সোমবার, ০১ Jun ২০২০, ০৪:৫৫ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
এমপি আবু জাহির এর প্রচেষ্টায় হবিগঞ্জে হতে যাচ্ছে করোনা পরীক্ষার ল্যাব জেলা গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে বিপুল পরিমাণ ইয়াবাসহ ১ মাদক ব্যবসায়ী আটক নবীগঞ্জে মাসিক আইনশৃংঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত লাখাইয়ে পরীক্ষায় ফেল করায় কিশোরী আত্মহত্যা করোনায় চুনারুঘাটে সেলুন ব্যবসায়ীরা দিশেহারা নবীগঞ্জে এসএসসি পরীক্ষায় পাশের হার ৭৯.৩১% জিপিএ-৫ পেয়েছে ৭৬ জন ভারতীয় নাগরিকদের হাতে নিহত বাংলাদেশীর লাশ ৬ দিন পর বিজিবির কাছে হস্তান্তর হবিগঞ্জে দুই গ্রামবাসির সংঘর্ষে আহত ৫০ নবীগঞ্জে পুলিশের হস্তক্ষেপে সংঘাত থেকে রক্ষা পেল গ্রামবাসী বানিয়াচঙ্গে কিশোরীকে ধর্ষণের চেষ্টা ॥ লম্পট গ্রেফতার
নবীগঞ্জের একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার আর্তনাদ

নবীগঞ্জের একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার আর্তনাদ

এটিএম সালাম, নবীগঞ্জ থেকে ॥ ডাক্তার যোগেন্দ্র বিশ্বাস একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার ১নং বড় ভাকৈর পশ্চিম ইউনিয়নের চরগাঁও গ্রামে তার জন্ম। তার পিতা মৃত যতীন্দ্র মোহন বিশ্বাস, মাতা মৃত অহল্যা রানী বিশ্বাস। সে ১৯৫৫ সালে এসএসসি পাশ করে। এর পর ময়মনসিংহ ন্যাশনাল মেডিকেল স্কুল থেকে ৪ বছর মেডিকেল কোর্স শেষ করে ১ বছর ইন্টারনী সহ ৫ বছর মেডিকেল কোর্স সমাপ্ত করেন। ১৯৬৫ সালে মেডিকেল পাশ করে সিলেট সদর হাসপাতালে ফ্যামিলি ট্রেনিং শেষে মেডিকেল অফিসার হিসেবে গোলাপগঞ্জ বিয়ানীবাজার উপজেলা ও কুমিল্লার থেওতা সরকারী হাসপাতালে চাকুরি করেন। এভাবে কয়েক বছর চাকুরি করার পর পাকহানাদার বাহিনী যখন দেশে আক্রমন করে, তখন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে বাঙ্গালী জাতি যখন যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়ে। তিনিও তখন এই মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেন। যুদ্ধের পাশাপাশি তার পেশাকে কাজে লাগান। যুদ্ধাহতদেরকে চিকিৎসা সেবা দেন। যেখানে শুনেছেন যুদ্ধে আহত সেখানেই ছুটে গিয়েছেন। দীর্ঘ নয় মাস যুদ্ধাহতদের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রাখেন। মুক্তিযোদ্ধাসহ স্মরনার্থীদের চিকিৎসার জন্য মুইলাম ক্যাম্পের ২ থেকে ৭নং সেকশনের চিকিৎসার দায়িত্ব পালন করেন। সেখানে দক্ষতার সহিত চিকিৎসা দানের জন্য ব্যাঙ্গালুর থেকে আগত সেখানকার স্বনামধন্য চিকিৎসক রাজু ও ডাক্তার সানাই নামে দুইজন ডাক্তার ভুয়সী প্রশংসা করেন এবং তাঁর কৃতিত্বের জন্য ডাক্তার যোগেন্দ্র কিশোর বিশ্বাসকে সনদ প্রদান করেন। যুদ্ধ শেষে পরবর্তীতে চাকুরি ছেড়ে নিজ এলাকা নবীগঞ্জ আসেন। তখনকার সময় সারা উপজেলায় কোন চিকিৎসক ছিলনা। হাতে গুনা ২/৩ জন চিকিৎসক ছিলেন তার মধ্যে তিনি দক্ষতার সাথে সুনাম অর্জন করেন। সর্বত্র এলাকায় চিকিৎসা ক্ষেত্রে ছড়িয়ে পড়ে তার সুনাম। দুর দুরান্ত থেকে আগত রোগীদের নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধে কাজ করাতে তখন স্বাধীনতা বিরোধী কুচক্র মহল পিছু লেগে যায় তাঁর। ১৯৭৬ সালে রাজাকার যুদ্ধপরাধীরা ডাকাত সেজে রাতে তার বাসায় হামলা চালায়। ডাকাতরা নগদ অর্থসহ লুট করে মুল্যবান কাগজ পত্রে আগুন ধরিয়ে পুড়ে দেয়। এ সময় তিনি নবীগঞ্জ উপজেলায় একটি জিডি করেন যার নং ৬/৭/১৯৭৬ ইং। সহায় সম্বল হারিয়ে ডাক্তার যোগেন্দ্র কিশোর বিশ্বাস নিঃস্ব হয়ে পড়েন। যুদ্ধে কাজ করা এমনকি তার মেডিকেল পাশ করা সার্টিফিকেট ডাকাতরা পুড়ে ফেলাতে তার কাছে কোন প্রমান নেই। এমনিতে বাধা সৃষ্টি হওয়াতে মুক্তি যুদ্ধে তার নাম না থাকায় সারাটি জীবন তিনি এভাবেই আক্ষেপের মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন। হালনাগাদ সরকার সঠিক মুক্তি যোদ্ধার নাম নেওয়াতে তাকে আবার মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় জেগে উঠতে হয়। কয়েক বছর যাবৎ দৌড়া দৌড়ি করে কোন ব্যবস্থা না হওয়াতে তিনি অনিশ্চিত জীবন যাপন করছেন। মুক্তি যুদ্ধে কাজ করার কিছু ডকুমেন্টারী তার হাতে রয়েছে। স্বাধীনতার পর নিজ এলাকায় দীর্ঘ ৪২ বছর চিকিৎসার সেবায় নিয়োজিত থেকে বর্তমানে তিনি অসুস্থ হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন।
নিজের চিকিৎসার জন্য তিনি সিলেট শাহপরাণ গেইটের খাদিমপাড়া ইউনিয়নে বাহুবল এলাকায় বাস করছেন। একজন প্রকৃত মুক্তি যোদ্ধার মুল্যায়ন না পাওয়াতে মানসিক ভাবে ভেঙ্গে পড়েছেন। দীর্ঘদিন ধরে নানা রোগে ভোগছেন। তাঁর শারীরিক সুস্থতার জন্য উন্নত চিকিৎসার প্রয়োজন। তিনি প্রধানমন্ত্রীর কাছে কৃতজ্ঞতার সাথে আবেদন জানান, তাঁর অধিকারটুকু ফিরিয়ে পেতে। সরেজমিনে সাক্ষাতে ডাক্তার যোগেন্দ্র কিশোর বলেন জীবন বাজি রেখে যুদ্ধাহত মানুষের পাশে যুদ্ধের পাশাপাশি আমার নিজ পেশাকে মানবকল্যাণে বিলিয়ে দিলাম। আজ আমি অসহায় একজন প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধার নাম টুকু থাকলে আমার জীবনটা স্বার্থক হত। জীবনের শেষ প্রান্তে এসে তার অধিকার টুকু পাওয়ার জন্য ব্যাকুল হয়ে আছেন। পাশাপাশি তার উন্নত চিকিৎসার জন্য সরকারের পাশাপাশি সকলের সহযোগিতা কামনা করেন এই বীর মুক্তিযোদ্ধা ডাক্তার যোগেন্দ্র বিশ্বাস।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com