বৃহস্পতিবার, ০৪ Jun ২০২০, ০৪:৪৯ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
মাত্র ৫ টাকার জন্য গোপায়া ও তেতৈয়া গ্রামবাসীর লঙ্কাকাণ্ড ॥ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর, লুটপাট, অগ্নিসংযোগ, কোটি টাকা ক্ষতি

মাত্র ৫ টাকার জন্য গোপায়া ও তেতৈয়া গ্রামবাসীর লঙ্কাকাণ্ড ॥ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর, লুটপাট, অগ্নিসংযোগ, কোটি টাকা ক্ষতি

স্টাফ রিপোর্টার ॥ মাত্র ৫টাকার জন্য গোপায়া ও তেতৈয়া গ্রামবাসীর মধ্যে দু’দিন ধরে লঙ্কাকাণ্ড চলছে। এই ৫টাকার জন্যই দাঙ্গায় আহত হয়েছেন শতাধিক মানুষ। অসংখ্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর ও লুটপাট করা হয়েছে। অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে যানবাহনসহ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। সব মিলিয়ে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবে বলে ক্ষতিগ্রস্তরা জানিয়েছেন। আগের দিন মঙ্গলবারের দাঙ্গার জের ধরে গতকাল বুধবারও গোপায়া ও তেতৈয়া গ্রামবাসীর মধ্যে ভয়াবহ সংঘর্ষ হয়েছে। সংঘর্ষ চলাকালে বেশ কিছু ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর ও লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ করা হয়। এছাড়া মোটর সাইকেল, টমটমসহ বেশ কয়েকটি যানবাহন আগুনে পুড়িয়ে দেয়া হয়। সংঘর্ষে পুলিশসহ উভয় পক্ষের অন্তত অর্ধশতাধিক আহত হয়েছে। সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রণ করতে পুলিশ রাবার বুলেট ছুড়ে।
Habigonj Pic 8 June 2016 copyপুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, গোপায়া গ্রামের কামরুল ইসলাম স্থানীয় ধুলিয়াখাল তেমুহনী থেকে মঙ্গলবার রাতে টমটমযোগে গোপায়া বাজারে যান। বাজারে নেমে টমটম চালক তেতৈয়া গ্রামের সুজন মিয়াকে ৫ টাকা ভাড়া দেন। কিন্তু সুজন মিয়া ১০টাকা ভাড়া দাবি করেন। এ নিয়ে তাদের মাঝে বাগবিতণ্ডা হয়। এক পর্যায়ে কামরুল উত্তেজিত হয়ে সুজনকে মারপিট করেন। খবর পেয়ে তেতৈয়া গ্রামের লোকজন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে সংঘর্ষের প্রস্তুতি নেয়। তারা মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে সংঘর্ষে যোগ দেয়ার জন্য গ্রামবাসীকে আহ্বান জানায়। Habiganj Pic 1 copy
এই খবর ছড়িয়ে পড়লে গোপায়া গ্রামের লোকজনও একই কায়দায় মসজিদের মাইকে ঘোষণা দেয়। রাত ১০টার দিকে তারাবির নামাজ শেষে উভয় পক্ষ সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। এ সময় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ব্যাপক ভাংচুর ও লুটপাট হয়। খবর পেয়ে হবিগঞ্জ সদর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ১২৪ রাউন্ড রাবার বুলেট ও ৬ রাউন্ড টিয়ারসেল নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়। ঘটনার পর থেকে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করে। গতকাল বুধবার ভোরে ফজরের নামাজের পর উভয় গ্রামবাসী পুনরায় Untitled-1 copy.jpgassমসজিদের মাইকে সংঘর্ষে যোগ দেয়ার আহ্বান জানিয়ে ভোরেই তারা দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে ফের সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। দফায় দফায় বেলা ১১টা পর্যন্ত চলে এ সংঘর্ষ। এ সময় ধুলিয়াখাল-মিরপুর সড়কের গোপায়া বাজার ও আশপাশের এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। সংঘর্ষ চলাকালে বেশ কয়েকটি দোকানপাট ভাঙচুর করে আগুন লাগিয়ে দেয়া হয়। আগুনে একটি ফ্রিজ ও একটি মোটরসাইকেল সম্পূর্ণ পুড়ে গেছে। লুট করা হয়েছে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোর মালামাল। এছাড়া এ সড়কে চলাচলকারী বেশ কয়েকটি যানবাহনে ব্যাপক ভাঙচুর চালানো হয়েছে। সংঘর্ষে আহতদের কয়েকজন সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি হলেও বেশিরভাগই গ্রেফতার আতঙ্কে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা নিচ্ছে।
habigonj-dokan_15522_0 copyখবর পেয়ে হবিগঞ্জ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিনের নেতৃত্বে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে প্রায় ৮৩ রাউন্ড রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। গুরুতর আহত অবস্থায় শাহ আলম (৩০), মকসুদ আলী (৩০) ও রমজান আলী (৭০)কে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পুলিশ অভিযান চালিয়ে তেতৈয়া গ্রামের শফিক মিয়ার পুত্র সুমন মিয়া, একই গ্রামের খুর্শেদ আলীর পুত্র মনসুর আহমেদ, আব্দুল আলীর পুত্র রবিন, আব্দুর রউফের পুত্র সোহেল, আনোয়ার আলীর পুত্র আমির হোসেন, ইউনুছ আলীর পুত্র এখলাছ মিয়া ও গোপায়া গ্রামের মৃত অনু মিয়ার পুত্র বাচ্চুু মিয়াকে আটক করে। এদিকে সংঘর্ষে চেয়ারম্যান আক্তার হোসেনের মোটরসাইকেল আগুনে পুড়িয়ে দেয়ার ঘটনায় থানায় অভিযোগ দেয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে সদর থানার ওসি মোঃ নাজিম উদ্দিন জানান, বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। ফের সংঘর্ষ এড়াতে ৭ দাঙ্গাবাজকে আটক করা হয়েছে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com