এলাকায় পাথর তুলতে গিয়ে ধ্বসে পড়া মাটি চাপায় তাদের প্রাণহানী ঘটে। আহত অবস্থায় উদ্ধার করা হয় আরও তিনজনকে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মঙ্গলবার বিকেলে মন্দিরের জুম এলাকায় গর্ত করে পাথর তোলার সময় পাহাড় ধ্বসে পড়ে। এতে মাটির নিছে চাপা পড়েন বানিয়াচংয়ের উল্লেখিত ৪জনসহ আরো কয়েকজন শ্রমিক। তাৎক্ষণিক স্থানীয় লোকজন উদ্ধার কাজ শুরু করে। খবর পেয়ে দমকল বাহিনীও সেখানে গিয়ে উদ্ধার কাজ চালায়। এ সময় বানিয়াচং সদরের বানেশ্বর বিশ্বাসের পাড়া গ্রামের জহুর আলী (৬৫), তার ছেলে মুজাহিদ মিয়া (২২) ও মেয়ে সাকিরুন বেগম (২৬) এর লাশ উদ্ধার করা হয় এবং একই উপজেলার জামালপুর গ্রামের মৃত তাজ উল্লাহর ছেলে সাদেক মিয়া (৩৫)সহ আরো কয়েকজনকে আহত অবস্থায় হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান সাদেক মিয়া। ওই রাতেই সাদেক মিয়ার মরদেহটি গোপনে তার গ্রামের বাড়ি জামালপুরে পাঠিয়ে দেয়া হয়। খবর পেয়ে বানিয়াচং থানা পুলিশ বাড়ি থেকে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য হবিগঞ্জ মর্গে প্রেরণ করে।
আহতদের মধ্যে হেলাল মিয়া, মিজানুর রহমানকে ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
হতাহতের এ ঘটনায় পাথর কোয়ারির গর্ত মালিক আব্দুস সাত্তারকে প্রধান করে ১৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। গতকাল বুধবার  সকালে নিহত জহুর আলীর মেয়ে জাকিরুন বেগম বাদী হয়ে গোয়াইনঘাট থানায় মামলাটি দায়ের করেন।
অপরদিকে এ ঘটনা তদন্তে ৩ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেছে জেলা প্রশাসন। সিলেটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আমিনুর রহমানকে প্রধান করে এ তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির অন্যান্য সদস্যরা হলেন- অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ আবদুল্লাহ ও আরডিসি আরিফুর রহমান।
গোয়াইনঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিশ্বজিত কুমার পাল বলেন, অবৈধভাবে পাথর উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। একই সাথে ওই গর্তের মালিকদের আটক করে দ্রুত আইনের আওতায় আনার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
পুলিশ জানায়, এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতেই শাহাবউদ্দিন নামে একজনকে আটক করা হয়েছে।
প্রসঙ্গত, গত বছরের ১৩ নভেম্বর একই গর্তে নারী শ্রমিক চম্পা দাস নিহতের ঘটনায় হত্যা মামলায় গর্তের মালিক আব্দুস সাত্তারকে মঙ্গলবার কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। ওই ঘটনায়ও প্রধান আসামি করা হয় আব্দুস সাত্তারকে।
গতকাল বুধবার বিকেলে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বানিয়াচংয়ের নিহত ৪ জনের লাশ এসে পৌছেনি।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com